বর্তমান তারিখ:23 August, 2019

স্যামসাং অ্যানাউন্স করেছে তাদের নতুন ল্যাপটপ গালাক্সি বুক ২

২০১৮ সালের শুরু থেকেই বিভিন্ন ডিভাইস নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো নতুন নতুন ল্যাপটপ, টু-ইন-ওয়ান, কনভার্টেবল ল্যাপটপ/ট্যাবলেট রিলিজ করে আসছে। গত বছরের শেষের দিকেই গুগল রিলিজ করেছিলো তাদের ল্যাপটপ/ট্যাবলেট ডিভাইস, পিক্সেলবুক। এরপর অ্যাসুসের ডুয়াল ডিসপ্লে ল্যাপটপ, লেনোভো এবং এইচপির অলওয়েজ কানেক্টেড পিসি, মাইক্রোসফটের সারফেস প্রো ৬,গুগলের নতুন পিক্সেল স্লেট এবং আরও অনেক ধরনের ল্যাপটপ রিলিজ করেছে নামকরা ল্যাপটপ এবং স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো।

এবার স্যামসাংও অ্যানাউন্স করেছে তাদের নতুন ল্যাপটপ/ট্যাবলেট ডিভাইস, যার নাম গ্যালাক্সি বুক ২। স্যামসাং-এর এই ল্যাপটপ সিরিজটির পূর্ববর্তী মডেলের নাম ছিলো গ্যালাক্সি বুক। আগের মডেলটির সাহায্যে স্যামসাং ল্যাপটপের বাজারে খুব বেশি সাড়া ফেলতে পারেনি। তবে তাদের নতুন ল্যাপটপ, গ্যালাক্সি বুক ২ এর সাহায্যে তারা এবছর ল্যাপটপের বাজারে ভালো সাড়া ফেলতে পারবে বলে বিশ্বাস করছে। তবে স্যামসাং এর এই নতুন ল্যাপটপটি  মার্কেটের আর ৫ টি সাধারন ল্যাপটপ বা ট্যাবলেট-পিসির মতো নয়।

স্যামসাং গ্যালাক্সি বুক ২ ল্যাপটপটি এবছর রিলিজ হওয়া লেনোভোর এবং এইচপির ল্যাপটপদুটির মতোই একটি অলওয়েজ-কানেক্টেড পিসি। এই ল্যাপটপগুলোতে কোয়ালকমের স্ন্যাপড্রাগন চিপসেট ব্যাবহার করা হয় বলে, আমাদের হাতের স্মার্টফোনটির মতোই এই ল্যাপটপগুলো ২৪ ঘন্টাই নেটওয়ার্কের সাথে কানেক্টেড থাকতে পারে। স্ন্যাপড্রাগন চিপসেট ব্যাবহার করার ফলে এই ল্যাপটপগুলোকে ট্যাবলেটের মতো কখনোই বন্ধ করার প্রয়োজন পড়ে না। স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেটের মতোই ব্যাবহার করা সম্ভব হয় এই ল্যাপটপগুলো। সেজন্যই মুলত এই ল্যাপটপগুলোকে বলা হয় ” অলওয়েজ কানেক্টেড পিসি”।

Windows 10 on ARM প্রজেক্টের বাস্তবায়নে এই ল্যাপটপটি রান করবে কোয়ালকমের স্ন্যাপড্রাগন ৮৫০ প্রোসেসরের সাহায্যে। সাথে থাকছে ৪ গিগাবাইট র‍্যাম এবং ১২৮ জিবি ইন্টারনাল এসএসডি স্টোরেজ,। কোয়ালকমের সবথেকে পাওয়ারফুল এবং ল্যাপটপ গ্রেড এই প্রোসেসরটি গ্যালাক্সি বুক ২ কে গিগাবিট এলটিই স্পিড প্রোভাইড করতে পারবে বলে জানিয়েছে স্যামসাং। এছাড়া স্ন্যাপড্রাগন প্রোসেসর ব্যাবহার করার ফলে এই ল্যাপটপটি একবার ফুল চার্জ করার পরে ২০ ঘণ্টা পর্যন্ত ব্যাটারি ব্যাকআপ দিতে পারবে। কোয়ালকমের ভাষ্যমতে, স্ন্যাপড্রাগন ৮৫০ চালিত এই ল্যাপটপটি স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ চালিত ল্যাপটপগুলোর তুলনায় প্রায় ৩০% বেটার পারফরমেন্স প্রোভাইড করতে পারবে।

এই ল্যাপটপটিতে থাকছে ১২ ইঞ্চির একটি টাচ-স্ক্রিন অ্যামোলেড ডিসপ্লে, যার রেজুলেশন ২১৬০*১৪৪০ পিক্সেল। স্যামসাং এর ল্যাপটপ হওয়ায় এতে অ্যামোলেড ডিসপ্লে থাকা খুবই স্বাভাবিক। এছাড়াও থাকছে একটি রিমুভেবল কি-বোর্ড টাইপ কভার যেখানে থাকছে কি-বোর্ড এবং ট্রাকপ্যাড। এছাড়া স্যামসাং এর বিখ্যাত S-pen সাপোর্ট এবং একটি S-pen ও থাকছে এই ল্যাপটপটির সাথে। দুটি ইউএসবি সি পোর্ট, মাইক্রো এসডি কার্ড স্লট এবং এমনকি একটি হেডফোন জ্যাকও থাকছে এই ল্যাপটপটিতে, যা এখনকার অধিকাংশ মডার্ন স্মার্টফোনেও দেখতে পাওয়া যায়না।

এই ল্যাপটপটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে উইন্ডোজ ১০ এস। এটি মুলত উইন্ডোজ ১০ এর একটি লিমিটেড ভার্সন, যেখানে শুধুমাত্র উইন্ডোজ স্টোরের অ্যাপস ছাড়া আর কোন থার্ড পার্টি অ্যাপস কিংবা Win32 অ্যাপস ব্যাবহার করা যায়না। তবে উইন্ডোজ ১০ এস থেকে উইন্ডোজ ১০ প্রো-তে আপগ্রেড করে নেওয়ার অপশনও থাকছে। স্যামসাং গ্যালাক্সি বুক ২ এর মতো এই অলওয়েজ কানেক্টেড পিসি বা ল্যাপটপগুলো বেশ ভালো পারফরমেন্স দিতে পারলেও কখনোই ইন্টেলের ডেস্কটপ গ্রেডের প্রোসেসরগুলোর মতো পারফর্ম করতে পারে না, করার কথাও নয়। আর এই ল্যাপটপটি যারা কিনতে চাইবেন, তাদের কাছেও সাধারনত পারফরমেন্স প্রধান প্রায়োরিটি হয় না। স্যামসাং জানিয়েছে তারা আগামী নভেম্বর ২ তারিখে এই ল্যাপটপটি মার্কেটে রিলিজ করবে এবং এই ডিভাইসটির প্রাইস হবে ১০০০ ডলার, যা বাংলাদেশের টাকায় প্রায় ৮৫,০০০ টাকা।


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Image Credit : Engadget

Share