WireBD
শাওমি এবং তাদের ৫% প্রোফিটের প্রতিশ্রুতি

শাওমি এবং তাদের ৫% প্রোফিটের প্রতিশ্রুতি : কেন এবং কিভাবে? [বিস্তারিত ব্যাখ্যা]

আপনি যদি শাওমি ফ্যানবয় হয়ে থাকেন অথবা সোশ্যাল মিডিয়াতে শাওমিকে ফলো করে থাকেন, তাহলে আপনি হয়তো জানেন যে, শাওমির সিইও কিছুদিন আগে অ্যানাউন্স করেছে যে, তারা তাদের তৈরি ডিভাইসগুলো থেকে ৫% এর বেশি প্রোফিট রাখছে না এবং ভবিষ্যতেও রাখার চিন্তাভাবনা করছে না। অর্থাৎ, শাওমির ভাষ্যমতে, তারা তাদের তৈরি কোন ডিভাইস যদি কনজিউমারদের কাছে ১০০ টাকায় সেল করে, তাহলে সেই ডিভাইসটির থেকে তারা লাভ করবে মাত্র ৫ টাকা।

এটা অনেকের কাছেই অনেকটা হাস্যকর মনে হতে পারে। ১০০ টাকায় যদি ৫ টাকা নিট প্রোফিট রাখে, তাহলে কোম্পানি টিকে থাকবে কিভাবে? অ্যাডস, মার্কেটিং এসব ক্ষেত্রেই বা খরচ করবে কোত্থেকে? আসলে ব্যাপারটা আপনি যতটা কঠিন ভাবছেন, ততটা নয়। আজকে শাওমি এবং তাদের এই ৫% প্রোফিটের এই বিষয়টি নিয়েই আলোচনা করা যাক।

যদি একেবারে এককথায় এর উত্তর দেওয়া হয়, তাহলে বলতে হবে যে, শাওমি তাদের ডিভাইসগুলোর নিট প্রোফিট ৫% রেখেছে আরো বেশি আয় করার জন্য। কিভাবে? আপনি হয়তো জানতেন না যে, শাওমির সম্পূর্ণ বিজনেসের মূলত তিনটি অংশ আছে। শাওমির সম্পূর্ণ প্রোফিটের ৭০% আসে তাদের স্মার্টফোন থেকে। যেমন- রেডমি নোট ফোর, নোট ফাইভ, মি মিক্স ইত্যাদি সবধরনের স্মার্টফোনগুলো থেকে। এছাড়া আরও ২০% প্রোফিট আসে তাদের অন্যান্য আনুসঙ্গিক ডিভাইস যেমন- মি ব্যান্ড, মি রাউটার এবং অন্যান্য স্মার্ট হোম ডিভাইসগুলো থেকে। আর সর্বশেষ প্রায় ১০% প্রোফিট আসে তাদের অন্যান্য ইন্টারনেট সার্ভিসগুলো থেকে। যেমন- হতে পারে মিউজিক সাবস্ক্রিপশন সার্ভিস, ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস, থিম/অ্যাপস স্টোর এবং বিশেষ করে অ্যাডস এবং স্পন্সরড কন্টেন্টস ইত্যাদি থেকে।

শাওমি

৫% প্রোফিট রাখবে শুধুমাত্র ডিভাইস এবং হার্ডওয়্যারে!

এখানেই মুলত ৫% প্রোফিটের বিষয়টি চলে আসে। কারন, শাওমির সিইও বলেছে যে তারা শুধুমাত্র তাদের প্রোফিটের প্রথম দুটি ক্যাটেগরিতে অর্থাৎ শুধুমাত্র স্মার্টফোন এবং অন্যান্য স্মার্ট ডিভাইসগুলো ৫% লাভ করছে এবং করবে। তারা বলেনি যে তারা তাদের সফটওয়্যার এবং ইন্টারনেট সার্ভিসগুলোকেও এই প্রতিশ্রুতির মধ্যে রাখছে। এখন আপনি ভাবতে পারেন, সফটওয়্যার এবং ইন্টারনেট সার্ভিস থেকে শাওমি কতটুকুই বা প্রোফিট জেনারেট করতে পারে যে অন্যান্য ক্যাটেগরিতে প্রোফিট কমিয়ে দিলেও কিছু যাবে আসবে না? এর উত্তর হচ্ছে, আপনি যা ভাবছেন তার থেকেও অনেক বেশি।

আপনি হয়তো জানেন যে, শাওমি নিজেদেরকে একটি ইন্টারনেট কোম্পানি হিসেবে দাবী করে। এছাড়া তারা এটাও বলে যে, শাওমি লোগোতে আমরা যে MI লেখাটি দেখতে পাই, এর সম্পূর্ণ অর্থগুলো হচ্ছে Mobile Internet। তাহলে শাওমি কেন প্রোফিটের ক্ষেত্রে তাদের ডিভাইসগুলো বাদ দিয়ে তাদের ইন্টারনেট সার্ভিসের ওপরে বেশি ফোকাস করছে? এর কারন হচ্ছে, শাওমি কোন নন প্রোফিট অর্গানাইজেশন নয়, একটি ব্যাবসায়িক কোম্পানি।

শাওমি

আপনি হয়তো জানেন না যে, স্মার্টফোন হার্ডওয়্যারের বিজনেস এখন অনেকটাই কঠিন এবং অনেকটাই কমপ্লিকেটেড। কারন, এখন অনেক অনেক স্মার্টফোন ম্যানুফ্যাকচারার অনেক ভালো স্মার্টফোন এবং হার্ডওয়্যার তৈরি করছে এবং আস্তে আস্তে স্মার্টফোনে দামও অনেক কমে যাচ্ছে। এর ফলে, শুধুমাত্র স্মার্টফোন হার্ডওয়্যারের দিকে ফোকাস করে মার্কেটে টিকে থাকা অনেকটাই কঠিন যদিনা আপনার কোম্পানিটি অ্যাপল বা স্যামসাং এর মত হয়ে থাকে। কারন, সত্যি কথা বলতে শুধুমাত্র স্মার্টফোন হার্ডওয়্যারের ওপরে ডিপেন্ড করে ম্যাক্সিমাম প্রোফিট কিভাবে জেনারেট করা সম্ভব হয়  তা অ্যাপল এবং স্যামসাং এর মত বড় বড় স্মার্টফোন ম্যানুফ্যাকচারারই বুঝেছে এবং সে অনুযায়ী এগিয়ে যাচ্ছে। এইজন্যই স্মার্টফোন বাজারে টিকে থাকার জন্য ওয়ানপ্লাসের মত কোম্পানিগুলোকে কম দামে অনেক ভালো হার্ডওয়্যার অফার করতে হয়েছে।

শাওমি ইন্টারনেট সার্ভিসগুলোর দিকে বেশি ফোকাস করছে!

তবে এখানে শাওমি বিজনেস পলিসিতে আরেকটু বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছে। শাওমি এতদিনে বুঝেছে যে শুধুমাত্র স্মার্টফোন হার্ডওয়্যারের ওপরে নির্ভর করে তারা কখনোই ম্যাক্সিমাম প্রোফিট জেনারেট করতে পারবে না। কারন, সেটা করতে হলে তাদের ডিভাইসগুলোর প্রাইস অ্যাপল বা স্যমসাং এর ডিভাইসগুলোর প্রাইসের সমান সমান রাখতে হবে এবং এটা করলে শাওমির কাস্টোমার অনেক কমে যাবে এবং এর ফলে তাদের আয়ও অনেক অনেক কমে যাবে। তাই শাওমি তাদের স্মার্টফোনগুলোর প্রোফিট ৫% এ লিমিটেড রেখে তাদের অন্যান্য সার্ভিসের দিকে ফোকাস করছে। কারন, হার্ডওয়্যারের থেকে ইন্টারনেট সার্ভিসের দিকে ফোকাস করে প্রোফিট জেনারেট করা, হার্ডওয়্যারের থেকে অনেক বেশি সহজ। এটা মাইক্রোসফট, ফেসবুক, গুগল, আলিবাবা, টেনসেন্ট ইত্যাদি মোস্ট সাকসেসফুল কোম্পানি অনেক আগেই প্রমান করেছে।

ব্যাপারটা আরেকটু সহজ করে বলা যাক। ট্রেডিশনাল স্মার্টফোন কোম্পানি যেমন স্যামসাং যা করে তা হচ্ছে, স্মার্টফোনগুলো কনজিউমারদের কাছে ম্যাক্সিমাম প্রোফিটে সেল করে দেওয়ার পরে সেই কাস্টোমারের থেকে আর কোন প্রোফিট জেনারেট করার চেষ্টা করেনা। অর্থাৎ, কাস্টোমার যখন তাদের ডিভাইসটি যখন ব্যবহার করে, তখন এর থেকে আর কোন রেভিনিউ পাওয়ার চেষ্টা করেনা যেহেতু তারা আগে থেকেই হার্ডওয়্যারে যথেষ্ট প্রোফিট নিয়েছে।

শাওমি তাদের ফোনগুলো সেল করার সময় বেশি প্রোফিট না রেখে সেল করার পরে বেশি প্রোফিট রাখতে চাইছে!

কিন্তু এখানে শাওমি যা করতে চাচ্ছে তা হচ্ছে, কাস্টোমারদের কাছে তাদের হার্ডওয়্যার এবং ডিভাইসগুলো তুলনামূলকভাবে অনেকটা কম প্রাইসে (৫% প্রোফিটে) সেল করবে এবং তারা এরপর প্রোফিট জেনারেট করা শুরু করবে যখন আপনি তাদের ডিভাইসটি কিনবেন এবং অ্যাক্টিভলি ব্যবহার করা শুরু করবেন। এর অর্থ হচ্ছে শাওমি তাদের ডিভাইসগুলো সেল করার আগের প্রোফিটের তুলনায় সেল করার পরের প্রোফিটের ওপরে বেশি গুরুত্ব দিতে চাইছে।

শাওমি

আপনি যদি শাওমির তৈরি অ্যান্ড্রয়েড স্কিন, MIUI ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি খেয়াল করে দেখবেন যে শাওমির অধিকাংশ বিল্ট ইন অ্যাপসে অ্যাডস এবং তাদের প্রোমোটেড বা স্পনসরড কন্টেন্টস থাকে। এইসকল কন্টেন্টস থেকেও শাওমি যথেষ্ট রেভিনিউ জেনারেট করে নেয়। আর বুঝছেনই তো, এসব করা তখনই সম্ভব হয় যখন কনজিউমার তাদের ডিভাইসটি কিনে ফেলে এবং অ্যাক্টিভলি ব্যবহার করতে থাকে। আর তাদের এই প্রোফিটটি কখনোই শেষ হবেনা। এছাড়া অনলাইন সার্ভিস এবং পেইড সাবসক্রিপশন থেকেও শাওমি অনেক রেভিনিউ পায়, তবে সেটা বলতে গেলে চায়নার মধ্যেই। কারন, চায়নায় গুগলের সকল সার্ভিস নিষিদ্ধ।

কম দাম+ভালো হার্ডওয়্যার = আরও বেশি সেল এবং প্রোফিটের সুযোগ!

কিন্তু এখানে আরেকটা বিষয় হচ্ছে, তারা অ্যাক্টিভলি এসব ইন্টারনেট সার্ভিস থেকে প্রোফিট আনতে পারবে শুধুমাত্র তখনই, যখন বিপুল পরিমান মানুষ তাদের ডিভাইস ব্যবহার করবে। এর জন্য যা করতে হবে তা হচ্ছে, ফোনের দাম অন্যদের তুলনায় কমাতে হবে। এই চেকবক্সটি শাওমি অনেক আগেই পূরণ করে ফেলেছে। শাওমির রেডমি নোট ৪ স্মার্টফোনটি ছিল ২০১৭ সালের ইন্ডিয়ার সবথেকে বেশি সেল হওয়া স্মার্টফোন। এখনকার সময়ে শাওমি ব্র্যান্ডটির নাম শুনলেই অনেকে যা ভেবে নেন তা হচ্ছে কম দাম এবং একইসাথে ভালো হার্ডওয়্যার। তাই এই কম দামের কারনে ডিভাইসগুলো সেলও হবে অনেক বেশি এবং যত বেশি সেল হবে ততই বেশি হবে আফটার-সেল প্রোফিট পাওয়ার সুযোগ। এবং এর ফলে তারা যদি তাদের স্মার্টফোনগুলোতে ৫% এরও কম প্রোফিট রাখে, তবুও সবশেষে তাদের টোটাল নিট প্রোফিট একেবারেই কমে যাচ্ছেনা, বরং আরও বেড়ে যাচ্ছে।


এতক্ষনে নিশ্চুই কিছুটা হলেও ধারনা পেয়েছেন যে, শাওমি এবং তাদের এর ৫% প্রোফিটের স্ট্র্যাটেজি কিভাবে কাজ করবে এবং কেনই বা তারা এই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আজকের মত এখানেই শেষ করছি। কোন ধরনের প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট সেকশনে জানাবেন।

সিয়াম একান্ত

অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ এবং প্রযুক্তিকে ভালোবাসি। জীবনে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততোটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। তাই পড়াশুনার পাশাপাশি প্রায় অধিকাংশ সময়ই প্রযুক্তি নিয়ে সময় কাটাই। আশা করি এখানে আপনাদেরকে প্রযুক্তি বিষয়ক ভালো কিছু আর্টিকেল উপহার দিতে পারব।

11 comments

  • এটা মানতেই হবে, সাওমি যা দেয় সেই দামের মধ্যে কেউ দেয় না। বাজেটের দিকে শাওমি সর্বদা কিং। যেখানে অপ্প ভিভ মার্কেটিং করে সকল টাকা শেষ করে দেয় সেখানে সাওমি প্রোডাক্টের পেছনে টাকা খরচ করে। এই জন্যই সাওমি বেস্ট কোম্পানি!
    ধন্যবাদ ভাইয়া। আর্টিকেলটিকে এতো পরিস্কার করে কভার করার জন্য।

    • জী ভাইয়া। মূলত সেটাই শাওমি বা ওয়ানপ্লাস কোম্পানিগুলোর প্রধান স্ট্র্যাটেজি। 🙂

  • Accha bhai alada company gulor phone ar dam eto beshi keno? Ekta phone banate tader cost exactly koto thake. Iphone 10 er dam 150K. But oita build korte koto lage?

    • স্যামসাং, এলজী ইত্যাদি মেজর স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলোর ফোনের দাম বেশি হওয়ার অনেকরকম কারন থাকতে পারে। যেমন- তাদের প্রত্যেকটি ফোনের ডিজাইন, ম্যানুফ্যাকচারিং, অ্যাডভারটাইজমেন্ট, মার্কেটিং ইত্যাদি প্রত্যেকটি সেক্টরের পেছনে ছোট ছোট কোম্পানিগুলোর তুলনায় অনেক বেশি বাজেট রাখতে হয়। এছাড়া স্যমসাং বা অ্যাপলের মতো জায়ান্ট টেক কোম্পানিগুলোকে সবসময় লেটেস্ট টেকনোলজিগুলোকে নিয়ে গবেষণা করতে হয় এবং সেগুলোকে কিভাবে কাজে লাগানো যায় এগুলো নিয়েও রিসার্চ করতে হয়। এর পেছনেও তাদেরকে অনেক বাজেট রাখতে হয়। এসব মেজর স্মার্টফোন ম্যানুফ্যাকচারারদের ফোনের দাম অনেক বেশি হওয়ার এটি একটি অন্যতম কারন।

    • আমরা ফিচার ইমেজে Shutterstock এর ইমেজ ব্যাবহার করি। Shutterstock এর ইমেজ ডাউনলোড করতে হলে সাবস্ক্রিপশন কিনতে হবে। 🙂

  • আমার মতে শাওমি বর্তমানে বেস্ট ইনভেটিভ কোম্পানি। আপেল theko বেশি।

সোশ্যাল মিডিয়া

লজ্জা পাবেন না, সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে টেকহাবসের সাথে যুক্ত হয়ে সকল আপডেট গুলো সবার আগে পান!