গ্যালাক্সি এস ৯ ও এস ৯ প্লাস : স্যামসাং এর নতুন দুটি ফ্ল্যাগশিপ! (ওভারভিউ)

স্যামসাং এর এস এবং নোট লাইনআপ লাইনআপ সবসময়ই তাদের আল্ট্রা প্রিমিয়াম স্মার্টফোনগুলোর সিরিজ ছিল। প্রত্যেক বছরই স্যামসাং তাদের এই এস লাইনআপে নতুন দুটি করে ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন রিলিজ করে যেগুলো সেই একটি সম্পূর্ণ বছরের জন্য স্যামসাং এর একমাত্র ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন হয়ে থাকে। নোট সিরিজের কথা আলাদা কারণ, সেগুলো সেই ধরণের অডিয়েন্সের কথা মাথায় রেখে তৈরী করা হয় যারা বড় স্মার্টফোন বেশি পছন্দ করেন। তাই অধিকাংশ কনজিউমারের জন্যই স্যামসাং এর এস লাইনআপের স্মার্টফোনগুলোই স্যামসাং এর আল্ট্রা প্রিমিয়াম স্মার্টফোনের ক্যাটাগরিতে পড়ে। গত বছর স্যামসাং তাদের ২০১৭ এর ফ্ল্যাগশিপ, গ্যালাক্সি এস ৮ এবং এস ৮ প্লাস রিলিজ করেছিল। সেই সূত্র ধরেই এবছর গতকাল মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস ২০১৮ এ স্যামসাং এনাউন্স করেছে তাদের এস লাইনআপের নতুন দুটি স্মার্টফোন, গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ প্লাস। আজকে আলোচনা করবো স্যামসাং এর এই নতুন দুটি স্মার্টফোনে কি কি থাকছে এবং আগের বছরের তুলনায় কি কি ইম্প্রুভ হয়েছে সে বিষয়ে।

ডিজাইন

যদিও ডিজাইন জিনিসটি গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ প্লাসের সবথেকে বড় ফিচার বা ইম্প্রুভমেন্ট নয়, তবে এটা উল্লেখ করতেই হয়। কারণ, এবছর স্যামসাং তাদের নতুন স্মার্টফোনদুটিতে হালকা একটু ডিজাইন চেঞ্জ এনেছে যা বেশ নোটিসেবল। মূলত স্যামসাং এবার তাদের গত বছরের মডেলের ডিজাইনে যে ভুলটি করেছিল সেটি ঠিক করে নিয়েছে। সেটি হচ্ছে, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। গত বছরের মডেলে অর্থাৎ গ্যালাক্সি এস ৮ এবং এস ৮ প্লাসে তারা ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেসরটি মোবাইলের পেছনে ক্যামেরার ডানপাশে এমন একটি জায়গায় দিয়েছিলো যেখানে হাতের আঙ্গুল পৌঁছানো বেশ কষ্টকর একটি ব্যাপার ছিল। এবার তারা এস ৯ এবং এস ৯ প্লাসে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর রেখেছে ক্যামেরার নিচে, যেমন অন্যান্য সব স্মার্টফোনে দেখে থাকি আমরা। এছাড়া তারা ফোনের নিচেরদিকের বেজেলও একটু কমাতে পেরেছে। যার ফলে গত বছরের মতো ইনফিনিটি ডিসপ্লে রাখার পরেও আগের থেকেও আরো স্লিম বেজেলের ডিভাইস তৈরী করতে পেরেছে।

গ্যালাক্সি এস ৯

ডিসপ্লে এবং স্পেকস

এবছর ডিসপ্লেতে তেমন কোনোই পরিবর্তন বা ইম্প্রুভমেন্ট আনেনি স্যামসাং। গ্যালাক্সি এস ৯ এ ব্যবহার করা হয়েছে ৫.৮ ইঞ্চির সুপার এমোলেড ইনফিনিটি ডিসপ্লে যার রেজুলেশন ১৪৪০পি বা কোয়াড এইচডি প্লাস। আর এস ৯ প্লাসে ব্যবহার করা হয়েছে ৬.১ ইঞ্চির সুপার এমোলেড ইনফিনিটি ডিসপ্লে যার রেজুলেশন ১৪৪০পি বা কোয়াড এইচডি প্লাস। এছাড়া ডিসপ্লেতে আর কোনো পরিবর্তন বা ইম্প্রুভমেন্ট নেই। গ্যালাক্সি এস ৯ এর ডিসপ্লেও গত বছরের গ্যালাক্সি এস ৮ এর মতোই। তবে প্রত্যেক বছরই স্যামসাং তাদের এস লাইনআপের স্মার্টফোনগুলোর ডিসপ্লেতে কিছু ইম্প্রুভমেন্ট করেই থাকে। এবছরওএর কোনো ব্যাতিক্রম ঘটেনি। তবে ডিসপ্লে এই ফোনদুটির প্রধান আকর্ষণ না।

আর এবার গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ এ স্যামসাং ব্যবহার করেছে কোয়ালকমের নতুন প্রোসেসর, স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫। আর এই দুটি স্মার্টফোনই পৃথিবীর প্রথম স্মার্টফোন যেগুলোতে স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫ প্রোসেসর ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে ফোনটির ইউএস এবং চায়না ভার্সনেই থাকছে স্ন্যাপড্রাগন প্রোসেসর। অন্যান্য দেশে এস ৯ এবং এস ৯ প্লাসে থাকবে স্যামসাং এর নিজের প্রোসেসর, এক্সিনস ৯৮১০। আর জিপিইউ হিসেবে ইউএস এবং চায়না ভার্সনে থাকছে অ্যাড্রেনো ৬৩০ এবং ইন্টারন্যাশনাল ভার্সনে থাকছে ম্যালি জি ৭২ এমপি ১৮। যার ফলে, নিশ্চিতভাবেই স্যামসাং তাদের এবছরের মডেলে আগের বছরের গ্যালাক্সি এস ৮ এর তুলনায় আরো অনেক বেটার পারফর্মেন্স অফার করছে। র‍্যাম এবং স্টোরেজ এর ক্ষেত্রে এস ৯ এ থাকছে ৪ জিবি র‍্যাম ও ৬৪/২৫৬ জিবি স্টোরেজ, আর এস ৯ প্লাসে থাকছে ৬ জিবি র‍্যাম ও ৬৪/২৫৬ জিবি স্টোরেজ। সফটওয়্যার হিসেবে এটিতে থাকছে এন্ড্রোয়েড ৮.০ (অরিও) যা স্যামসাং এক্সপেরিয়েন্স ইউআই এর ওপরে রান করছে।আর এই সিস্টেমটিকে ব্যাকাপ করছে ৩০০০ এমএএইচ এবং ৩৫০০ এমএএইচ ব্যাটারি। এছাড়াও গত বছর গ্যালাক্সি এস ৮ এবং এস ৮ প্লাসে যেসব ফিচার ছিল তার প্রায় সবই থাকছে, যেমন ওয়াটার রেসিস্টেন্স, এসডি কার্ড স্লট, গোরিলা গ্লাস ৫ প্রটেকশন, ওয়্যারলেস চার্জিং এবং এমনকি হেডফোন জ্যাকও !

ফোনদুটির সম্পূর্ণ ডিটেইলড স্পেসিফিকেশন নিচে দেখতে পারেন-

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৯

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৯ প্লাস

গ্যালাক্সি এস ৯

ক্যামেরা

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ প্লাসের সবথেকে বড় চেঞ্জ বা সবথেকে বড় ইমপ্রুভমেন্ট হচ্ছে এই ক্যামেরা। গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ প্লাসে ব্যবহার করা হয়েছে গত বছরের তুলনায় অনেক বেশি ইম্প্রুভড ক্যামেরা সিস্টেম। ক্যামেরা সিস্টেম বলা হচ্ছে কারণ, এবার শুধুমাত্র ক্যামেরা কোয়ালিটি ইম্প্রুভ করা হয়েছে না নয়। এবার গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ এর অভারল ক্যামেরা সিস্টেম অর্থাৎ ক্যামেরা হার্ডওয়্যার এবং ক্যামেরা সফটওয়্যার দুটিতেই ইম্প্রুভমেন্ট আনা হয়েছে। টেকনিক্যাল স্পেসিফিকেশন বলতে হলে, গ্যালাক্সি এস ৯ এ রিয়ারে থাকছে ১২ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা যেটাতে থাকছে ডুয়াল পিক্সেল টেকনোলজি এবং অপ্টিক্যাল ইমেজ স্টেবিলাইজেশন। আর এস ৯ প্লাসে থাকছে ডুয়াল পিক্সেল টেকনোলজির একটি ১২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং আরেকটি ১২ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা যা ২এক্স লসলেস জুমের ক্ষেত্রে সাহায্য করে। অর্থাৎ গ্যালাক্সি এস ৯ প্লাসে থাকছে ডুয়াল ক্যামেরা সেটাপ। আর এই দুটি ফোনেরই ফ্রন্টে থাকছে ৮ মেগাপিক্সেল সেল্ফি ক্যামেরা। আর বরাবরের মতোই এই ফোনদুটির রিয়ার ক্যামেরা সর্বোচ্চ ৪কে বা ২১৬০পি ভিডিও ক্যাপচার করতে সক্ষম, তবে এবার এটি ৪কে ভিডিও করতে পারবেন ৬০ ফ্রেমস পার সেকেন্ডে যা খুব কম স্মার্টফোনই পারে।

গ্যালাক্সি এস ৯

কিন্তু গ্যালাক্সি এস ৯ এর ক্যামেরার বিশেষত্ব মুলত এগুলো না। গ্যালাক্সি এস ৯ এর ক্যামেরা সেন্সরের বিশেষত্ব হচ্ছে এর অ্যাপারচার। আমরা সাধারনত যেকোনো স্মার্টফোনের ক্যামেরাতেই সবসময় ফিক্সড অ্যাপারচার দেখে থাকি। যেমন- এফ ২.০, এফ ১.৯/১.৭ ইত্যাদি। তবে গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ প্লাসের প্রাইমারি ক্যামেরায় কোনো নির্দিষ্ট আ্যাপারচার নেই। এই ক্যামেরার অ্যপারচার ইউজার নিজেই কন্ট্রোল করতে পারবেন। অর্থাৎ এফ ১.৫ থেকে শুরু করে এফ ২.৪ পর্যন্ত কখন কোন অ্যাপারচার ব্যবহার করে আপনি ছবি তুলবেন তা আপনি নিজেই কন্ট্রোল করতে পারবেন ক্যামেরা অ্যাপে। এবং এই দুটিই ওয়ার্ল্ড এর প্রথম স্মার্টফোন যার ক্যামেরা লেন্স ফিজিক্যালি ছোট-বড় হয় অ্যাপারচার পরিবর্তন করার সময়। একটি স্মার্টফোনের জন্য এটি একটি অবিশ্বাস্য ব্যাপার। আর এছাড়াও এবার স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ প্লাস থাকছে AR Emoji যা আপনার ফেস অনুযায়ী অর্থাৎ আপনার ফেসের মুভমেন্ট অনুযায়ী লাইভ ইমোজি তৈরি করবে, যেমনটা আইফোন ৮ এবং আইফোন এক্স এর ফ্রন্ট ক্যামেরা করছে।

এছাড়াও গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ প্লাস এর আরেকটি যুগান্তকারী ক্যামেরা ফিচার হচ্ছে স্লো মোশন ভিডিও। গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ প্লাস হচ্ছে ওয়ার্ল্ড এর পদ্বিতীয় ফোন যে ৭২০ ফ্রেমস পার সেকেন্ডে স্লো মোশন ভিডিও ক্যাপচার করতে পারে (৭২০পি রেজুলেশনে)। প্রথমটি ছিল সনি এক্সপেরিয়া এক্সজেড প্রিমিয়াম। এই ৭২০ ফ্রেমস পার সেকেন্ডে স্লো মোশন ভিডিও রেকর্ড করা সাধারনত ডেডিকেটেড স্লো মোশন ক্যামেরা ছাড়া করা যেত না। আর সনি এক্সপেরিয়া এক্সজেড প্রিমিয়ামের পরে এই গ্যালাক্সি এস ৯ সেটাই করছে। এর ফলে গ্যালাক্সি এস ৯ আক্ষরিক অর্থেই একটি ০.২ সেকেন্ডের ভিডিওকে এতটাই স্লো মোশনে ক্যাপকার করতে পারে যে, ভিডিওটি ৬ সেকেন্ড ধরে প্লে হতে পারে। তাহলে নিশ্চই ধারণা করতে পারছেন যে কেন ক্যামেরাকে গ্যালাক্সি এস৯ এর মুল ফোকাস বলা হয়েছে।

গ্যালাক্সি এস ৯

তো এই ছিল স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৯ এবং এস ৯ প্লাসের একটি শর্ট ওভারভিউ। বাজারে এই স্মার্টফোনদুটিই তিনটি করে আমারে এভেইলেবল হবে। মিডনাইট ব্ল্যাক, কোরাল ব্লু এবং পার্পল। ইউএস এ এই স্মার্টফোনদুটির দাম যথাক্রমে ৭২০ ডলার এবং ৮৪০ ডলার। এই ফোনদুটির জন্য বর্তমানে স্যামসাং তাদের ওয়েবসাইটে প্রিঅর্ডার নিচ্ছে। কিন্তু কনজিউমারদের কাছে এই ফোনদুটি এখনো পৌঁছায়নি। আর এই ফোনটি বাংলাদেশে এভেইলেবল হতে হতে আরো ২-৩ মাস লেগে যাবে। বাংলাদেশে এর প্রাইস কত হবে তা জানা যায়নি এখনো, তবে ধারণা করা যায় গত বছরের গ্যালাক্সি নোট ৮ এর মতোই বা তার থেকে অল্প কিছু কম দাম হতে পারে এই স্মার্টফোনদুটির।


আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। আশা করি আজকের আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগেছে। কোনো ধরণের প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট সেকশনে জানাবেন।


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Image Credit : Marques Brownlee (Youtube)

সিয়াম
অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ ছিলো এবং হয়তো সেই আকর্ষণটা আরো সাধারন দশ জনের থেকে একটু বেশি। নোকিয়ার বাটন ফোন থেকে শুরু করে ইনফিনিটি ডিসপ্লের বেজেললেস স্মার্টফোন, সবই আমার প্রিয়। জীবনে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততোটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। আর এই প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ থেকেই লেখালেখির শুরু.....