ব্লকচেইন টেকনোলজি : এটি কি এবং কিভাবে কাজ করে?

ব্লকচেইন টেকনোলজি

এই বিষয়টি অনেক পুরনো হলেও গত বছর বিটকয়েন নিয়ে মানুষের আগ্রহ এবং ক্রিপটোকারেন্সির জনপ্রিয়তা বাড়ার পরেই এই ব্লকচেইন টেকনোলজি নিয়ে মানুষের আগ্রহ আরও বেড়ে যায়।  কারণ, বিটকয়েন বা অন্যান্য অধিকাংশ ক্রিপটোকারেন্সি এই ব্লকচেইন টেকনোলজির ওপরেই ভিত্তি করে কাজ করে। তাই ক্রিপটোকারেন্সি কি এবং কিভাবে কাজ করে সেটা জানতে হলে সবার আগে জানতে হবে জানতে হবে এর পেছনের প্রযুক্তিটি নিয়ে। তাই আজকে আলোচনা করবো এই ক্রিপটোকারেন্সির পেছনের প্রযুক্তি, ব্লকচেইন কি এবং এটি কিভাবে কাজ করে। এই সম্পূর্ণ ব্লকচেইন টেকনোলজিটিই মূলত একটু সহজ ভাষায় এবং অল্প কথায় ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করবো। চলুন, প্রথমেই জানা যাক,

ব্লকচেইন কি?

প্রথমেই এই টার্মটির দিকে একটু ভালো করে খেয়াল করুণ। তাহলেই একটি বেসিক ধারণা পাবেন যে এই নামটি দিয়ে আসলে কি বোঝানো হচ্ছে। ব্লকচেইন মানে বলা হচ্ছে ব্লক দিয়ে তৈরি চেইন বা ব্লকের চেইন। চেইন কি তা আমরা সবাই জানি। অনেকগুলো একই ম্যাটেরিয়াল পাশাপাশি একটির সাথে আরেকটি যোগ করার মাধ্যমে সেগুলোকে একটি শিকলের মত করাকেই চেইন বলা হয়। তাহলে ভেবে দেখুন, অনেকগুলো ব্লককে একটির সাথে আরেকটি জোড়া দেওয়ার মাধ্যমে ব্লকের একটি শিকল তৈরি করাকেই বোঝানো হচ্ছে ব্লকচেইন টার্মটির দ্বারা। আচ্ছা, আর যে ব্লকগুলোর দ্বারা এই চেইনটি তৈরি করা হয় সেই ব্লকগুলো মূলত ইনফরমেশন স্টোর করে। ব্লকচেইন টেকনোলজিটি অনেক আগে থেকেই আছে এবং অনেক ক্ষেত্রে ব্যাবহারও হয়ে আসছে। কিন্তু সাধারন মানুষের এই টেকনোলজিটির প্রতি আগ্রহ তৈরি হয় মূলত ২০০৯ সালে বিটকয়েন নামের ক্রিপটোকারেন্সিটি উদ্ভাবন হওয়ার পরে। টেকনিক্যালি বলতে হলে ব্লকচেইন হচ্ছে একটি ডিস্ট্রিবিউটেড লেজার, যেটি সকলের জন্য উন্মুক্ত। ব্লকচেইনের ব্লকগুলোর মধ্যে যখন একটি ডেটা ইন্টার করা হয়, তখন ওই ডেটাটিকে ডিলিট করা বা ডেটাটির কোন ধরনের পরিবর্তন করা প্রায় অসম্ভব। কিন্তু কিভাবে?

অলরাইট, এটা জানতে হলে প্রথমে জানতে হবে যে এই ব্লকগুলোর মধ্যে প্রত্যেকটি ব্লকে কি থাকে। সম্পূর্ণ ব্লকচেইনের প্রত্যেকটি সিঙ্গেল ব্লকে মূলত তিনটি জিনিস থাকে- ডেটা, হ্যাশ এবং চেইনে তার আগের ব্লকটির হ্যাশ। অর্থাৎ, ব্লকচেইনের থাকা প্রত্যেকটি ব্লকে থাকে সেই ব্লকটির নিজস্ব ডেটা, ব্লকটির নিজের হ্যাশ এবং ঠিক তার পেছনে যুক্ত থাকা আগের ব্লকটির হ্যাশ। ডেটা বুঝলাম, কিন্তু হ্যাশ জিনিসটি কি? হ্যাশ হচ্ছে মূলত একটি আইডেন্টিফায়ার। প্রত্যেকটি ব্লকের হ্যাশ তার একেবারেই নিজস্ব এবং প্রত্যেকের জন্য নির্দিষ্ট। অর্থাৎ, দুটি ব্লকের হ্যাশ কখনোই একই হতে পারবে না। এই বিষয়টি অনেকটা মানুষের ফিঙ্গারপ্রিন্টের মত। দুটি মানুষের ফিঙ্গারপ্রিন্ট যেমন একই হতে পারবে না কখনোই, তেমনি দুটি ব্লকের হ্যাশও কখনো মিলবে না। আর এই হ্যাশগুলো জেনারেট হয় প্রত্যেকটি ব্লকের স্টোর করা ডেটা অনুযায়ী। যার মানে, একটি ব্লকের ডেটা যদি কোনরকম পরিবর্তন করা হয়, তাহলে ওই ব্লকটির হ্যাশও চেঞ্জ হয়ে যাবে। এবার চিন্তা করে দেখুন, প্রত্যেকটি ব্লক কেন তার আগের ব্লকের হ্যাশও থাকে। প্রত্যেকটি ব্লক যদি তার আগে যুক্ত থাকা হ্যাশটিও রাখে, তাহলে কোন ব্লকের ডেটা কেউ ইচ্ছামত চেঞ্জ করে ফেলতে পারবে না। তাই ব্লকচেইনে ইন্টার করা প্রত্যেকটি ডেটা ডিলিট করা বা চেঞ্জ করা প্রায় অসম্ভব। কারণ, এক্ষেত্রে আপনি যদি একটি ব্লকে থাকা ডেটা চেঞ্জ কর‍তে চান, তাহলে আপনাকে ওই ব্লকটির সাথে তার আগের সবগুলো ব্লকের ডেটা চেঞ্জ করতে হবে, নয়ত সম্পূর্ণ ব্লকচেইনটি ইনভ্যালিড হয়ে যাবে বা কাজ করবে না আর।

ব্লকচেইন

ব্লকচেইন কিভাবে কাজ করে?

এতক্ষনে নিশ্চই বুঝে গিয়েছেন যে ব্লকচেইন টেকনোলজি কিভাবে সিকিউরিটি নিশ্চিত করে। কিন্তু ব্লকচেইন সিকিওর হওয়ার আরেকটি বড় কারণ হচ্ছে, এটির নেটওয়ার্ক ডিসট্রিবিউটেড। ব্লকচেইন মূলত একটি P2P নেটওয়ার্ক তৈরি করে যেখানে ব্লকচেইনের প্রত্যেকটি ব্লকের ডেটা ইন্টারনেটে কানেক্টেড থাকা যেকোনো ব্যাক্তি ব্লকগুলোকে ভেরিফাই করতে পারে। যখন কোন নতুন একজন এই ব্লকচেইন নেটওয়ার্কে রেজিস্টার করে, তখন সে তার সামনের এনবং তার আগের সব ব্লকগুলোর কপি পেয়ে যায় এবং সে প্রত্যেকটি ব্লককে ভেরিফাই করে এবং নিশ্চিত করে যে ব্লকচেইনে থাকা প্রত্যেকটি ডেটা এখনও ঠিক আছে। ব্লকচেইনের প্রত্যেকটি ব্লক যত বেশি বার ভেরিফাই করা হয়, ডেটাগুলো ততই বেশি অপরিবর্তনীয় হয়ে ওঠে। মুলত এভাবেই ব্লকচেইন টেকনোলজি এগিয়ে যেতে থাকে। আমরা সবাই জানি যে বিটকয়েন ট্র্যানজেকশনগুলো ব্লকচেইন টেকনোলজির ওপরে ভিত্তি করে কাজ করে। চলুন দেখা যাক, এটি কিভাবে কাজ করে?

ধরুন, আপনার কাছে ৫ বিটকয়েন আছে এবং আপনি সেখান থেকে ২ বিটকয়েন আমাকে সেন্ড করতে চাচ্ছেন। সেক্ষেত্রে এই অ্যামাউন্টটি আপনার ওয়ালেট থেকে আমার ওয়ালেটে ট্রান্সফার হবে। যখন আপনি আমার ওয়ালেট অ্যাড্রেসে বিটকয়েনটি পাঠিয়ে দেবেন, ঠিক তখন এই লেন-দেনটির সব ডিটেইলস নিয়ে ব্লকচেইনে একটি নতুন ব্লক তৈরি হবে। এই ব্লকটির ডেটা হিসেবে থাকবে সেন্ডার অর্থাৎ আপনার ওয়ালেট অ্যাড্রেস, রিসিভার অর্থাৎ আমার ওয়ালেট অ্যাড্রেস এবং আপনি যতটুকু বিটকয়েন সেন্ড করবেন তার অ্যামাউন্ট। এবার এই নতুন ব্লকটি ব্লকচেইনে কানেক্টেড থাকা সবার সামনে আসবে ভেরিফাই করার জন্য। তারা সবাই যখন এই ব্লকটিকে ভেরিফাই করবেন বা নিশ্চিত করবেন যে সব ঠিক আছে, তখন এই ট্র্যানজেকশন রেকর্ডটি ব্লকচেইনে স্থায়ীভাবে থেকে যাবে এবং ট্র্যানজেকশনটি কমপ্লিট হবে। বিটকয়েনের ক্ষেত্রে এই ব্লক ভেরিফাই করার কাজটি যারা করে থাকে তাদেরকেই বলা হয় বিটকয়েন মাইনার। আর, এই ট্র্যানজেকশনটি প্রোসেস করার জন্য আপনাকে যতটুকু ফি হিসেবে দিতে হবে, তার অধিকাংশই পাবে বিটকয়েন মাইনাররা, যারা তাদের হার্ডওয়্যার ব্যাবহার করে বিটকয়েন মাইনিং করেছেন বা এই ব্লক ভেরিফাই করার কাজটি করেছেন। এবার নিশ্চই কিছুটা পরিষ্কার ধারণা পেয়ছেন যে ব্লকচেইন কিভাবে কাজ করে এবং বিটকয়েন মাইনিং করলে কেনই বা মাইনাররা বিটকয়েন আয় করতে পারেন।

ব্লকচেইন

ক্রিপটোকারেন্সি ফ্যাক্ট : আপনি কি জানেন প্রত্যেকটি বিটকয়েন ট্র্যানজেকশন প্রোসেস হতে সাধারণত মিনিমাম ১০ মিনিট সময় কেন লাগে? এর কারণও এই ব্লকচেইন। বিটকয়েন ট্র্যানজেকশনের ক্ষেত্রে সিকিউরিটির চিন্তা করে প্রত্যেকটি নতুন ব্লক প্রতি ১০ মিনিট পরপর তৈরি করা হয়। তাই আপনি একটি ট্র্যানজেকশন রিকুয়েস্ট করলে ওই ট্র্যানজেকশন নিয়ে নতুন একটি ব্লক তৈরি করতে ১০ মিনিট অপেক্ষা করতে হয়।


আশা করি, সহজভাবে অল্প কথায় বোঝাতে পেরেছি যে ব্লকচেইন কি এবং এটি কিভাবে কাজ করে। আজকের মত এখানেই শেষ করছি। আশা করি আজকের লেখাটি আপনাদের ভালো লেগেছে। কোন ধরনের প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট সেকশনে জানাবেন।


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Image Credit : By phive Via Shutterstock

অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ ছিলো এবং হয়তো সেই আকর্ষণটা আরো সাধারন দশ জনের থেকে একটু বেশি। নোকিয়ার বাটন ফোন থেকে শুরু করে ইনফিনিটি ডিসপ্লের বেজেললেস স্মার্টফোন, সবই আমার প্রিয়। জীবনে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততোটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। আর এই প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ থেকেই লেখালেখির শুরু.....

49 Comments

  1. অরবিন্দ রায় Reply

    চমৎকার ছিল দাদা।
    শীতের মধ্যে আপনার পোস্ট পড়তে পড়তে গরমে ঘেমে গেলাম।
    এরকম উষ্ণ পোস্ট তো চাই। ভালো থাকবেন।

    1. সিয়াম একান্ত Post author Reply

      ধন্যবাদ। আপনিও ভালো থাকবেন। 🙂

      1. Sayed Pappu Reply

        না, মানে আমি ঠিক সেইভাবে বুঝায়নি।
        আমার যেই বিষয় গুলা খুব ভালো লাগে, সেই বিষয় এ আর্টিকেল পাইলে তো ভাল লাগবেই।
        আর ভাললাগা থেকেই তো কমেন্ট করা।????????

  2. Farid k Reply

    Thanks vai. One more request. Plz vai rakhben. MD5 niye huge expalined eta post chai. Kono bd site e nai. Khub dorkar.cilo ar ki. Thanks in advance.

    1. সিয়াম একান্ত Post author Reply

      ধন্যবাদ। আমি তাহমিদ ভাইয়াকে বলেছি। উনি md5 নিয়ে বিস্তারিত লিখবেন শীঘ্রই। 🙂

  3. Billal Reply

    Assalamualaikum bhaiya. Blockchain use kore ki data encrypted korano jabe? Eta kono app naki method? Kon software Blockchain use kore?

    1. সিয়াম একান্ত Post author Reply

      ব্লকচেইন টেকনোলজি বর্তমানে মূলত ক্রিপটোকারেন্সি ট্র্যানজেকশনেই ব্যাবহার করা হয়। ডেটা এনক্রিপ্ট করা যাবে কিনা এই বিষয়ে আমার খুব বেশি আইডিয়া নেই, তবে আমার মনে হয়না শুধুমাত্র ডেটা এনক্রিপ্ট করার জন্য ব্লকচেইন টেকনোলজির কোন দরকার আছে। কিন্তু খুব সম্ভবত P2P ডেটা শেয়ার করার ক্ষেত্রে এটির ব্যাবহার করা হতে পারে ভবিষ্যতে। হ্যাঁ, এটি কোন অ্যাপ নয়। এটিকে একটি মেথডই বলা যায়। ধন্যবাদ। 🙂

  4. Golam sarowaar Reply

    Vai sob bujhlm but bitcoin to digital.ar digital jins copy-paste kora jay. Jodi copy kore rekhe dei seta ki barbarr use korta parbo na? Ashole transaction kivabe kaj kore? Kivabe bujha sombob seta copiedf na original? Plx expalined vai. Thanks.

    1. সিয়াম একান্ত Post author Reply

      কপি পেস্টের ব্যাপারটা আমি নিজেই বুঝলাম না। আমার জানামতে কপি করা সম্ভব শুধুমাত্র কোন টেক্সট বা কোন ইমেজ বা কোন ফাইল/ফোল্ডার। কিন্তু বিটকয়েন বা ক্রিপটোকারেন্সি তো এই ধরনের কোন টেক্সট বা কপি করা যায় এমন কোন ফাইল না। এটা জাস্ট একটি ডিজিটাল কারেন্সি যেটি আপনার ওয়ালেটে থাকলে আপনি অন্য কাউকে দিতে পারবেন বা অন্য কেউ আপনাকে দিতে পারবে। বিষয়টা অনেকটা পেপাল ব্যাবহার করে কাউকে টাকা পাঠানোর মত। আপনি কি পেপাল থেকে কাউকে ডলার কপি-পেস্ট করে পাঠাতে পারেন? অবশ্যই না। বিষয়টা অনেকটা একই রকম। আশা করি বোঝাতে পেরেছি। 🙂

      1. Golam sarowaar Reply

        reply dewar jonno thanks vai. apni bolcen and amrao jani bitcoin digital currency. mane 0101 er somonnoyy.. tai oy ki? but doller to digital currency noy seta to copy paste hobei na. apni online e dollaer transaction koren mane to original doller transaction koren na. koren just ekta number, mane (some amount no only) but bitcoin er stracture 1010 diye. jevabe jekono digital photo ba digital music file folder iddadi hoye thake. bitcoin same vabe digital encrypted code just. tahole seta ke to copy paste kora jete pare, tai na? digital bolte to tai bujhano hoy.?? amar prosno cilo kivabe setake rokkha kora hoy? ami tahmid vaiyer digital vs analog article thekei digital somporke jeneci. ektu clear korle valo hoy. asole onek prosno mone ghurpak khacce. thanks again vai.

        1. সিয়াম একান্ত Post author Reply

          আমি বুঝেছি আপনি কি বলতে চেয়েছেন। হ্যাঁ, বিটকয়েন যেহেতু ডিজিটাল কারেন্সি তাহলে অবশ্যই এটি বাইনারি ডিজিট অর্থাৎ ০ এবং ১ এর উপর ভিত্তি করে তৈরি। কিন্তু আপনি সাধারনভাবেই ভেবে দেখুন, আপনি যদি কোন টেক্সট বা ফাইল আপনি কপি করতে চান, তাহলে টেক্সট বা ফাইলটি কিন্তু আগে থেকেই আপনার কাছে থাকতে হবে। ফাইলটির অ্যাক্সেস না পেলে কিন্তু আপনি কপি-পেস্টও করতে পারবেন না ফাইলটি। কিন্তু, বিটকয়েন যদি আপনার ওয়ালেটে থাকে, তার মানে কিন্তু আপনি ওই বিটকয়েনটির পেছনের সকল কোডস বা বাইনারি ডিজিটস পেয়ে যাচ্ছেন না। বিটকয়েন এর ওই পরিমাণ অ্যামাউন্টটি আপনার ওয়ালেটে থাকছে, কিন্তু বিটকয়েনটি আপনি অন্য কারও ওয়ালেটে পাঠানো ছাড়া আর কিছুই করতে পারছেন না। বিটকয়েনটি আপনি শুধুমাত্র দেখতে পাচ্ছেন আপনার ওয়ালেটে। দেখতে পাচ্ছেন বললেও ভুল হবে। কারণ, আপনি শুধুমাত্র আপনার কাছে কত পরিমাণ বিটকয়েন আছে টা দেখতে পারছেন। কিন্তু পৃথিবীর কোন বিটকয়েন ওয়ালেটই আপনাকে ওয়ালেটের ভেতরের কোডস বা স্ক্রিপ্ট যাই বলেন, এই ধরনের কোনকিছুরই অ্যাক্সেস দেবে না। তাই ওয়ালেটের ভেতরের কোন কিছু নিজের ইচ্ছামত পরিবর্তন করা বা ওয়ালেটের ভেতরের কোন কোড কপি করে অন্য কোন ওয়ালেটে পেস্ট করা এই ধরনের কোনকিছুই করা সম্ভব হবেনা, আমি যতদূর জানি। ধন্যবাদ। ????

          1. Golam sarowaar

            Thanks again 4 da reply.
            Tahole wallet company r kase to obossoi code thake.mane originally format. Tara to copy paste korte pare. Or tader kaceo keu copy dite pare. Coin original kina kivabe verify kore,?

  5. Shohel Rana Reply

    দারুন লিখেছেন। ব্লকচেইন নিয়ে বেসিক ধারনাটা পরিষ্কার হল আপনার আর্টিকেল পড়ে। ধন্যবাদ।

  6. joy Reply

    বিটকয়েন মাইনিং সম্পর্কে জানতে চাই ,যদি কোন আরটিক্যাল থাকে তবে লিংক দিলে খুশি হবো ।

    আমি যতটুকু বুঝি ডেটা ষ্টোর করতে হার্ডডিক্স এর প্রয়োজন হয়,যখন কোন নতুন ইনফরমেশন কোন একটি ব্লকে যায় এবং সেখানে জমা হয়,নিশ্চয় সেই ব্লক টির হার্ডডিক্সে জমা হয়,যদি তাই হয় প্রতিদিন অসংখ্য ডেটা একটা সিঙ্গেল ব্লকে জমা হয় ,সেই হিসেবে একটা ব্লকে হার্ডডিক্সের বিট/বাইট সংখ্যা বাড়াতে হবে ,এই কাজ টি কারা করে ? নাকি প্রতিদিনের / প্রতিক্ষনের তথ্য নিয়ে একটি নতুন ব্লক তৈরি হয় ?

  7. Bishu Reply

    Bro, amk ekjon lira coin e invest korar jno bolce but ami bujte parcina kora ucit hobe naki, kindly ektu suggestion korbeb plz

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *