বর্তমান তারিখ:19 October, 2019

টি১ এবং টি৩ লাইন কি? হাই-স্পীড বিজনেস নেটওয়ার্কিং সলিউশন!

টি১ এবং টি৩ লাইন কি? হাই-স্পীড বিজনেস নেটওয়ার্কিং সলিউশন!

নেটওয়ার্কিং, কম্পিউটিং, গেমিং, ইন্টারনেট — এই আমাদের আজকের মডার্ন লাইফ। হোম নেটওয়ার্কিং এর জন্য বর্তমানে রয়েছে অনেক সলিউশন, আপনি ওয়্যার বা ওয়্যারলেস যেকোনো কমিউনিকেশন সিস্টেম ব্যবহার করতে পারেন, কিন্তু আপনার আইএসপি বা বড় বড় বিজনেস ক্ষেত্রে কোন টাইপ নেটওয়ার্কিং সলিউশন ব্যবহৃত হয়? আপনার হয়তো কয়েক মেগাবিট/সেকেন্ড কানেকশন দিয়েই কাজ শেষ হয়ে যায়, কিন্তু চিন্তা করে দেখুন বড় বড় কোম্পানি বা আইএসপি‘দের কথা যারা হিউজ অ্যামাউন্ড ডাটা ট্র্যান্সফার করে, লাখো কাস্টমাদের হয়তো ব্যান্ডউইথ স্যাপ্লাই করতে হয়, তারা কোন টাইপের লাইন ব্যবহার করে? তো যখনই কথা উঠে, বিজনেস নেটওয়ার্কিং সলিউশন নিয়ে, তখনোই চলে আসে টি১ লাইন এবং টি৩ লাইন এর প্রসঙ্গ, যেটাকে বিজনেস ক্লাস ইন্টারনেট সার্ভিস বলা হয়। এই আর্টিকেল থেকে হাই-স্পীড বিজনেস নেটওয়ার্কিং সলিউশন সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো!

টি১ এবং টি৩ লাইন

নর্মাল ফোন কোম্পানি এখনো পুরাতন কপার তার ব্যবহার করে আপনার বাসা থেকে কল ডেলিভারি করে থাকে, পূর্বে তারা অ্যানালগ সিগন্যাল ব্যবহার করে কাজ করতো, কিন্তু বর্তমানে সবকিছু ডিজিটাল প্রযুক্তির সাথে রিপ্লেস হয়ে গেছে। এখন আইএসপি বা টেলিফোন কোম্পানি বিশেষ করে ফাইবার অপটিক ক্যাবল ব্যবহার করে—আসলে টি১ এবং টি৩ হচ্ছে একটি কমিউনিকেশন টাইপ, যেটা কপার ক্যাবল বা অপটিক্যাল ফাইবার দুইটির মাধ্যমেই ট্র্যান্সমিট করানো যায়। টি১ লাইন বিশেষ করে বিজনেস এবং হোম নেটওয়ার্কিং উভয় ক্ষেত্রেই ব্যবহৃত হয়, আর শুধু ইন্টারনেট সাথে সাথে আরো অনেক টাইপের কমিউনিকেশন ট্র্যান্সমিট করা যায়। আপনার বাড়ির সাধারণ ডিএসএল বা ইথারনেট ব্রডব্যান্ড কানেকশনের সাথে টি১ লাইনকে তুলনা করতে পারেন, কিন্তু এই ছোট বিজনেস বা হোমে ব্যবহৃত না হয়ে, বড় বিজনেসের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

টি১ এবং টি৩ লাইন

টি১ লাইনে আসলে ভয়েজ বা ডাটা অনেক সেপারেট চ্যানেল ব্যবহার করে ট্র্যান্সমিট করানো যেতে পারে, যেটার কানেকশন স্পীড আমাদের সাধারণ ইন্টারনেট কানেকশন স্পীড থেকে অনেক দ্রুত এবং বেশি দক্ষ হয়ে থাকে। টি১ লাইন টি৩ লাইন থেকে সস্তা হয়ে থাকে, তাই টি১ লাইনকে স্ট্যান্ডার্ড কমিউনিকেশন টাইপ বলতে পারেন।

অপরদিকে, টি৩ লাইন সুপার ফাস্ট ক্রেজি টাইপ স্পীড দেওয়ার জন্য সুখ্যাত, টি৩ লাইনকে ডিএস৩ (ডিজিটাল সিগন্যাল ৩) লাইনও বলা হয়। এই টাইপ লাইন বিশাল নেটওয়ার্ক এবং যেখানে হাই ব্যান্ডউইথ ট্র্যান্সফার প্রয়োজনীয় হয়, সেখানে ব্যবহৃত হয় থাকে। টি৩ লাইন মোটেও হোম বা ছোট বিজনেসের জন্য নয়, কেনোনা এটি ইন্সটল করতে অনেক খরচ পড়তে পারে। আসলে একসাথে অনেক গুলো টি১ লাইনকে একত্রে জুড়ে হাই স্পীড টি৩ লাইন তৈরি করা হয়, যেটা হাই ব্যান্ডউইথ সাপোর্ট করতে সক্ষম। এটি হাই প্রফেশনাল গ্রেডের সুপার ফাস্ট ইন্টারনেট কানেকশন এবং ভয়েস ট্র্যান্সমিট করতে সক্ষম। বিশেষ করে বড় বিজনেস আর যাদের বিজনেস ক্রমেই বেড়ে চলেছে, টি৩ লাইন তাদের জন্য একেবারে পারফেক্ট সলিউশন। যদিও টি১ লাইন থেকে টি৩ অনেক দামী, কিন্তু ব্যান্ডউইথ হ্যান্ডেল করার ক্ষমতার দিকে দেখতে গেলে অবশ্যই এই দামের কারণ রয়েছে।

টি-ক্যারিয়ার এবং ই-ক্যারিয়ার

১৯৬০ সালের দিকে প্রথম এটিঅ্যান্ডটি টি১, টি৩ টাইপ কানেকশন উন্নতি করে। এটিঅ্যান্ডটি টি-ক্যারিয়ার নামের একটি সিস্টেম উন্নতি করে পৃথক চ্যানেল গুলোকে একত্রিত করে একটি বড় ইউনিট তৈরি করে। যেমন উদাহরণ স্বরূপঃ একটি টি২ লাইনে ৪টি ট১ লাইন একত্রে পেঁচিয়ে তৈরি করা হয় এবং অনুরুপ ভাবে ২৮টি টি১ লাইন একত্রিত করে টি৩ লাইন তৈরি করা হয়। আবার টি৪ এবং টি৫ লাইন ও রয়েছে, যেখানে পর্যায়ক্রমে ১৬৮ এবং ২৫০টি টি১ লাইন দ্বারা তৈরি করা হয়েছে। নিচের ছকটি থেকে আরো পরিষ্কার এবং গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গুলো পেতে পাড়বেন।

NameCapacity (maximum data rate)T1 multiples
T11.544 Mbps1
T26.312 Mbps4
T344.736 Mbps28
T4274.176 Mbps168
T5400.352 Mbps250

অনেকে টি১ কে ডিএস১, বা টি২ কে ডিএস২ এর সাথে রেফার করে, কিন্তু এই দুই ক্ষেত্রেই পরিমাপ এবং একই স্ট্যান্ডার্ড ব্যবহার করা হয়। অ্যামেরিকাতে বিশেষ করে টি-ক্যারিয়ার সিস্টেম ব্যবহৃত হয়ে থাকে, যেখানে ইউরোপের দেশ গুলোতে ই-ক্যারিয়ার স্ট্যান্ডার্ড ব্যবহৃত হয়, যেটা অনেকটা টি-ক্যারিয়ার এর মতোই কিন্তু একই কনসেপ্ট হলেও সিগন্যাল লেভেল আলাদা হয়ে থাকে, ই-ক্যারিয়ারে ই০ থেকে শুরু করে ই৫ পর্যন্ত লেভেল রয়েছে।

কিছু ইন্টারনেট সার্ভিস প্রভাইডার টি-ক্যারিয়ার কানেকশন ব্যবহার করে বিজনেসের জন্য ডেডিকেটেড ইন্টারনেট লাইন স্যাপ্লাই করে থাকে। তাছাড়া অনেক বড় বড় বিজনেসের ক্ষেত্রে লিজড লাইন ব্যবহৃত হয়ে থাকে, আবার টি৩ লাইনও ব্যবহার করে, যদিও এগুলো অনেক বেশি খরচের, কিন্তু তাদের বিশাল পরিমানে ডাটা বা ভয়েস ব্যান্ডউইথ কন্ট্রোল করার জন্য আদর্শ। খুব শীঘ্রই আমি লিজড লাইন নিয়ে বিস্তারিত একটি আর্টিকেল পাবলিশ করতে চলেছি, আর যেখানে প্রতিবারের মতোই অনেক তথ্য জানতে পাড়বেন।


পূর্বের ছোট বিজনেস এবং হোটেল বা এপার্টমেন্ট বিল্ডিং গুলো টি১ লাইনের উপর নির্ভরশীল ছিল, কিন্তু বর্তমানে ডিএসএল এসে প্রাইমারী কানেকশন সিস্টেম রিপ্লেস করে দিয়েছে। পার্সোনাল ইউজের জন্য টি১ বা টি৩ লাইন কখনোই আদর্শ নয়, কেনোনা এর খরচটা অনেক বেশি আর এই জন্যই একে বিজনেস নেটওয়ার্কিং সলিউশন বলা হয়। তবে চিন্তার কোন কারন নেই, বর্তমানে হোম নেটওয়ার্কিং এর জন্য অনেক ফাস্ট সিস্টেম রয়েছে, যেগুলো যথেষ্ট পরিমানে ব্যান্ডউইথ সাপোর্ট করতে সক্ষম।

বিশেষ করে সেলফোন নেটওয়ার্ক বা ওয়াইম্যাক্স ইন্টারনেট প্রভাইড করার ক্ষেত্রে, আইএসপি’রা টি৩ কানেকশন তাদের স্টেশন টাওয়ারে লাগিয়ে রাখে এবং সেখান থেকেই ইন্টারনেট গোটা এলাকা বা শহরে প্রভাইড করে। যাই হোক, আশা করছি আর্টিকেলটি আপনার জন্য অনেক উপকারি ছিল এবং আপনি হাই-স্পীড বিজনেস নেটওয়ার্কিং সলিউশন সিস্টেম সম্পর্কে বিস্তারিত জানলেন। নেটওয়ার্কিং নিয়ে আরো অসংখ্য আর্টিকেল আসতে চলেছে, সেখানে আরো অসাধারণ জ্ঞান খুঁজে পাবেন আশা করছি। এই আর্টিকেল সম্পর্কে যেকোনো প্রশ্নে আমাকে নিচে কমেন্ট করতে পারেন।


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

ইমেজ ক্রেডিটঃ By amophoto_au Via Shutterstock | Pexels.com

প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।

7 Comments

    1. তাহমিদ বোরহান Post author Reply

      এভারেজ কাজের জন্য ৫ মেগাবিট/সেকেন্ড প্রয়োজনীয়। ব্যাট ১০-১৫ মেগাবিটের উপর আর লাগবে না। যদি ডাউনলোড করতে চান অনেক বড় বড় ফাইল সেক্ষেত্রে যতোবেশি স্পীড ততোবেশি ভালো হয়।

  1. তুলিন Reply

    অসংখ্য ধন্যবাদ ভাই। এই প্রশ্ন মনের মধ্যে অনেক আগে থেকে ঘণ্টা নাড়া দিচ্ছিল!!!! আজ উত্তর পেলাম!!!

  2. Salam Ratul Reply

    অসাধারণ ভালো লাগলো আর্টিকেলটি। মজার তথ্য জানতে পারলাম। ধন্যবাদ ভাইয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *