বর্তমান তারিখ:17 August, 2019

আইপি অ্যাড্রেস কি? | আইপিভি৪ (IPv4) ও আইপিভি৬ (IPv6)

আইপি অ্যাড্রেস

আপনারা সকল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা আইপি অ্যাড্রেস এর সম্পর্কে নিশ্চয় শুনেছেন। কিন্তু আপনি কি জানেন, আইপি অ্যাড্রেস কি? এর প্রয়োজনীয়তা কি? এর আলাদা আলদা প্রকারভেদ গুলো কি কি? এই পোস্টে এসকল বিষয় নিয়ে আজ বিস্তারিত আলোচনা করতে চলেছি। তো চলুন আর কথা না বাড়িয়ে এইসব মজাদার বিষয় নিয়ে তাড়াতাড়ি আলোচনা শুরু করা যাক।

আরো জানুন

আইপি (IP) অ্যাড্রেস কি?

আইপি অ্যাড্রেস কি?

বন্ধুরা ভেবে দেখুন তো ইন্টারনেটে আমরা সবাই কি করি? আমরা সবাই ইন্টারনেটে বিভিন্ন তথ্য আদান প্রদান করি। আপনি হয়তো আপনার ফোন ব্যবহার করে বা আপনার ল্যাপটপ বা পিসি ব্যবহার করে এই ব্লগটি পড়ছেন। কিন্তু এই ব্লগের তথ্য গুলো আসছে কোথা থেকে? এই তথ্য গুলো আসছে কোন এক দেশে অবস্থিত সার্ভার থেকে। এবং আপনি আপনার ফোন দিয়ে সেই সার্ভার থেকে তথ্য গুলো লোড করে স্ক্রীনে দেখতে পাচ্ছেন। অথবা আপনি যখন কোন ইউটিউব ভিডিও দেখেন বা কোন ওয়েবসাইট দেখেন তখন তা বিভিন্ন সার্ভার থেকে তথ্য গুলোর সাথে সম্পৃক্ত হয়ে থাকেন। আপনার কাছে যখন কোন ইমেইল আসে বা আপনি যখন কোন ইমেইল কোথাও পাঠিয়ে থাকেন তখনও আপনি ইন্টারনেটের মাধ্যমে তথ্যের আদান প্রদান করে থাকেন। তো এভাবেই আমরা ইন্টারনেটে যে কার্যকলাপই সম্পূর্ণ করে থাকি না কেন তা আসলে হলো তথ্যের আদান এবং প্রদান।

আগের যুগে যেমন ডাক এবং চিঠির মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন তথ্যকে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় পাঠিয়ে দিতাম, ঠিক আজকের যুগেও একই জিনিষ আমরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে করে থাকি। এখন মনে করুন আপনার কাছে আমি একটি চিঠি পাঠাতে চাচ্ছি, তবে আমাকে কি করতে হবে? আপনার বাসার অবশ্যই একটি ঠিকানা আছে, এবং তারপর আপনার পাড়ার নাম, আপনার এলাকার নাম, আপনার থানা, আপনার পোস্ট অফিস, আপনার জেলা ইত্যাদি সব ঠিকানা উল্লেখ্য করে আপনাকে ডাক যোগে কোন তথ্য প্রেরন করা সম্ভব। ঠিক একই ভাবে আপনার আমার সবার এক একটি করে বাসার অ্যাড্রেস রয়েছে। আলদা জায়গা এবং আলাদা দেশ ভিত্তিতে অবশ্যই এই অ্যাড্রেস এর ধরণ আলাদা আলদা। কিন্তু যেহেতু ইন্টারনেট পুরো দুনিয়ার মানুষ ব্যবহার করে এবং পুরো দুনিয়ার মানুষ তাদের তথ্য এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় গ্রহন এবং প্রেরন করে তাই ইন্টারনেটে তথ্য আদান প্রদান করার জন্য একটি নির্দিষ্ট ঠিকানা বা অ্যাড্রেস এর প্রয়োজন পড়ে। আর এই নির্দিষ্ট অ্যাড্রেসটিই হলো আইপি অ্যাড্রেস। আইপি অ্যাড্রেস (IP Address) এর পুরো নাম হলো “ইন্টারনেট প্রোটোকল অ্যাড্রেস” (Internet Protocol Address)। প্রোটোকল মানে হলো একটি নির্দিষ্ট নিয়ম অর্থাৎ এটি একটি নির্দিষ্ট ফরম্যাটে হবে, এটি সবার কাছে আলাদা আলদা করে থাকবে এবং এটি সবাই ব্যবহার করবেন একে অপরের সাথে সম্পর্ক স্থাপনের জন্য।

আইপি অ্যাড্রেস এর প্রকারভেদ | আইপিভি৪ (IPv4) ও আইপিভি৬ (IPv6)

আইপিভি৪ (IPv4) ও আইপিভি৬ (IPv6)

একটি সাধারন আইপি অ্যাড্রেসের ভেতর চারটি সেকশন থাকে। এবং এর প্রত্যেকটি সেকশনে জিরো থেকে শুরু করে 255 পর্যন্ত লিমিট থাকে। এটি একটি ৩২ বিট নির্ভর অ্যাড্রেসিং সিস্টেম। এই অ্যাড্রেসের একটি উদাহারন হলো “202.18.32.103”। এটি প্রত্যেকের জন্য একটি করে ইউনিক অ্যাড্রেস থাকে। এবং এই সাধারন অ্যাড্রেসকে বলা হয় আইপিভি৪ (IPv4) অ্যাড্রেস। অর্থাৎ এটি ইন্টারনেট প্রোটোকল অ্যাড্রেসের চতুর্থ নাম্বার সংস্করণ। কিন্তু এই আইপিভি৪ রে কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে। আর তা হলো এই আইপিভি৪ কেবল মাত্র চার বিলিয়ন ইউনিক আইপি জেনারেট করতে পারে [আইপিভি৪ অ্যাড্রেস লিমিট “৪,২৯৪,৯৬৭,২৯৬]। আপনি যদি চার বিলিয়নের বেশি অ্যাড্রেস তৈরি করতে চান তবে আমার তা প্রথম থেকে জেনারেট হওয়া শুরু হয়ে যাবে। কিন্তু এখানে বিষয় হলো ইউনিক অ্যাড্রেসের, কেনোনা প্রত্যেক জনের কাছে অবশ্যই আলদা আলদা অ্যাড্রেস থাকতে হবে। হয়তো যখন প্রথমবার এই আইপিভি৪ সিস্টেম বানানো হয়েছিলো তখন হয়তো এটা ধারনায় করা হয়নি যে বিশ্বে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী এতোটা বেড়ে যাবে, বা এক এক ব্যাক্তির কাছে ৩-৪ টা ডিভাইজ থাকবে। তো সম্ভবত তারা ধারণা করতে পারেন নি যে, ঠিক আমাদের কত গুলো আইপি অ্যাড্রেসের প্রয়োজন পড়বে ভবিষ্যতে। আজকের দিনে আইপিভি৪ অ্যাড্রেস লিমিট চার বিলিয়ন যা একদম শেষ হয়ে গিয়েছে। এবং আমাদের কাছে নতুন অ্যাড্রেস একদমই নেই।

আর এজন্যই আমরা এক নতুন সিস্টেম উন্নতিকরণ করেছি, যার নাম হলো আইপিভি৬ (IPv6)। এটি ১২৮ বিট এর একটি অ্যাড্রেসিং সিস্টেম। এর একটি উদাহরণ হলোঃ “3ffe:1900:4545:3:200:f8ff:fe21:67cf”। এবং এই অ্যাড্রেসিং সিস্টেমের সাহায্যে আমরা মোটামুটি অগন্তি আলদা আলদা অ্যাড্রেস জেনারেট করতে পারবো [আমার গোনার ক্ষমতা নাই, তাই অগন্তি 😛 ]। আইপিভি৬ দিয়ে “৩৪০,২৮২,৩৬৬,৯২০,৯৩৮,৪৬৩,৪৬৩,৩৭৪,৬০৭,৪৩১,৭৬৮,২১১,৪৫৬” টি ইউনিক অ্যাড্রেস জেনারেট করা সম্ভব। অর্থাৎ চিন্তা করতে পারছেন, এই সিস্টেমের মাধ্যমে প্রত্যেকটি মানুষের কাছে যদি কয়েক লাখ ডিভাইজও থাকে তবেও ইউনিক অ্যাড্রেস ব্যবহার করে শেষ করা সম্ভব হবে না। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো আজকের দিনেও আমরা আইপিভি৬ ব্যবহার করি না, আমরা শুধু মাত্র আইপিভি৪ ব্যবহার করে থাকি। কেনোনা আইপিভি৬ ব্যবহার করার জন্য আপনার ইন্টারনেট সার্ভিস প্রভাইডার, আপনার মোডেম বা রাউটার এবং ওয়েবসাইট হোস্টিং সার্ভার গুলোকেও একসাথে আইপিভি৬ ব্যবহার করার প্রয়োজনীয়তা পড়ে। এবং আমরা আজ পর্যন্ত আইপিভি৬ ব্যবহার করি না।

পুরো দুনিয়াতে ১% এর ও কম আইপিভি৬ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তাছাড়া আমরা সবাই আইপিভি৪ ব্যবহার করে থাকি। আপনার জ্ঞানের জন্য বলে রাখি, আইপিভি৬ যে শুধু একটি আলাদা অ্যাড্রেসিং ফরম্যাট তা কিন্তু নয়। আপনার ডাটার যে প্যাকেট গুলো থাকে এবং আপনার ডাটা গুলো যে ফরম্যাটে থাকে, যে হেডার ফরম্যাট থাকে, প্যাকেটের যে সাইজ থাকে সেগুলোও আইপিভি৪ এর তুলনায় আইপিভি৬ এ বেশি দক্ষ হয়। এবং আপনার ইন্টারনেট পারফর্মেন্স বাড়াতেও আইপিভি৬ সাহায্য করে থাকে। এখন এটা দেখার বিষয় যে ঠিক কবে থেকে আমরা এই অ্যাড্রেসিং সিস্টেম অর্থাৎ আইপিভি৬ ব্যবহার করা শুরু করি।

আইপিভি৪ এর লিমিট যখন শেষ হয়েই গেছে, তো আজকের দিনে নতুন ডিভাইজ গুলোতে কীভাবে এটি ব্যবহার করা হয়?

ইথারনেট

আমি জানি, আমি যখনই বলেছি যে আইপিভি৪ লিমিট মাত্র চার বিলিয়ন পর্যন্ত এবং আমরা আজ পর্যন্ত সকল আইপিভি৪ অ্যাড্রেস শেষ করে ফেলেছি ঠিক তখন থেকেই হয়তো আপনার মনে প্রশ্ন জেগেছে যে, তাহলে যারা নতুন মোবাইল কেনে বা নতুন কম্পিউটার কিনছে তারা কীভাবে তাদের জন্য নতুন আইপি অ্যাড্রেস জেনারেট করছে? কেনোনা লিস্ট তো শেষ হয়ে গিয়েছে।

তো এই সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা একটি টেকনিক তৈরি করেছি যার নাম হলো এনএটি (NAT) অর্থাৎ নেটওয়ার্ক অ্যাড্রেস ট্র্যান্সলেসন (Network Address Translation)। বন্ধুরা, আপনার ঘরের যতো গুলো ডিভাইজ আপনার ল্যাপটপ বা মোবাইল বা টিভি যে রাউটারের সাথে সংযুক্ত আছে তার আইপি অ্যাড্রেস কিছুটা এই রকম, যেমন আপনার মোবাইলের আইপি 192.168.0.20 বা আপনার ল্যাপটপের অ্যাড্রেস 192.168.0.25 অথবা আপনার টিভির অ্যাড্রেস 192.168.1.40। তো এই 192.168 থেকে শুরু করে যতো গুলো অ্যাড্রেস থাকে এগুলো আপনার লোকাল অ্যাড্রেস, যেগুলো আপনার রাউটার বা মোডেম আপনার ডিভাইজ গুলোকে দিয়ে থাকে। কিন্তু যেটি এক্সটারনাল অ্যাড্রেস হয় সেটি কিন্তু একটিই হয়। বিষয়টি সহজ আরো সহজ করে বোঝার জন্য মনে করুন আপনি রাউটারে কানেক্ট থাকা একটি ফোন থেকে কোন ওয়েবসাইট এর জন্য রিকুয়েস্ট করলেন এবং একই রাউটারে থাকা একটি ল্যাপটপ থেকে ইউটিউব ভিডিও রিকুয়েস্ট করলেন, তো সেই রিকুয়েস্ট গুলো কিন্তু ওয়েব সার্ভার গুলোর কাছে একই অ্যাড্রেস থেকেই যাবে এবং আপনার রাউটারটি জানে যে ঠিক কোন ডিভাইজ থেকে এই রিকুয়েস্ট গুলো করা হয়েছিলো এবং সে অনুসারে আপনার রাউটার ওয়েব সার্ভার থেকে প্রাপ্ত ডাটা গুলো সে সে ডিভাইজে প্রদান করে দেয়। তো এই এনএটি সিস্টেম এক আইপি অ্যাড্রেসের পেছনে অনেক গুলো অ্যাড্রেস লুকিয়ে রাখে এবং আমরা সেই চার বিলিয়ন অ্যাড্রেসেই আজ পর্যন্ত কাজ চালিয়ে আসছি।

আইপি অ্যাড্রেস নিয়ে আরো কিছু বিষয়

আপনার ডিভাইজটির আইপি অ্যাড্রেস কি তা যদি চেক করতে চান তবে সাধারন ভাবে গুগলে প্রবেশ করুন এবং সার্চ বারে গিয়ে টাইপ করুন “What is my IP”। ব্যাস, সার্চ রেজাল্টে আপনি আপনার অ্যাড্রেস দেখতে পেয়ে যাবেন। আবার কিছু লোক আছে যারা তাদের আসল অ্যাড্রেস পরিবর্তন করে ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকেন, এবং চিন্তা করেন যে আর কেউ তাদের ট্রেস করতে পারবে না। আসলে এটি ভুল ধারণা, আপনি যে অ্যাড্রেস পরিবর্তন করেই ইন্টারনেট ব্যবহার করুন না কেন আপনাকে তারপরেও ট্রেস করা সম্ভব। তাই অ্যাড্রেস পরিবর্তন কোন প্রকার অসৎ কাজ করার চিন্তা একদমই ভুলে যান। এবং সেটিই আপনার জন্য ভালো হবে।

শেষ কথা


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

এতোক্ষণে নিশ্চয় আপনি আইপি অ্যাড্রেসের সকল বিষয় সম্পর্কে অবগত হয়েছেন। জেনেছেন এটি কি, কীভাবে কাজ করে, কেনই বা প্রয়োজনীয় এবং কি এর প্রকারভেদ। এই বিষয় নিয়ে যদি আপনার আরো কোন প্রশ্ন থাকে তবে অবশ্যই আমাকে কমেন্ট করে জানাবেন এবং তার সাথে এই পোস্টটি শেয়ার তো অবশ্যই করবেনই।

প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।

28 Comments

  1. ইমদাদুল ইসলাম Reply

    এরকম আরো বেশি বেশি পোস্ট চাই ভাই……
    এসব বিষয় তো জানতামই না রে ভাই… কি বলে যে ধন্যবাদ দেয় আপনাকে… আপনি সত্যিই বস।

  2. Anirban Dutta Reply

    Sotti bhai Osadharon Post. Ami Hardware Network er student chilam, amader class eo eto sohoj kore bojhano hoto na. WoW!!

  3. লিটন বাবু Reply

    Techubs মানেই হলো কোয়ালিটি!
    ধন্যবাদ আপনাকে, প্রজুক্তিকে এত সহজ করে দেওয়ার জন্য।

  4. হারুন Reply

    অসাধারন পোস্ট। আচ্ছা আমি আমার ফোনে আইপিভি৬ ব্যাবহার করতে চাই। কিভাবে করব? আর এটা ব্যাবহার করলে কি আমার নেট স্পিড ব্রিদ্ধি পাবে? জানাবেন দয়াকরে?

    1. তাহমিদ বোরহান Post author Reply

      প্রথমেই কমেন্ট করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে নিচ্ছি।
      ফোনে আইপিভি৬ ব্যাবহার করতে চাইলে আপনার আইএসপি কেও আইপিভি৬ সমর্থন করতে হবে এবং আপনার ভিসিট করা ওয়েব সার্ভারকেও আইপিভি৬ ব্যবহার করতে হবে, তবেই পরিপূর্ণভাবে আইপিভি৬ ব্যবহার করতে পারবেন।

  5. Apon Reply

    IPv6 bole je ekta jinis ace ta jantam onek age theke
    Agee jokhon nokia java set a menual internet config kortam sekhane dekhecilam prothom ei IPv6.
    Kintu aj apnr iccai ipv6 niye bistarito janlam

    dhonnobad apnake

  6. Jahangir sardar Reply

    আমি যখনি মোবাইলের নেট কানেকশান বন্ধ করে আবার চালু করে google এ সার্চ করি তখন তখন IP change হয়ে যায় । আপনি যে বললেন IP নির্দিষ্ট । তাহলে পরিবর্তন হয় কেন । একটু বুঝিয়ে বলবেন ।

    1. তাহমিদ বোরহান Post author Reply

      আইপি দুই ধরনের হয়ে থাকে, পরিবর্তনশীল আইপি এবং অপরিবর্তনশীল আইপি। মোবাইল অপারেটররা পরিবর্তনশীল আইপি ব্যবহার করে। ইউনিক আইপি বা পরিবর্তনশীল আইপির দাম বেশি হয়ে থাকে; অনেক ব্রডব্যান্ড কোম্পানি ইউনিক আইপি প্রদান করে। ব্যাট বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পরিবর্তনশীল আইপি দেওয়া হয়।
      তবে কোন ইউজারকে কখন কোন আইপি দেওয়া হয় সেটার লগ থাকে।

  7. সাদি Reply

    পরিবর্তনশীল আর অপরিবর্তনশীল আইপি এর সুবিধা অসুবিধা কি ভাইয়া?

  8. SAKIER MAHMUD Reply

    আমার ব্রড নেই । আমি অন্য আরেক জনের আইপি৪,৬ জানি । আমি তার রাউটার রেন্জ এ নেই । আমি কি তার রাউটার ব্যবহার করতে পারব? আইপি দিয়ে?

  9. ripon Reply

    ভাল লাগলো ভাই পোস্ট টি পরে।তার পরেও ছোট এক টি প্রশ্ন ঃযদি আমার মোবাইল এ ip4&ip6 দুইটাই এক সাথে চালাই কোন সমস্যা হবে নাকি নেটওয়ার্কিং এ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *