আপনার পুরাতন উইন্ডোজ ল্যাপটপ কে ক্রোমবুক বানিয়ে ফেলুন! (কমপ্লিট সেটআপ গাইড)

ক্রোমবুক সম্পর্কে যারা জানেন না, তাদের বলে রাখি; এটি গুগলের সস্তা একটি ল্যাপটপ যেটা গুগল ক্রোম অপারেটিং সিস্টেমের উপর চলে। আজকের দিনে আমাদের অনেকের কম্পিউটিং চাহিদা শুধু একটি ইন্টারনেট ব্রাউজারই মিটিয়ে দেয়। যদি বলি আবার নিজের কথা, তো কম্পিউটার অন করেই ব্যাস গুগল ক্রোম ব্রাউজার ওপেন করে ফেলি আর ব্লগিং শুরু করে দেয়, আর কিছুর দরকারই পড়ে না বেশিরভাগ সময়। তো আপনিও যদি এমন কোন ইউজার হোন, কম্পিউটার শুধু ইন্টারনেট, লেখালেখি, আর কিছু বেসিক অ্যাপ্লিকেশনের জন্য ব্যবহার করেন তো বেশি টাকা খরচ করে উইন্ডোজ ল্যাপটপ কেনার কোনই প্রয়োজন নেই। ক্রোমবুক গুলো কিন্তু খুব হাই কনফিগার কম্পিউটার হয় না, ক্রোম অপারেটিং সিস্টেম যেকোনো নর্মাল বা পুরাতন কম্পিউটার গুলোতেও আরামে চলতে পারে। তাহলে আপনার পুরাতন উইন্ডোজ ল্যাপটপ কে পরিনত করলে কেমন হয়?

এই আর্টিকেলে আমি এই বিষয় নিয়েই আলোচনা করবো; কিভাবে আপনার পুরাতন ল্যাপটপ বা যেকোনো কম্পিউটার’কে ক্রোমবুকে পরিনত করবেন। তো শুরু করা যাক!

উইন্ডোজ ল্যাপটপ থেকে ক্রোমবুক

ক্রোমবুক কি, এ ব্যাপারেই যারা এখনো চিন্তিত, এই আর্টিকেল থেকে পূর্বে বিস্তারিত জেনে নিন। এখন, ক্রোম ওএস উপভোগ করার জন্য আপনার ব্র্যান্ড নিউ ক্রোমবুক কেনার কোনই প্রয়োজনীয়তা নেই। হতে পারে আপনার বাড়িতে পুরাতন উইন্ডোজ ল্যাপটপ বা কম্পিউটার পড়ে আছে, যেটাতে খুব মুশকিল করে উইন্ডোজ এক্সপি চলে। আপনি সেখানে মডার্ন উইন্ডোজ ব্যবহার করতে পাড়ছেন না, কেনোনা সেটার কনফিগারেশন অনেক লো। আর উইন্ডোজ এক্সপি চালানোও তো বিশাল রিস্ক, অন্তত ওয়ানাক্র্যাই র‍্যানসমওয়্যার অ্যাটাক করার পরে এতোটুকু আপনার শিক্ষা হওয়ার কথা। যাই হোক, এই অবস্থায় আপনি ক্রোম ওএস’কে আপনার পুরাতন কম্পিউটারে ইন্সটল করে সেটাকে সম্পূর্ণ ক্রোমবুক বানিয়ে ফেলতে পারবেন।

উইন্ডোজ ল্যাপটপ থেকে ক্রোমবুক

গুগলের যে ক্রোম ওএস’টি রয়েছে, সেটা ক্রোমিয়াম ওএস নামক একটি ওপেন সোর্স প্রজেক্ট থেকে তৈরি করা। তবে গুগল অরিজিন্যাল ক্রোম ওএস এর বিল্ড কখনোই প্রভাইড করে না, কিন্তু নেভারওয়্যার নামক একটি কোম্পানি ক্রোমিয়াম ওএস প্রোজেক্টের উপর আরেকটি ওপেন সোর্স ওএস তৈরি করেছে যেটার নাম ক্লাউডরেডি, আর এটি ইন্সটল করার মাধ্যমে আপনি ক্রোম ওএস এর সকল ফিচার গুলোকে পেতে পারবেন।

নেভারওয়্যার ক্লাউডরেডি’র হোম ইউজের জন্য ফ্রী ভার্সন রয়েছে যেটা পুরাতন কম্পিউটার গুলোকে কোন প্রকারের সমস্যা ছাড়ায় চলতে পারে। তবে গুগল ক্রোম ওএস এ যদি কোন এক্সট্রা ফিচার অ্যাড করে দেয়, সেগুলো আপনি ক্লাউডরেডি থেকে পাবেন না। যদিও এটি গুগল দ্বারা তৈরি করা আসল ক্রোম ওএস এর ভার্সন নয়, তবে তারপরেও এটিই ক্রোমিয়াম ওএস আপনার পুরাতন ল্যাপটপে চালানোর বেস্ট অপশন। লিনাক্স ডিস্ট্র গুলোর মতো আপনি এই ওএস’কে ফ্ল্যাশ ড্রাইভে করে পোর্টেবল হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। যদি ব্যবহার করে ভালো লাগে সেক্ষেত্রে কম্পিউটারে একে পারমানেন্ট ইন্সটল করতেও পারবেন।

কমপ্লিট সেটআপ গাইড!

প্রথমে আপনার একটি ৮ জিবি বা ১৬ জিবির পেনড্রাইভ প্রয়োজনীয় হবে। এবার আপনাকে নেভারওয়্যার এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইট থেকে ক্লাউডরেডি ওএস ডাউনলোড করতে হবে। আপনি ৩২বিট বা ৬৪বিট দুই আর্কিটেকচারে ওএস ফাইল ডাউনলোড করতে পারবেন। আপনার প্রসেসর আর্কিটেকচার হিসেবে ওএস আর্কিটেকচার নির্বাচন করুণ। এবার আপনাকে ইউএসবি পেনড্রাইভ’টিকে বুটেবল করতে হবে, যাতে এর মাধ্যমে কম্পিউটারে ওএস সেটআপ করা যায়।

প্রথমে ডাউনলোড করা ফাইলটি খুঁজে বেড় করুণ এবং আর্কাইভ ফাইলটি এক্সট্রাক্ট করুণ, এর মধ্যের .bin ফাইলটিকে বেড় করে নিন।

এবার ক্লাউডরেডি ইউএসবি ইন্সটলার তৈরি করার জন্য আপনাকে ক্রোম ব্রাউজারে ক্রোমবুক রিকভারি ইউটিলিটি ডাউনলোড এবং ইন্সটল করার প্রয়োজন পড়বে। সাধারণভাবে যেকোনো উইন্ডোজ কম্পিউটারে ক্রোম ওপেন করুণ এবং ক্রোম স্ট্রোর থেকে ক্রোমবুক রিকভারি ইউটিলিটি ইন্সটল করে নিন।

গুগল ক্রোম অ্যাপস অপশন থেকে রিকভারি অ্যাপটিকে দেখতে পাবেন এবার আপনার ইউএসবি কম্পিউটারে লাগিয়ে তারপরে রকভারি অ্যাপটি রান করুণ।

ব্লু “গেট স্টার্টেড” বাটনটি ক্লিক করার মাধ্যমে সেটআপ প্রসেস শুরু করুণ, এবার উপরের দিকের গিয়ার আইকনটিতে ক্লিক করুণ এবং লোকাল ইমেজ অপশনটি পছন্দ করুণ। এবার এক্সট্রাক্ট করা .bin ফাইলটি দেখিয়ে দিন। ব্যাস সাথে সাথে ইউএসবি তৈরি করার প্রসেস শুরু হয়ে যাবে। প্রসেস শেষ হয়ে গেলে ইউএসবি ড্রাইভটি কম্পিউটার থেকে খুলে নিন, এবং যে কম্পিউটারে ক্রোমিয়াম ওএস ইন্সটল করতে চান, সেই কম্পিউটারে প্লাগইন করুণ।

এবার কম্পিউটারটি চালু করে BIOS মেন্যু চলে গিয়ে বুটেবল ইউএসবি’কে সিলেক্ট করে দিন। ব্যাস আপনার কম্পিউটার এবার অন হওয়ার সময় ইউএসবি থেকে বুট করবে। প্রথমেই আপনার ক্লাউডরেডি ইন্সটল প্রসেস শুরু হতে আরম্ভ করবে।

প্রথমেই আপনার কাছে একটি নেটওয়ার্ক কনফিগারেশন পেজ আসবে, যাই হোক এখানে কোন কিছু কনফিগার করার তেমন প্রয়োজনীয়তা নেই।

এবার স্ক্রীনের ডানে নিচের দিকে ক্লকের উপর মাউস নিয়ে গেলে একটি মেন্যু আসবে যেটার প্রথম অপশনটি হলো “ইন্সটল ক্লাউডরেডি” ব্যাস সেখানে ক্লিক করুণ। এবার একটি উইন্ডো আপনার সামনে চলে আসবে আর ইন্সটল প্রসেস শুরু করার জন্য একটি বাটন প্রদান করবে।

এবার জাস্ট ইন্সটল ক্লাউডরেডি বাটনে ক্লিক করলেই অর্ধেক কাজ শেষ। হ্যাঁ, আপনি ক্লাউডরেডি’কে ডুয়ালবুটে ও ইন্সটল করতে পারবেন। ডুয়ালবুট মানে উইন্ডোজের পাশাপাশি ক্লাউডরেডি ওএস ব্যবহার করতে পারবেন, অথবা আপনি চাইলে শুধু ক্লাউডরেডি’কেউ ইন্সটল করতে পারেন, কিন্তু এতে বর্তমান ইন্সটল থাকা অপারেটিং সিস্টেম মুছে যাবে। যদি আপনার কম্পিউটার একটু বেশিই পুরাতন হয়ে থাকে, তো আমি বলবো স্ট্যান্ডআলোন মুড’কেই চয়েজ করা বেস্ট হবে আপনার জন্য। একবার ইন্সটল মুড চয়েজ করার পরে ওএস ইন্সটল হতে ১৫-২০ মিনিট সময় গ্রহন করতে পারে। ইন্সটল শেষ হয়ে যাওয়ার পরে আপনার মেশিন অটো রিস্টার্ট নিয়ে নেবে, এবার ইউএসবিটি কম্পিউটার থেকে বেড় করে নিন।

কম্পিউটার অন হওয়ার পরে আপনার ক্রোমবুক রেডি করার জন্য আপনাকে কিছু সেটআপ সম্পূর্ণ করতে হবে। এখানে নেটওয়ার্ক কনফিগার করতে পারেন, সাথে আপডেট থাকলে সেটাও আপ্লাই করে নিতে পারেন। তারপরে আপনার কাছে লগইন স্ক্রীন চলে আসবে। লগইন তথ্য হিসেবে অবশ্যই গুগল আইডি বা জিমেইল অ্যাড্রেস প্রবেশ করাতে হবে। আর বুম… আপনার ক্রোমবুক রেডি!


এই প্রসেসের মাধ্যমে তৈরি করা ক্রোমবুক’কে তো অবশ্যই আসল ক্রোমবুক বলা যাবে না, কেনোনা গুগল তাদের আসল ক্রোম ওএস’এর ইন্সটল ফাইল শেয়ার করে না। সাথে ক্রোমবুকের মতো আপনার ল্যাপটপে আপনি এতো ভালো ব্যাটারি ব্যাকআপও হয়তো পাবেন না। কিন্তু যদি ক্রোমবুকের মতো কিছু আপনার পুরাতন কম্পিউটারে বা যেকোনো কম্পিউটারে চালাতে চান, সেক্ষেত্রে এটিই ব্যবহার করা আপনার জন্য উত্তম হবে। আপনার যেকোনো সমস্যা হলে আমাকে নিচে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

ইমেজ ক্রেডিটঃ By Antonio Guillem Via Shutterstock

তাহমিদ বোরহান
প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।