আপকামিং স্মার্টফোন : তিনটি বেস্ট স্মার্টফোন যেগুলো ২০১৮ তে রিলিজ হবে!

আমরা সবাই জানি যে প্রযুক্তির সবথেকে মজার ব্যাপারটি হচ্ছে এটি সবসময় পরিবর্তনশীল। প্রযুক্তির প্রত্যেকটি সেক্টরই প্রতিনিয়ত আরও বেশি উন্নত এবং চেঞ্জ হচ্ছে এবং ভবিষ্যতে হতেই থাকবে। ঠিক এই কারনটিই পৃথিবীর প্রায় সকল প্রযুক্তিপ্রেমীদের প্রযুক্তিকে ভালোবাসার সবথেকে বড় কারণ। আপনি আজকে যে প্রযুক্তিটি আজকে দেখছেন বা ব্যাবহার করছেন সেটি আর কিছুদিন পরে আর এমন থাকবে না। সেটি অবশ্যই কিছুদিন পরপর আরও বেশি আপগ্রেড হতে থাকবে। এর সবথেকে বড় প্রভাব লক্ষ্য করা যায় স্মার্টফোন ইন্ডাসট্রির ক্ষেত্রে। কারণ, আমার মতে স্মার্টফোনই হচ্ছে প্রযুক্তির দুনিয়ার সবথেকে দ্রুত আপগ্রেড হওয়া এবং সবথেকে দ্রুত চেঞ্জ হওয়া টেকনোলজি। কখনো ভেবে দেখেছেন, এই ২০১৭ সালে আমরা যে ধরনের স্মার্টফোন রিলিজ হতে দেখেছি বা ব্যাবহার করেছি, সেই স্মার্টফোনগুলোর কথা এখন থেকে ২ বছর আগেও কি আমরা ভাবতে পারতাম?

স্মার্টফোন ইন্ডাসট্রিতে আগামী বছরগুলোতেও যে এমন অভাবনীয় আপগ্রেড এবং পরিবর্তন আসবে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। যাইহোক, আমাদের আজকের আলোচনার বিষয় হচ্ছে, ৫ টি বেস্ট স্মার্টফোন ম্যানুফ্যাকচারারের তিনটি বেস্ট আপকামিং স্মার্টফোন, যেগুলো ২০১৮ সালে রিলিজ হতে চলেছে। এবছরও স্মার্টফোন টেকনোলজির অনেক আপগ্রেড দেখেছি আমরা। কিন্তু আগামী ১ বছরের মধ্যে স্মার্টফোন প্রযুক্তির আরও কি কি আপগ্রেড হতে পারে তা জানলে আপনি অবাক হবেন। তো আর কথা না বাড়িয়ে, চলুন দেখে নেওয়া যাক ২০১৮ সালে রিলিজ হবে এমন কিছু আপকামিং স্মার্টফোন।

বিঃদ্রঃ এই লিস্টে দেওয়া সকল আপকামিং স্মার্টফোন এর ফিচার এবং ডিজাইন সবকিছুই Rumor এর ওপর ভিত্তি করে লেখা। তাই এসব স্মার্টফোন একেবারেই এমন হবে এবং এি সব ফিচারসই এই স্মার্টফোনগুলোতে থাকবেই এমন কোন নিশ্চয়তা নেই। এবং, এই আর্টিকেলে দেওয়া ছবিগুলো এক্স্যাক্টলি ওই ফোনগুলোর ছবি নয় বা সব ক্ষেত্রে ওই ফোনগুলোকে রিপ্রেজেন্টও করেনা।


স্যামসাঙ গালাক্সি এস৯

এবছর স্যামসাঙ এর রিলিজ করা নতুন স্মার্টফোন গ্যালাক্সি এস ৮/৮+ এবং নোট ৮ এই তিনটি স্মার্টফোনও যথেষ্ট ইম্প্রেসিভ ছিল। গ্যালাক্সি এস ৮ ছিল মূলত ছিল ২০১৭ এর মাঝের দিকের সবথেকে বড় স্মার্টফোন ট্রেন্ড। বেজেললেস ডিসপ্লে, নতুন হাই এন্ড চিপসেট, আগের থেকে বেটার ক্যামেরা, ইম্প্রুভড সফটওয়্যার এইসবকিছু মিলিয়ে এটি ছিল স্যামসাঙ এর এবছরের ক্লিয়ার সাকসেসর। গ্যালাক্সি এস৮ এর সফলতার সুত্র ধরেই সামনের বছরের প্রায় একই সময়ে স্যামসাঙ তাদের স্মার্টফোন শিডিউল অনুযায়ী রিলিজ করবে তাদের নতুন স্মার্টফোন, গ্যালাক্সি এস৯ এবং এস৯ প্লাস। বলার অপেক্ষা রাখেনা যে, এই আপকামিং স্মার্টফোন দুটি হবে এদের আগের বছরের মডেলের থেকে আরো বেশি ইম্প্রুভড, আপগ্রেডেড এবং পাওয়ারফুল। স্যামসাঙ গ্যালাক্সি এস৯ মডেলটি স্যামসাঙ রিলিজ করবে ২০১৮ এর মার্চ মাসে। এছাড়া কিছু সোর্স থেকে জানা যায় যে এটি ২০১৮ এর জানুয়ারিতেও রিলিজ হতে পারে। Rumor অনুযায়ী জানা যায়, ২০১৭ এর মত ২০১৮ তেও স্যামসাঙ এর ফোনই সর্বপ্রথম কোয়ালকমের নতুন প্রোসেসর ব্যাবহার করবে (যদি অন্য কোন স্মার্টফোন ম্যানুফ্যাকচারার আগে ব্যাবহার না করে)। ২০১৭ তে যেমন গ্যালাক্সি এস৮ সর্বপ্রথম স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রোসেসর ব্যাবহার করেছে, তেমন সামনের বছরও গ্যালাক্সি এস৯ সরবপ্রথম কোয়ালকমের নতুন প্রোসেসর, স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫ ব্যাবহার করবে (যদি অন্য কোন স্মার্টফোন সেটি আগে ব্যাবহার না করে)।

আপকামিং স্মার্টফোন

এমনও শোনা যায় যে, গ্যালাক্সি এস৯ তার আগের বছরে রিলিজ হওয়া প্রায় সব হাই এন্ড অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের অ্যাডভান্টেজগুলো ব্যাবহার করবে। তবে, গ্যালাক্সি এস৯ এবং এস৯ প্লাস খুব সম্ভবত এবছরের এস৮ এবং এস৮ প্লাসের মত একই স্ক্রিন সাইজ এবং স্ক্রিন রেজোলিউশান ব্যাবহার করবে। তবে গ্যালাক্সি এস৯ ব্যাবহার করবে স্যামসাঙ এর নতুন সানফ্লাওয়ার অ্যামোলেড ডিসপ্লে টেকনোলোজি। এছাড়াও Rumor অনুযায়ী গ্যালাক্সি এস৯ এবং এস৯ প্লাসে হেডফোন জ্যাকও থাকবে। তাছাড়া, এমনউ শোনা গিয়েছে যে গ্যালাক্সি এস৯ এবং এস৯ প্লাস ১০০০ এফপিএস-এ স্লো মোশন ভিডিও ক্যাপচার করতে পারবে। সামনের বছর স্যামসাঙ এর এই দুটি নতুন এস সিরিজের স্মার্টফোনে প্রথমবারের মত থাকতে পারে ডুয়াল ক্যামেরা সেটাপও। গ্যালাক্সি এস৯ এর আইরিশ স্ক্যানার হবে আরও বেশি ইম্প্রুভড এবং ফাস্ট। এছাড়া, এটা স্বাভাবিক যে এই দুটি স্মার্টফোনেও থাকবে আরো ইম্প্রুভড বেজেল-লেস ডিস্প্লে যার স্ক্রিন-টু-বডি রেশিও হবে এবছরের বেজেল-লেস স্মার্টফোনগুলোর তুলনায় আরো হাই, যা সর্বোপরি আরো ভালো এবং আরো ফিউচারিস্টিক ইউজার এক্সপেরিএন্স দিতে সক্ষম হবে। তবে, এখনো অনেকেই আশা করেন যে স্যামসাঙ এর নেক্সট ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর স্ক্রিনের নিচে এম্বেড করে দেওয়া হবে। কিন্তু এখনো পর্যন্ত শোনা Rumor গুলো অনুযায়ী তেমন কিছু হওয়ার কোন চিহ্ন নেই। তাই খুব সম্ভবত এমন কিছু থাকবেনা স্যামসাঙ এর আপকামিং স্মার্টফোন, গ্যালাক্সি এস৯ বা এস৯ প্লাসে।

রেড হাইড্রোজেন ১

রেড কোম্পানিটির নাম অনেকেই শুনেছেন বা জানেন এবং অনেকেই জানেন না। রেড কোম্পানিটি মূলত ক্যামেরা তৈরি করে। ক্যামেরা বলতে পৃথিবীর সবথেকে হাই এন্ড ক্যামেরাগুলো তৈরিতে রেড একটি বড় ভুমিকা পালন করে। রেড মূলত ৪ কে, ৬ কে এবং এমনকি ৮কে সেন্সরযুক্ত হাই এন্ড এবং একইসাথে এক্সপেনসিভ ক্যামেরা তৈরি করে থাকে। তবে এবার তারা নিজেদের ব্র্যান্ডিং এর স্মার্টফোন তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারা তাদের প্রথম স্মার্টফোন রিলিজ করবে আগামী বছরের প্রথমদিকে। এই স্মার্টফোনটি হবে আক্ষরিক অর্থেই একটি যুগান্তকারী আপকামিং স্মার্টফোন, যা গত কয়েক বছরের স্মার্টফোন এক্সপেরিয়েন্সকে বদলে দিতে পারে। রেডের তৈরি স্মার্টফোনটি হবে পৃথিবীর প্রথম হোলোগ্রাফিক স্মার্টফোন। অর্থাৎ এই স্মার্টফোনটিতে ইউজাররা ন্যাটিভলি হোলোগ্রাফিক কন্টেন্ট দেখতে পারবেন কোন ধরনের এক্সট্রা যন্ত্রপাতি বা লেন্স ছাড়াই।

আপকামিং স্মার্টফোন

এই স্মার্টফোনটির অন্যতম একটি বড় বিষয় হচ্ছে এর দুটি মডেলের যথাক্রমে ১২০০ ডলার+ এবং ১৫০০ ডলার+ প্রাইস পয়েন্ট। এই স্মার্টফোনগুলো হবে আগামী বছরের সবথেকে এক্সপেন্সিভ স্মার্টফোনগুলোর মধ্যে অন্যতম। এই স্মার্টফোনটির ডিসপ্লে হবে হোলোগ্রাফিক এবং একইসাথে যথেষ্ট হাই ডেফিনেশন। রেড- এড় ভাষ্যমতে এই স্মার্টফোনটিতে ব্যাবহার করা হবে স্পেশাল লাইটফিল্ড হোলোগ্রাফিক ডিসপ্লে। আর রেড মূলত একটি বেস্ট ইন ক্লাস ক্যামেরা ম্যানুফ্যাকচারার হওয়ায় তাদের স্মার্টফোনে হাই এন্ড ক্যামেরা আশা করাই যায়। এছাড়াও হাই এন্ড স্পেকস এর সাথে এই স্মার্টফোনটি ন্যাটিভলি আমাদের সাধারন ২ডি এবং ৩ডি কন্টেন্টকে .h4v অর্থাৎ হোলোগ্রাফিক কন্টেন্টে কনভার্ট করতে পারবে। কিন্তু নিজে হোলোগ্রাফিক কন্টেন্ট শুট করতে হলে দরকার হয় একইসাথে ৪ টি ক্যামেরার। তাই এই স্মার্টফোনটিতে ন্যাটিভলি হোলোগ্রাফিক কন্টেন্ট উপভোগ করা সম্ভব হলেও নিজে তৈরি করা সম্ভব হবে কিনা এবং হলেও সেটি কিভাবে হবে সে বিষয়ে এখনো পরিষ্কারভাবে কিছু জানা যায়নি। তবে এই স্মার্টফোনটি হবে মডিউলার। অর্থাৎ স্মার্টফোনটির সাথে আলাদা হার্ডওয়্যার ফিজিক্যালি যোগ করে এর ফাংশনালিটি বাড়ানো সম্ভব হবে। এই ফোনটি সম্পর্কে এখনো খুব বেশি কিছু জানা যায়নি। এই স্মার্টফোনটি কমপ্লিটলি রিলিজ হওয়ার পরেই সবকিছু ভালোভাবে জানা সম্ভব হবে। তবে এটি আগে থেকেই নিশ্চিতভাবে বলা যায় যে, এটি ২০১৮ সালের অন্যতম একটি ইন্টারেস্টিং স্মার্টফোন হতে চলেছে।

ওয়ানপ্লাস ৬

আজকের যুগে স্মার্টফোন সম্পর্কে ভালো খোঁজ-খবর রাখে কিন্তু ওয়ানপ্লাস কোম্পানিটির নাম শোনেনি বা চেনেনা এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। আর ওয়ানপ্লাসের জন্য ২০১৭ ছিল বেশ সাকসেসফুল ইয়ার। এবছর তারা নতুন দুটি ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন রিলিজ করেছে এবং বেশ ভালোই ইউজার রেসপন্স পেয়েছে এদের ইম্প্রেসিভ স্পেকস এবং ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোনগুলোর তুলনায় কিছুটা কম প্রাইস ট্যাগের কারনে। ওয়ানপ্লাসের রেকর্ড অনুযায়ী তারা প্রত্যেক বছর দুটি করে স্মার্টফোন রিলিজ করে। প্রত্যেক বছরই তারা একটি নতুন স্মার্টফোন এবং তার কয়েক মাস পরে ওই স্মার্টফোনটির একটি আপগ্রেডেড ভার্শন রিলিজ করে নামের সাথে একটি ” টি ” যোগ করে। আগামী বছরও তারা এর কোন ব্যাতিক্রম করবে না।

আপকামিং স্মার্টফোন

যদিও ওয়ানপ্লাসের আগামী বছরের আপকামিং স্মার্টফোনের খুব বেশি Rumor শোনা যায়নি এখনো, তবে যেটুকু জানা যায়, এই স্মার্টফোনটি হবে এবছরের রিলিজ করা ওয়ানপ্লাস ফাইভ টি– এর মতই। ডিজাইনের দিক থেকে আরেকটু ছোটো বেজেল বা হাই স্ক্রিন-টু-বডি রেশিও ছাড়া আর তেমন কোন পার্থক্য থাকবে না। এবছরের মতই থাকবে পেছনে ডুয়াল ক্যামেরা সেটাপ এবং হাই এন্ড স্পেসিফিকেশনস। ওয়ানপ্লাস ৫ এবং ৫টি ইউজ করবে কোয়ালকমের নতুন হাই এন্ড প্রোসেসর, স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫ এবং কোয়ালকমের হাই এন্ড অ্যাড্রেনো জিপিউ এবং তার সাথে থাকবে ৮ জিবি র‍্যাম যা আগামী বছরেও অ্যান্ড্রয়েড ওএস এর জন্য অনেকটা অভারকিলড। এছাড়া এই স্মার্টফোনদুটিতে তারা সবথেকে বেশি লক্ষ্য রাখবে ড্যাশ চারজিং এর দিকে। অর্থাৎ, এই স্মার্টফোনদুটির ড্যাশ চারজিং হবে আরও বেশি ইম্প্রুভড এবং ফাস্ট। যদি তা না করে, তবে তারা এবার অবশেষে তাদের স্মার্টফোনে ওয়্যারলেস চার্জিং যোগ করতে পারে। এছাড়া এবার তারা স্মার্টফোনগুলোতে অফিশিয়ালি ওয়াটার রেসিস্ট্যান্স দিতে পারে, যদিও এসব ব্যাপারে এখনও খুব বেশি কিছু জানা যায়নি। কিন্তু এটা নিশ্চিতভাবেই বলা যায় যে, গত কয়েক বছরের মত সামনের বছরও এই স্মার্টফোনগুলোর প্রধান আকর্ষণ হবে এর হাই এন্ড স্পেক্স এবং তুলনামুলক কম প্রাইস।


তো এই ছিল তিনটি বেস্ট এবং মোস্ট এক্সপেক্টেড আপকামিং স্মার্টফোন যেগুলো সামনের বছর রিলিজ হতে চলেছে। আবারো বলছি, এই স্মার্টফোনগুলোর যেসব ফিচারের কথা এই আর্টিকেলে উল্লেখ করা হয়েছে, সেগুলো শুধুমাত্র Rumor। অনেকসময় এসব Rumor সত্যি হয় এবং অনেকসময় হয়না। তাই এসব ফিচারস এই স্মার্টফোনগুলোতে নিশ্চিতভাবেই থাকবে এমন কোন নিশ্চয়তা নেই। উল্লেখ্য, এই তিনটি স্মার্টফোন Rumor অনুযায়ী ২০১৮ এর প্রথম ৬ মাসের মধ্যে রিলিজ হবে। ২০১৮ এর শেষ ছয় মাসের মধ্যে এর থেকেও আরও ভালো কোন স্মার্টফোন বা এই স্মার্টফোনগুলোর আপগ্রেড রিলিজ হতেই পারে। তেমন কিছু হলে সেগুলো নিয়ে অন্য কোনদিন আলোচনা করা যাবে।

 

আজকের মত এখানেই শেষ করছি। আশা করি আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগেছে। কোন ধরনের প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট সেকশনে জানাবেন। ভালো থাকবেন।


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Image Credit : samsung.com, MKBHD (Youtube), Oneplus.net

সিয়াম
অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ ছিলো এবং হয়তো সেই আকর্ষণটা আরো সাধারন দশ জনের থেকে একটু বেশি। নোকিয়ার বাটন ফোন থেকে শুরু করে ইনফিনিটি ডিসপ্লের বেজেললেস স্মার্টফোন, সবই আমার প্রিয়। জীবনে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততোটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। আর এই প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ থেকেই লেখালেখির শুরু.....