WireBD
ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম

ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম | কতোটা ফাস্ট? কতোটা ফিউচার প্রুফ? সবকিছু!

১৩ বছরের ভেতর মজিলা ফায়ারফক্স এর সবচেয়ে বড় আপডেট আসল এই বিগত ১৪ নভেম্বর, ২০১৭ তে। নতুন এই আপডেটটি হল ফায়ারফক্স ৫৭। যাকে বলা হচ্ছে ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম। মজিলা কর্পোরেশন ফায়ারফক্স এর সবচাইতে নান্দনিক জ আকর্ষনীয় এই আপডেটটির মাধ্যমে ৫৫% একক মার্কেট শেয়ার নিয়ে থাকা গুগল ক্রোম এর একটি উন্মুক্ত প্রতিযোগিতায় নামল। আর এখন কেউ কারও থেকে কম নয়। ৩০% কম মেমোরী তথা র‍্যাম সাশ্রয়ী নতুন এই আপডেটটিতে মজিলা ফায়ারফক্স এর দাবী এটি আগের থেকে সবদিক দিয়ে দ্বিগুন ফাস্ট।

Key Features:

  • প্রাইভেট ব্রাউজিং
  • ট্র্যাকিং প্রোটেকশন
  • ৪৪% দ্রুত পেজ লোডিং
  • বিল্টইন  স্ক্রীনশট
  • ফাস্ট ও মাল্টি প্রোসেস .. সহ আরও অনেক

যে কারণে আপনি ক্রোম ব্যবহার না করে ফায়ারফক্স ব্যবহার করবেন!

আপনি আগে থেকে ফায়ারফক্স ইউজার হয়ে থাকলে, এবার আপনি পেতে চলেছেন ব্যাপক পরিবর্তন ও আপডেট। আর আপনি যদি ট্রিপিক্যাল গুগল ক্রোম ইউজার হন এবং ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম ইউজ করতে আসেন, তবে আমার মনে হয় তখন আপনি ক্রোমকে ছুটি দেয়ার চিন্তা-ভাবনা করবেন। ২০০৪ সালের পর এটি ফায়ারফক্সের অনেক বড় একটি মাইনর আপডেট।

ফাস্ট ও মাল্টি প্রোসেস ব্রাউজারঃ

প্রতিযোগিতায় থাকা অন্যান্য ব্রাউজার গুলোর থেকে ফায়ারফক্স অত্যান্ত কম        মেমোরি  খরচ ব্যবহার করে, যা আপনার কম্পিউটারে ওয়েব ব্রাউজিং করবে আরও স্মুথ ও কার্যকর।অতিরিক্ত ট্যাব এর ফলে হ্যাং ও স্লো হয়ে যাওয়া এবার হয়ত আপনি ভুলে যেতে পারবেন। ২০১৬ সালে মজিলার যে আপডেটটি রিলিজ করে(ফায়ারফক্স ৫২) তার থেকে এই ভার্সনটি হবে ২ গুণ বেশী ফাস্ট,ফায়ারফক্স ৫৪ আপডেট থেকেও এটি তুলনামূলক ফাস্ট । গুগল ক্রোমের লেটেস্ট ভার্সন থেকেও এটি র‍্যাম খরচ করে ৩০% শতাংস কম।ওয়েব পেজ রেন্ডারিং,ব্রাউজার ট্যাবগুলোর ভেতর চলাফেরা, ওয়েব পেজের ভেতর স্ক্রলিং করে ঘুরে বেড়ানো এসব সাধারন কাজে স্পীড থাকছে আগের চেয়ে ফাস্ট।

ফায়ারফক্স ৫৭ তথা কোয়ান্টাম মাল্টি বা একাধিক প্রোসেস পরিচালনাকারী ব্রাউজার হলেও, ক্রোম এর থেকে কম মেমোরি খরচ করে। এতদিন এটি একটি সিঙ্গেল ও ডুয়াল প্রোসেস ক্ষমতা সম্পন্ন ব্রাউজার ছিলো। দেখা যাচ্ছিলো, একটি ট্যাবে ওয়েবপেজের সমস্যার কারনে ব্রাউজার হ্যাং হয়ে যাচ্ছে, একইভাবে অন্যসব ট্যাবে এক্সেস করাও সমস্যা হয়ে দাড়াচ্ছে- এমনকি ব্রাউজার ক্র্যাশ এর মত সমস্যাও হচ্ছে। আবার স্লো ওয়েব পেজের কারনে ব্রাউজারও স্লো ডাউন হয়ে যেতো। তবে এবার প্রতিটি ট্যাবের জন্য, ইন্টারফেসের জন্য আলাদা প্রোসেস কাজ করবে।

যেখানে ফায়ারফক্স ৫৪ সংস্করনে ২ টি প্রোসেস কার্যকর ছিলো ; একটি ইন্টারফেসের জন্য,অন্যটি ওয়েবপেজের জন্য। ফায়ারফক্স কোয়ান্টামে কাজ করবে আরও বেশি প্রোসেস। ফায়ারফক্সের আপডেটে আবার সেটিংস প্রোসেস নাম্বার কনফিগার করার অপশনও দেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে আপনি যদি মাল্টি প্রোসেস ব্রাউজার না চান, তবে প্রোসেস লিমিট সিঙ্গেল সেট করে দিতে পারবেন। বর্তমান মাল্টি কোর প্রোসেসর যুক্ত কম্পিউটারে আরও বেশি প্রোসেস এর সাথে কোয়ান্টাম কাজ করবে আরও ভালোভাবে।

ইন্টারফেসঃ

ফায়ারফক্সের চিরচলিত ইন্টারফেসের সাথে পরিচিতরা এবার পাবেন একদম ভিন্ন ফ্লাট, মিনিমাল,স্টাইলিশ ইউজার ইন্টারফেস। ট্যাববার গুলো বক্সড বা আয়তাকার, বাটন আইকন সহ অন্যান্য ট্রানজিকশন ইফেক্ট গুলো অত্যান্ত আকর্ষনীয়। মজিলা এই ডিজাইনটির নাম দিয়েছে “ফোটন”। বর্তমান সময়ের হাই পিক্সেল ডেনসিটি এইচডি ডিসপ্লে গুলোতে ফায়ারফক্সের চেয়ে আকর্ষনীয় আর কোন ব্রাউজার হবে না, এবং এসব ডিসপ্লেতে ফায়ারফক্সকে আরও সুন্দর লাগবে।

টাচ ডিসপ্লে এর ক্ষেত্রে, এটা তে যে মেনু রয়েছে টাচ করার পর তার সাইজ অটোমেটিক বড় হয়ে যাবে। তবে সেগুলো মাউস ব্যবহারে নরমাল সাইজেই থাকবে। কাস্টমাইজ অপশন থেকে সহজে টুলবারে কি কি রাখবেন, তা সিলেক্ট করা যাবে। আপনার কেবল যে টুলস ইচ্ছা তা টুলবারে রাখতে পারবেন।

মেনুতে বরাবরের মত Web Developer নামে রয়েছে একটি অপশন ।

ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম ওয়েবএসেম্বেলি ফিচার সাপোর্ট করে, যার ফলে বিগিনার ডেভেলপাররা এর জন্য সহজেই দারুন সব ওয়েব অ্যাপলিকেশন তৈরি করতে পারবেন। ব্রাউজারটি “ওয়েবভিআর” সাপোর্টেড। যার ব্রাউজার ব্যবহার করে সম্পূর্ণ ভি আর বা ভার্চুয়াল রিয়েলিটির মজা নেয়া যাবে। ওকুলাস রিফ্ট ও এইচটিসি ভাইভ এর মত ভি আর হেডসেট এর ক্ষেত্রে সুবিধা পাওয়া যাবে। মজিলা পকেট সার্ভিসটি দেখা যাবে আরও হাইলাইটেড ভাবে।

আপনার কাছে উপকারী আরেকটি ফিচার লাগতে পারে স্ক্রীনসট তোলার যে অপশন আছে সেটি। এটি উইন্ডোজের স্নাইপিং টুল এর মজিলা ব্রাউজারে ওয়েব পেজের স্ক্রীনশট তোলার সুবিধা দিবে।

অ্যাড-অন / ওয়েব এক্সটেনশনঃ

এইসব ব্যাপক পরিবর্তন সাথে কিছু পুরাতন সুবিধাকে বিদায় দিয়েছে ফায়ারফক্স। পুরাতন ফায়ারফক্স অ্যাড-অন যেগুলো XUL এ কোড করা তা আর কাজ করবে না। তবে WebExtensions সাপোর্ট করবে, সুতরাং ক্রোমস্টোর এর যাবতীয় স্টাফ এই ফায়ারফক্স কোয়ান্টামেওও ব্যবহার করা যাবে। তবে আপনি এখনও পুরাতন ফায়ারফক্স অ্যাড অন এর ওপর নির্ভর থাকতে পারেন, যেগুলো হয়ত এখন আর সাপোর্টেড নয়। সেক্ষেত্রে আপনি ফায়ারফক্স এক্সটেনডেড সাপোর্ট ফিচার বা ফায়ারফক্স ESP ব্যবহার করতে পারেন। আর এখনকার ESP ফায়ারফক্স ৫২ এর ভিত্তি করে চলে। সুতরাং ESP ব্যবহার করে আগের অ্যাডঅন গুলোও ব্যবহার করা যাবে, তবে আগে থেকে যেসব WebExtension প্রকৃতির অ্যাডঅন যদি থেকে থাকে তা চলবেই। তবে ভালো হবে এসব ESP ব্যবহার না করে, নতুন অ্যাড অন এর প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ুন।

আপনি যদি গুগল ক্রোম ইউজার হন, আর ফায়ারফক্স কোয়ান্টামে সুইচ করতে চান, তবে স্বাগতম। আমি নিজেও ক্রোম ব্যবহার করি। তবে ফায়ারফক্সের নতুন এই আপডেট সত্যিই চমকপ্রদ। তাই এটা আমি সবাইকে রেকোমেন্ড করব। আর হয়ত এর ফাস্টনেস দেখে আপনি ক্রোম বাদ দিয়ে এটিই ব্যবহার শুরু করে দিতে পারেন।


আশা করি আর্টিকেলটি ভালো লেগেছে, ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম এর কি কি দিক আপনার ভালো লেগেছে মতামত জানাতে পারেন। ভালো লাগলে শেয়ার করবেন। আর যারা এখনও ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম ডাউনলোড করেননি, তাদের জন্য ডাউনলোড লিংক। এন্ড্রয়েড ডাউনলোড লিংক

ইমেজ ক্রেডিট; Mozilla

তৌহিদুর রহমান মাহিন

কোন কিছু জেনে সেটা মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার মধ্য দিয়েই সার্থকতা । আমি মোঃ তৌহিদুর রহমান মাহিন- ভালোবাসি প্রযুক্তিকে , আরও ভালোবাসি প্রযুক্তি সম্পর্কে বেশি বেশি জানতে- জানাতে। নিয়মিত মানসম্মত প্রযুক্তি বিষয়ক আর্টিকেল উপহার দেয়ার প্রত্যয়ে আছি টেকহাবস এর সাথে।

21 comments

সোশ্যাল মিডিয়া

লজ্জা পাবেন না, সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে টেকহাবসের সাথে যুক্ত হয়ে সকল আপডেট গুলো সবার আগে পান!