পুরাতন কম্পিউটার কেনার কথা চিন্তা করছেন? দাঁড়ান! আগে জেনে নিন!

পুরাতন ল্যাপটপ কেনার কথা চিন্তা করছেন?

আপনার নতুন বা পুরাতন কম্পিউটার কেনার আগে সবচাইতে প্রথম লক্ষণীয় বিষয়টি হচ্ছে—কেন এবং কোন কাজের জন্য কম্পিউটারটি আপনার প্রয়োজনীয়। অনেকে দেখি শুধু মুড মারার জন্য হাই স্পেকস কম্পিউটার কিনে থাকে (ব্যস্তব সত্য কথা)। আপনার কাজ শুধু ওয়ার্ড প্রসেসিং সফটওয়্যার নিয়ে আর আপনি আই৭ প্রসেসর আর ১৬ জিবি র‍্যামের কম্পিউটার কিনেছেন! কি জন্য? কেনোনা এই কনফিগার আপনার কখনোই কাজ আসবে না, শুধু ভালো টাকার অপচয় ছাড়া আর কিছুই  না।

যাই হোক, পুরাতন ল্যাপটপ বা কম্পিউটার কিন্তু সকলের জন্য নয়। আপনার বাজেটের মধ্যে নতুন কম্পিউটারের চেয়ে একটু বেটার কনফিগার ওয়ালা কম্পিউটার কেনার জন্য অনেকে পুরাতন ল্যাপটপ বা কম্পিউটার কেনার কথা চিন্তা করে। কিন্তু এখানে কিছু বিষয় মাথায় রেখে পুরাতন ল্যাপটপ কিনলে আপনার এক্সপেরিয়েন্স অসাধারণ হতে পারে। এই আর্টিকেল আপনাকে পুরাতন ল্যাপটপ কেনার সময় কোন কোন বিষয় গুলো খেয়াল করা প্রয়োজনীয়, সে ব্যাপারে সাহায্য করবে!

স্পেসিফিকেশন

প্রথম পয়েন্ট’টি যখন আপনার প্রয়োজনীয়তার, সেক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার ল্যাপটপ স্পেকের দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। অবশ্যই আপনার প্রয়োজনের সফটওয়্যার গুলো ঐ ল্যাপটপে চলার ক্ষমতা থাকতে হবে। আপনি গেমিং করতে চাচ্ছেন, নাকি অডিও ভিডিও এডিট করতে চাচ্ছেন, নাকি মিডিয়া প্লে করার জন্য ল্যাপটপ কিনছেন? সেক্ষেত্রে সিপিইউ, জিপিইউ, র‍্যাম, স্টোরেজ সব গুলো বিষয়ের উপর বিশেষ নজর রাখতে হবে।

এবার নিজেকে প্রশ্ন করে দেখুন, আপনি যে পুরাতন ল্যাপটপটি কিনতে চাচ্ছেন, সেটাকি আপনার প্রয়োজন মেটাতে সক্ষম, যদি উত্তর হ্যাঁ হয়ে থাকে, তবে নেক্সট স্টেপ গুলোর দিকে দেখতে হবে। আর যদি উত্তর না হয়, সেক্ষেত্রে অবশ্যই আরো কিছু টাকা জমিয়ে বেটার স্পেসিফিকেশনের খোঁজ করতে হবে। তাছাড়া পুরাতন ল্যাপটপ কেনার পূর্বে অবসই অনলাইন রিভিউ দেখে নেওয়া উচিৎ, সেই মডেল ল্যাপটপটি লং টার্ম ইউজের পরে মানুষের অভিজ্ঞতা কেমন হয়েছে।

ল্যাপটপ প্রসেসর, র‍্যাম চেক করার পাশাপাশি আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যেটা চেক করা প্রয়োজনীয়, সেটা হচ্ছে পাওয়ার। পুরাতন ল্যাপটপের ব্যাটারি কি অবস্থায় রয়েছে, যদি ব্যাটারি পরিবর্তন করতে হয়, সেক্ষেত্রে কতো খরচ পড়তে পারে সাথে এসি অ্যাডাপ্টার আছে কিনা, ল্যাপটপটি কেমন ব্যবহার করা হতো পূর্বে, এই বিষয় গুলোর উপরও ধারণা নিতে হবে। যদি আপনি ল্যাপটপ কিনতে চান বিশেষ করে পোর্টাবিলিটির জন্য, সেক্ষেত্রে অবশ্যই ব্যাটারি আরেকটি প্রধান ফ্যাক্টর, যদি পোর্টাবিলিটির প্রয়োজনীয়তা না থাকে, আর ডেক্সটপ কম্পিউটার কেনেন, তো এটা কোন ব্যাপার না!

ফিজিক্যাল চেকআপ

আপনার প্রয়োজন এবং হার্ডওয়্যার স্পেসিফিকেশন প্রয়োজন মিটে যাওয়ার পরে এবার পুরাতন ল্যাপটপটির ফিজিক্যাল চেকাপ করতে হবে, বলতে পারে মেডিক্যাল চেকআপ। প্রথমেই দেখে নিন, ল্যাপটপটির বডি ঠিকঠাক রয়েছে কিনা, অবশ্যই ফ্রেমের মধ্যে ভাঙ্গা আছে কিনা, সেটা চেক করে নেবেন।

বডি চেক করার পরে সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ চেকআপ হচ্ছে স্ক্রীন চেক করে নেওয়া। দেখে নিন, স্ক্রীন ঝাপসা হয়ে গেছে কিনা বা ঝপাৎ ঝপাৎ করছে কিনা, ব্রাইটনেস লেভেল দেখে নিন, সাথে স্ক্রীনে ব্যাড পিক্সেল রয়েছে কিনা দেখে নিন। আমি রেকমেন্ড করবো ভিডিও প্লে করে ভিউইং অ্যাঙ্গেল দেখে নিন।

এর পরে অবশ্যই কী-বোর্ড চেক করে নিন, দেখে নিন ট্র্যাক প্যাড ঠিকঠাক কাজ করছে কিনা, যদিও হয়তো মাউস ব্যবহার করবেন, তারপরেও চেক করে নেওয়া আবশ্যক। আপনি যদি লেখার জন্য বিশেষ করে ল্যাপটপটি কিনে থাকেন, অবশ্যই কোন কী ডেড হওয়া চলবে না, কেনোনা আলাদা কী-বোর্ড বহন করতে গিয়ে আপনার পোর্টাবিলিটি ঘংস হয়ে যাবে। সকল পোর্ট গুলো চেক করে নিন, দেখুন ইউএসবি পোর্ট, ভিজিএ পোর্ট, এইচডিএমআই পোর্ট, ইউএসবি পোর্ট, ইথারনেট পোর্ট —সাথে সিডি/ডিভিডি রম থাকলে সেটা ঠিকঠাক কাজ করছে কিনা, চেক করে নিন। অবশ্যই ওয়াইফাই এবং ব্লুটুথ চেক করে নিতে ভুলবেন না। ওয়েবক্যাম, স্পীকার একটু ভালো করে চেক করে নিন, প্রয়োজনে ল্যাপটপে লাইভ ভিডিও চ্যাট করে দেখুন কেমন কোয়ালিটি আসছে, বিল্ডইন মাইক কাজ করছে কিনা চেক করুণ।

পুরাতনের চেয়ে নতুন বেটার নয় তো?

আপনার প্রয়োজনীয়তাকে পাশে রেখে, আমি সর্বদা এটা রেকমেন্ড করি, অবশ্যই আগে দেখুন আপনার বাজেটের মধ্যে নতুন কম্পিউটার হচ্ছে কিনা। যদি নতুন কম্পিউটার হয়, সেক্ষেত্রে পুরাতন কম্পিউটার কেনা থেকে বিরত থাকুন, এতে অনেক পেইন থেকে মুক্তি পাবেন। পুরাতন ল্যাপটপের বিশেষ সমস্যা থাকে ব্যাটারি নিয়ে, তাছাড়া পূর্বের ব্যবহারকারী ঠিক মতো চার্জিং সাইকেল বজায় না রাখলে অবশ্যই ল্যাপটপ ব্যাটারির বারোটা বেজে গেছে এতোদিনে!

ল্যাপটপ পছন্দ করার পূর্বে অবশ্যই ভালো করে গবেষণা করে নিন। স্পেসিফিকেশন সাইড বাই সাইড রেখে তুলনা করুণ। দেখে নিন, নতুন ল্যাপটপ আর বাজেটে কি অফার করছে এবং পুরাতন ল্যাপটপ থেকে আপনি কি বেশি পাচ্ছেন। আগেই বলেছি, অবশ্যই আগে নতুনের কথা চিন্তা করবেন। অবশ্যই এটা মাথায় রাখবেন, যদি পুরাতন সিস্টেম কিনতেই হয়, সেক্ষেত্রে যেন যতোদূর সম্ভব কম আপগ্রেড করতে হয়। অনেকে হঠাৎ করে ল্যাপটপ কিনে ফেলেন, কিন্তু পরে ব্যাটারি পরিবর্তন করতে হয়, এসএসডি লাগাতে হয় বা র‍্যাম বাড়াতে হয় এগুলোর দিকে চিন্তায় করেন না। অবশ্যই পুরাতন ল্যাপটপ কিনে সেটাকে আপগ্রেড করার পূর্বে দেখুন, এই দামে নতুন ল্যাপটপ উপযুক্ত হচ্ছে কিনা! অবশ্যই আগে নতুনের চিন্তা!


পরিশেষে আমি এটাই রেকমেন্ড করবো, যদি আপনার বন্ধু বা পরিবারের কার কাছ থেকে পুরাতন ল্যাপটপটি ক্রয় করেন, সেক্ষেত্রে অবশ্যই টেস্ট করার জন্য কিছুদিন আগে ব্যবহার করুণ। তারপরে সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে টাকা পরিশোধ করে সিস্টেমটিকে একেবারে আপন করে নিন। এই আর্টিকেলটির একমাত্র লক্ষ্য হচ্ছে আপনাকে যেন পুরাতন ল্যাপটপ কিনে কোনভাবেই হয়রানী না হতে হয়। আশা করি আপনি উপরের বিষয় গুলোর উপর বিশেষ নজর রেখেই পুরাতন ল্যাপটপ ক্রয় করবেন। আবারো একবার বলে নিচ্ছি, যদি নতুন কম্পিউটার সম্ভব হয়, অবশ্যই আগে নতুন!


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

ইমেজ ক্রেডিট; By stocksolutions Via Shutterstock

তাহমিদ বোরহান
প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।