কেন উইন্ডোজ টেন এখন ফ্রীতেই চালাতে দিচ্ছে মাইক্রোসফট?

কেন উইন্ডোজ এখন ফ্রীতেই চালাতে দিচ্ছে মাইক্রোসফট?

এতো দরদ কিসের? উইন্ডোজ এক্সপি এর আমলে প্রোডাক্ট কী প্রবেশ না করালে এক নির্দিষ্ট সময়ের পরে সম্পূর্ণ কম্পিউটার ব্যাবহার করা থেকেই ব্যান করে দিত মাইক্রোসফট। উইন্ডোজ এর তারপরের ভার্সন গুলোতেও কী প্রবেশ না করালে নানান রেস্ট্রিকশন জুড়ে দিত তারা। কিন্তু উইন্ডোজ ১০ এ এসে এতো কিসের দরদ?

প্রোডাক্ট কী প্রবেশ না করলেও উইন্ডোজ ১০ ব্যাবহার করা যায় দিব্বি আরামে। জাস্ট ওয়ালপেপার সেট করা আর উইন্ডো এর কালার পরিবর্তন ছাড়া কোনোই বাঁধা থাকে না ওএস ব্যাবহার করতে। হঠাৎ করে এতো ভালোবাসা কেন? চলুন, ব্যাপারটা নিয়ে ময়না তদন্ত চালানো যাক…

বি:দ্র: অনেকেই হয়তো ভাবছেন, “উইন্ডোজ আবার টাকা দিয়েও কেনা লাগে? কই আমি তো গুহার যুগ থেকে ফ্রীতেই চালাচ্ছি” — ভাই, মাফ চাই, আপনি নেক্সট লেভেলের মানুষ…, তবে আপনাকেও কিন্তু ছাড়ছে না মাইক্রোসফট। কিভাবে? নিচে পড়ুন..

আর হ্যাঁ, আর্টিকেল টি পড়া শুরু করার আগে দেখে নিতে পারেন, এখনো যেসব উপায়ে উইন্ডোজ ১০ ফ্রি পেতে পারেন! [লেজিট]

মাইক্রোসফট কেন উইন্ডোজ ১০ ফ্রীতেই ব্যবহার করতে দিচ্ছে এখন?

না ভাই, এটা মন থেকে ফ্রীতে দিচ্ছে না। এখানেও বেটাদের বিজনেস পলিসি রয়েছে। যে নেক্সট লেভেলের ভাইয়েরা উইন্ডোজ এর পাইরেটেড ভার্শনই ব্যাবহার করে এসেছেন সারাজীবন, মাইক্রোসফ্ট জানে আপনারা কখনো টাকা দিবেন ও না আর ওরা আশা করেও বসে নেই। (আচ্ছা একটু বেশি ভাব নিয়ে ফেলেছি… হ্যা, আমিও ২০১৬ পর্যন্ত পাইরেটেড উইন্ডোজ ই ব্যাবহার করে এসেছি!)

কিন্তু তারপরেও মাইক্রোসফট চায় আপনি তাদেরই প্রোডাক্ট ব্যাবহার করুন। উইন্ডোজ এর জন্য টাকা দেন বা না দেন আলাদা প্রোডাক্ট থেকে ওরা ছলেবলে ঠিকই অর্থ উপার্জন করে নেবে, তাও আপনার নাকের নিচ দিয়ে! উইন্ডোজ ১০ কিন্তু সস্তা কোন অপারেটিং সিস্টেম নয়। বেশ মোটা টাকা গুনতে হবে এর আসল ভার্শন ব্যবহার করতে চাইলে। সত্যি বলতে উইন্ডোজ কেনার টাকা দিয়ে দুই চারটা আলু পিসি বিল্ড করে ফেলা সম্ভব।

এমনিতে যারা উইন্ডোজ ৭ বা ৮ থেকে এসেছিল, উইন্ডোজ ১০ তারা ফ্রীতেই ব্যাবহার করছে। আরো নানান ভাবে ফ্রীতে তো ব্যাবহার করা যায় ই, সাথে আপনি কী এক্টিভ না করলেও কিছু যায় আসে না। হ্যাঁ, নিচে ডেস্কটপে একটা ওয়াটারমার্ক ভেসে থাকে, “Active Windows” — তাছাড়া কিন্তু আর কোন সমস্যায় ফেস করতে হয় না। কিন্তু কেন রে ভাই? কেন? মাইক্রোসফট এর কি টাকায় এলার্জি আছে নাকি?

যখন কিছু ফ্রী ব্যাবহার করবেন, তখন প্রোডাক্ট আপনি নিজেই…

আপনি টাকা দিয়ে কিনে উইন্ডোজ ব্যাবহার না করেও প্রতিনিয়ত মাইক্রোসফট কে বিলিয়ন কামাতে সাহায্য করছেন। কিভাবে? উত্তরটা হচ্ছে নানান ভাবে।

দেখুন, মাইক্রোসফট এর উইন্ডোজে নিজেদের আরো অনেক প্রোডাক্ট এ ভরপুর। যেমন ধরুন অফিস অ্যাপ্লিকেশনের কথা। আপনাকে বারবার বিজ্ঞাপন দেখাবে অফিস ৩৬৫ এর সাবস্ক্রিপশন কেনার জন্য। আপনি যদি একবার সেটা কিনতে রাজি হয়ে যান, তাহলে কোন এক সময় আপনাকে ওয়ান ড্রাইভ ও কিনতে হবে। কেননা ওদের দেওয়া ফ্রী স্পেস দ্রুতই শেষ হয়ে যাবে আর আপনার বেশি স্পেসের প্রয়োজন পড়বে।

আপনি উইন্ডোজ এর সাধারণ সার্চ সিস্টেম থেকে সার্চ করলেও দেখবেন ওয়েব রেজাল্ট গুলো বিং থেকে আসছে। এরমানে, আপনি মনের অজান্তেই বিং ব্যাবহার করছেন। মাইক্রোসফট যতবেশি উইন্ডোজ ব্যাবহারকারী জোগাড় করবে স্বয়ংক্রিয় বিং ইউজার ততবেশি বাড়বে আর মাইক্রোসফট এতে বেশি অ্যাডভারটাইজার আকৃষ্ট করতে পারবে।

উইন্ডোজ ১০ এর সাথে দেখবেন অনেক তৃতিয়পক্ষ অ্যাপ এবং গেম প্রি ইন্সটল থাকে। কি ভাবছেন? মাইক্রোসফট এমনি ই এগুলো ইনক্লুড করে রেখেছে? এগুলো থেকেও বিরাট অংকের টাকা উপার্জন করে তারা।

আপনি ফ্রী তে ব্যাবহার করুন আর টাকা দিয়ে, তারা কিন্তু ইউজার পাচ্ছে। তারা আপনাকে এক প্ল্যাটফর্মে জুড়তে সক্ষম হচ্ছে, এতে তাদের মার্কেট শেয়ার বাড়ছে। তারা সহজেই অ্যানালিটিকস দেখাতে পারবে যে দুনিয়ায় উইন্ডোজ ই সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত পার্সোনাল কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেম। আর এতে তাদের লাভ ই লাভ!

তাহলে কি উইন্ডোজ থেকে টাকায় ইনকাম করছেন না মাইক্রোসফট?

করছে ভাই, বিপুল টাকা ইনকাম করছে! সরাসরি লাইসেন্স বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা পকেটে ভরে এরা। আপনি সাধারণ ইউজার, ক্র্যাক করে উইন্ডোজ ব্যাবহার করলেও আপনাকে কেউ কিছু বলার নেই। কিন্তু কোম্পানী রা এমনটা করতে পারে না। ওদের প্রত্যেকটা মেশিনের জন্য লাইসেন্স কিনতে হয়, আর না হলে মাইক্রোসফট আছোলা বাঁশ নিয়ে প্রস্তুত হয়েই থাকে। আর হাজার হাজার কোম্পানিদের এরকম লাখো লাখো কম্পিউটার রয়েছে।

তাছাড়া উইন্ডোজ এর সার্ভার ভার্শনও রয়েছে। ক্লাউডে যত উইন্ডোজ সার্ভার রয়েছে সব গুলোই লাইসেন্স কপিতে চলে। ক্লাউড কোম্পানি মাসিক বিলের সাথে লাইসেন্স ফী অবশ্যই চার্জ করবে, এই জন্য খেয়াল করবেন, লিনাক্স সার্ভার থেকে উইন্ডোজ সার্ভারের দাম বেশি হয়ে থাকে।

তাছাড়া কোন কম্পিউটার প্রস্তুতকারী কোম্পানি যদি তাদের মেশিনকে উইন্ডোজ সাপোর্টেড হিসেবে মার্কেটিং করে সেল করে, সেক্ষেত্রে তাদের লাইসেন্স নিতে হয় মাইক্রোসফট এর কাছ থেকে। আপনার ল্যাপটপ এ হয়তো আগে থেকেই উইন্ডোজ ইনস্টল করা ছিলো, এর জন্য আপনার ল্যাপটপ প্রস্তুতকারী কোম্পানিকে টাকা গুনতে হয়েছে।

আরো অনেক অনেক ব্যাপার আছে ভাই। ওরা নানান পদ্ধতিতে চিপে নিংরে অর্থ উপার্জন করছে। সুতরাং, আপনি টাকা সরাসরি না দিলেন তো কি হলো? ওরা আলাদা ভাবে ঠিকই বের করে ছাড়বে।


তো আশা করা যায় এতক্ষণে মোটামুটি একটা ওভারভিউ পেয়ে গেছেন। এই জন্যই উইন্ডোজ এখন কেন ফ্রীতেই চালাতে দিচ্ছে মাইক্রোসফট! এটা মন থেকে নয় বরং আরো এক লম্বা গেম খেলছে আরো মোটা টাকা উপার্জনের ধান্দায়! আগেই বলেছি, “যখন কোন জিনিস কোম্পানি ফ্রীতে ব্যাবহার করতে দেয়, বুঝে নেবেন, প্রোডাক্ট আপনি নিজেই!”


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Image: Shutterstock.com

তাহমিদ বোরহান
প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।