২জিবি র‍্যামের কমে আর মিলবে না স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড্রয়েড ফোন!

অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেমের প্রধান অবিভাবক হচ্ছে গুগল, আর অবিভাবক হিসেবে তো ভবিষ্যৎ নিয়ে গুগল কে ভাবতেই হবে তাই না? সম্প্রতি এক লিক হওয়া ডকুমেন্ট থেকে জানা গেছে, সামনের অ্যান্ড্রয়েড ১০ এবং অ্যান্ড্রয়েড ১১ পাওয়ার্ড ডিভাইস গুলোতে কমপক্ষে ২ জিবি র‍্যাম থাকতেই হবে!

অ্যান্ড্রয়েড ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইজ গুলোর র‍্যামের পরিমাণ তো অনেক আগেই ট্র্যাডিশনাল ল্যাপটপ গুলোকে হার মানিয়ে ডাবল ডিজিটে চলে গেছে। মিড রেঞ্জের ফোন গুলোতেও এখন ৬-৮ জিবি র‍্যাম দেখতে পাওয়া যায়, তাহলে লো এন্ড ডিভাইস গুলো ৫১২ মেগাবাইটে পরে থাকবে কেন? অ্যান্ড্রয়েড এবার স্ট্যান্ডার্ড কিছু নিয়ে চিন্তা করছে। গুগল ভালো করেই বুঝতে পারছে ৫১২ এমবি বা ১ জিবি র‍্যামের যুগ শেষ।

অবশ্য এই ২জিবি মিনিমাম র‍্যামের নিচের ডিভাইসে অ্যান্ড্রয়েড গো এডিশন অপারেটিং সিস্টেম রান করবে, তবে পূর্বে এর কোনো মিনিমাম রিকোয়ারমেন্ট ছিল না, কিন্তু এখন সেট করা হবে। ফলে সামনের অ্যান্ড্রয়েড গো ডিভাইস গুলো বাজারে অনেক বেড়ে যেতে চলেছে। ফোনের র‍্যাম ২জিবির নিচে হলেই সেটা অ্যান্ড্রয়েড গো হিসেবে বিক্রি করতে হবে কোম্পানিদের।

পূর্বে অ্যান্ড্রয়েড গো এর জন্য ৫১২ মেগাবাইট মিনিমাম রিকোয়ারমেন্ট ছিল, কিন্তু বর্তমানে সেটাকে বাড়িয়ে ১জিবি করা হয়েছে। সাথে, স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড্রয়েড ১০ বা ১১ সাপোর্ট করাতে চাইলে অবশ্যই ফোনের র‍্যাম ২জিবি হতেই হবে। তবে বর্তমান মার্কেটে থেকে ২ জিবি বা কম র‍্যামের ফোনে স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড্রয়েড ই থাকবে, গো এডিশনে মুভ করে দেওয়া হবে না।

যেহেতু, স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড্রয়েড রান করানোর জন্য গুগল লিমিট বেঁধে দিচ্ছে, তাই কমপক্ষে ২জিবি র‍্যাম তো থাকতেই হবে। এতে ফোন আগের থেকে বেশি ফাস্ট কাজ করবে।



WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Image: Shutterstock.com