বেস্ট ওয়েবসাইট সিরিজ : ৫ টি প্রয়োজনীয় এবং মজার ওয়েবসাইট [পর্ব-৮]

বেস্ট ওয়েবসাইট

যদিও ইন্টারনেট আর ওয়েব আলাদা জিনিস—তারপরেও ইন্টারনেটে আমরা বেশিরভাগ সময় ওয়েবেই কাটিয়ে থাকি। নানান কাজের জন্য রয়েছে নানান ওয়েবসাইট গুলো। দুনিয়ার এমন কিছু কিছু ওয়েব সাইট রয়েছে যেগুলো আপনি হয়তো কখনো কল্পনা পর্যন্ত করেন নি। যাই হোক, আজকের আর্টিকেলে এমন কিছু বেস্ট ওয়েবসাইট নিয়ে আলোচনা করবো যেগুলো আজব তো নয়, কিন্তু অনেক কাজের, প্রায় প্রতিনিয়ত বিভিন্ন কাজে আমি এই সাইট গুলোকে ব্যবহার করে থাকি।

আজকে কয়েকটি ভালো ওয়েবসাইট সম্পর্কে আলোচনা করবো যেগুলো আপনার কাজে আসতে পারে। এই  লিস্টের মধ্যে খুবই দরকারি ওয়েবসাইট থেকে শুরু করে শুধুমাত্র মজার জন্য তৈরী ওয়েবসাইট পর্যন্তও আছে. হতে পারে আপনাদের মধ্যে অনেকেই এই ওয়েবসাইটগুলোর ব্যাপারে আগে থেকেই জানেন এবং আগে থেকে ব্যাবহারও করে আসছেন। নিচে বলা ওয়েবসাইট গুলোর নাম যদি আপনি আগে থেকেই জেনে থাকেন বা আগেই ব্যাবহার করা থাকেন, তাহলে আপনি লেখাটি এড়িয়ে যেতে পারেন। আর যদি না জেনে থাকেন, তাহলে শেষ পর্যন্ত পড়ুন। আশা করি আজকের আর্টিকেল থেকে আপনি অন্তত ভালো কয়েকটি ওয়েবসাইটের নাম জানতে পারবেন যেগুলো আপনার ভবিষ্যতে দরকার হতে পারে।

আমাদের বেস্ট ওয়েবসাইট সিরিজের পূর্ববর্তী আর্টিকেলগুলো নিচে দেওয়া লিংক থেকে পড়তে পারেন যদি আপনি এখনো না পড়ে থাকেন-

→ বেস্ট ওয়েবসাইট : যেগুলো প্রত্যেকদিনই দরকার হতে পারে [পর্ব-১]

→ ৫টি বেস্ট উইন্ডোজ ফ্রী সফটওয়্যার ডাউনলোডিং ওয়েবসাইট [পর্ব-২]

→ বেস্ট ওয়েবসাইট : ৫ টি প্রয়োজনীয় এবং মজার ওয়েবসাইট! [পর্ব-৩]

→ বেস্ট ওয়েবসাইট : ৫ টি প্রয়োজনীয় এবং মজার ওয়েবসাইট! [পর্ব-৪]

→ বেস্ট ওয়েবসাইট : ৫ টি প্রয়োজনীয় এবং মজার ওয়েবসাইট! [পর্ব-৫]

→ বেস্ট ওয়েবসাইট : ৫ টি প্রয়োজনীয় এবং মজার ওয়েবসাইট! [পর্ব- ৬]

→ বেস্ট ওয়েবসাইট : ৫ টি প্রয়োজনীয় এবং মজার ওয়েবসাইট! [পর্ব- ৭]

তো আর কথা না বাড়িয়ে, চলুন শুরু করা যাক এই সিরিজের অষ্টম পর্ব

Seedr

এটি অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি ওয়েবসাইট যেটির ব্যাপারে ইতমধ্যেই আপনাদের মধ্যে অনেকেই জেনে থাকবেন। এই ওয়েবসাইটটি মূলত খুব সহজেই টরেন্ট ফাইল ডিরেক্ট ডাউনলোড করতে সাহায্য করবে। টরেন্ট ডাউনলোডের সময় অনেকেই আইএসপি সম্পর্কিত সমস্যার কারনে স্লো ডাউনলোড স্পিড পেয়ে থাকেন। এছাড়া টরেন্ট ক্লায়েন্ট ব্যাবহার করে টরেন্ট ডাউনলোডের প্রোসেসটিকে অনেকের কাছেই বেশ ঝামেলার মনে হয়। সেক্ষেত্রে আপনি এই ওয়েবসাইটটি ব্যাবহার করে যেকোনো ধরনের টরেন্ট ফাইল ডিরেক্ট ডাউনলোড করতে পারবেন অন্যান্য সাধারন ফাইলের মতো করেই।

Seedr ওয়েবসাইটে একটি ফ্রি ইউজার অ্যাকাউন্ট ক্রিয়েট করে আপনি ২ জিবি ফ্রি স্পেস পাবেন যেখানে আপনি যেকোনো টরেন্ট ফাইল সেভ করতে পারবেন এবং পরবর্তীতে ফাইলটি ডিরেক্ট ডাউনলোড করতে পারবেন আপনার প্রিয় যেকোনো ব্রাউজার কিংবা যেকোনো ডাউনলোড ম্যানেজার ব্যাবহার করে। তবে এক্ষেত্রে লিমিটেশন হচ্ছে, আপনাকে আপনার অ্যাকাউন্টে থাকা স্পেসেই টরেন্ট ফাইলটি সেভ করতে হবে। তাই ফ্রি ইউজার হিসেবে সর্বোচ্চ ২ জিবি সাইজের ফাইলই আপনি সেভ এবং ডাউনলোড করতে পারবেন।

বেস্ট ওয়েবসাইট

ডাউনলোড করার জন্য আপনাকে জাস্ট আপনার কাঙ্খিত টরেন্ট ফাইলের ম্যাগনেট লিংকটি Seedr এর ড্যাশবোর্ডে থাকা Add Link বক্সে ইনপুট করতে হবে অথবা অরিজিনাল ফাইলের .torrent মিনি ফাইলটি Seedr এর ড্যাশবোর্ডে আপলোড করতে হবে। তাহলেই Seedr আপনার কাঙ্খিত ফাইলটি কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই তাদের সার্ভারে সেভ করে নেবে। এরপর আপনি ফাইলটির ডিরেক্ট ডাউনলোড লিংক জেনারেট করে ফাইলটি আপনার ইচ্ছামত ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

ফ্রি ইউজারদের দেওয়া ২ জিবি স্পেস একটি এইচডি মুভি কিংবা একটি সিরিজের কয়েকটি এপিসোড করার জন্য যথেষ্ট। এছাড়া আপনি চাইলে সেভ করা টরেন্ট ফাইলটি ডাউনলোড করার পরে Seedr এর স্টোরেজ থেকে ডিলিট করে আপনার ২ জিবি স্পেস আবার ফাঁকা করে নিতে পারবেন এবং নতুন ফাইল সেভ করতে পারবেন। এছাড়াও আপনি চাইলে Seedr এর ব্যাপারে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে এবং অন্যদের রেফার করে আরও বেশি স্পেস ফ্রি পেতে পারবেন।

PhotoPea

এটি একটি অনলাইন ফটো এডিটর টুল। তবে এটি অন্যান্য যেকোনো অনলাইন ফটো এডিটরের থেকে অনেক বেশি অ্যাডভান্সড এবং ফিচার প্যাকড। ইউজার ইন্টারফেস দেখলেই বুঝবেন যে, এটি প্রায় অ্যাডোব ফটোশপের অনলাইন ভার্সন। আপনার বা আমার মত একজন বেসিক ইউজারের ফটোশপে যে ধরনের কাজ থাকতে পারে, তার সবকিছুই আপনি এই ওয়েবসাইটটিতে থাকা ওয়েব অ্যাপ ব্যাবহার করে সেরে ফেলতে পারবেন।

হ্যা, অবশ্যই আপনি যদি একজন প্রোফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইনার হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় সব ধরনের টুলস পাবেন না এই ওয়েবসাইটটিতে। তবে যেকোনো অ্যাভারেজ ফটোশপ ইউজারের জন্য এই ওয়েব অ্যাপটি যথেষ্ট বলে মনে করি আমি। এছাড়া ওয়েবসাইটটির ইউজার ইন্টারফেসও একেবারেই অ্যাডোব ফটোশপের মতোই। প্রোগ্রেসিভ ওয়েব অ্যাপ হওয়ায় এটি ফটোশপের মতো এত রিসোর্স হাংরিও নয়, অত্যন্ত লাইটওয়েট এবং ফাস্ট। ওয়েবসাইটটি ব্রাউজারে বুকমার্ক করে রাখতে পারেন। যদি কখনো কোনো কাজের জন্য ফটোশপের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন, তাহলে এই ওয়েবসাইটটি ওপেন করে ট্রাই করে দেখতে পারেন।

Poki

এবার একটি মজার ওয়েবসাইট নিয়ে কথা বলা যাক। এই ওয়েবসাইটটিও হয়তো অনেকেই চিনে থাকবেন। যারা টাইম পাস করার জন্য মিনি গেমস খেলতে পছন্দ করেন, তাদের জন্য খুবই ভালো ওয়েবসাইট এটি। এছাড়া, এই ওয়েবসাইটটি দেখলে আপনি একটি পারফেক্ট উদাহরন পাবেন যে, ওয়েব অ্যাপস আসলে কতটা উপযোগী এবং ফিউচারে ওয়েব অ্যাপস টেকনোলজি ব্যাবহার করে আরও কি কি করা সম্ভব হতে পারে। এই ওয়েবসাইটটিতে আপনি কোনো অ্যাপ বা কোনো ধরনের কোনো ক্লায়েন্ট ইন্সটল না করেই অসংখ্য মিনি মোবাইল গেমস খেলতে পারবেন, যেগুলো খেলার জন্য আগে গেমগুলো আলাদা আলাদা করে ইন্সটল করার দরকার পড়তো।

আপনি এই সকল মিনি গেমস জাস্ট আপনার ওয়েব ব্রাউজারের ভেতরেই খেলতে পারবেন। শুধু যেকোনো মিনি গেমসই নয়, মোবাইল প্লাটফর্মের সবথেক জনপ্রিয় মিনি গেমস যেমন- সাবওয়ে সার্ফারস, ক্রসি রোড, কাট দ্যা রোপ এই ধরনের অনেক গেমসই খেলতে পারবেন কোনোরকম ইন্সটলেশন ছাড়াই। ডেস্টপে মাউস কার্সর ব্যাবহার করে এবং মোবাইল ফোনে টাচস্ক্রিন ব্যাবহার করে, দুইভাবেই খেলতে পারবেন এই গেমগুলো। টাইম পাস করার জন্য অথবা কখনো ক্লাসিক মিনি গেমস খেলার ইচ্ছা হলে চলে যেতে পারেন এই ওয়েবসাইটে।

SnapDrop

এই ওয়েবসাইটটি আমার মতে, লোকাল ফাইল শেয়ারিং এর জন্য বেস্ট সল্যুশন। এই ওয়েবসাইটটি খুবই সহজ এবং সাদামাটা। এমনকি কোন অপশন বা ইউজার ইন্টারফেসই নেই। এই ওয়েবসাইটটির সাহায্যে আপনি একই ওয়াইফাই নেটওয়ার্কে কানেক্টেড থাকা দুটি ডিভাইসের মধ্যে যেকোনো ফাইল শেয়ার করতে পারবেন, যেমনটা আমরা করে থাকি শেয়ারইট বা এই ধরনের অন্যান্য অ্যাপস ব্যাবহার করে। তবে এক্ষেত্রে কোনো অ্যাপ ইন্সটল করারই দরকার হবেনা। একই নেটওয়ার্কের আন্ডারে থাকা দুটি ডিভাইসে Snapdrop ওয়েবসাইটটি ওপেন করলেই ডিভাইসদুটি একে অপরকে ডটেক্ট করবে এবং একটি থেকে আরেকটিতে যেকোনো ফাইল ট্রান্সফার করা যাবে।

এক্ষেত্রে ট্রান্সফার স্পিড নির্ভর করবে আপনার রাউটারের এবং আপনার ডিভাইসের ম্যাক্সিমাম ট্রান্সফার স্পিডের ওপরে। তবে যেকোনো ফাইল ট্রান্সফার করার আগে যেহেতু ওয়েবসাইটটি লোড করতে হচ্ছে, তাই আনলিমিটেড ইন্টারনেট কানেকশন ছাড়া কোনো ফাইল ট্রান্সফার করা যাবে না। ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ইউজারদের জন্য এটি অত্যন্ত উপযোগী এবং সহজ একটি ফাইল ট্রান্সফার টুল।

ImageOnline

এটিও ইমেজ বেজড আরেকটি অনলাইন টুল, যেখানে আমি ইমেজ এডিট করতে পারবেন। তবে এটি ফটোশপ কিংবা ওপরে দেওয়া ওয়েবসাইটটির মতো কোন ফুল ফিচারড ইমেজ স্টুডিও নয়। বরং এই ওয়েবসাইটটিতে বেশ কিছু ছোট ছোট ইমেজ এডিটিং টুলস আছে, যেগুলো একেকটি একেক ধরনের কাজ করতে থাকে। এই ওয়েবসাইটের টুলসগুলো মূলত সেসব কাজের জন্য তৈরি করা, যেসব কাজ ফটোশপের মতো বড় ফটো ষ্টুডিওতে বা অন্যান্য সফটওয়্যারে করতে সময়ের দরকার হয়। তবে এই ওয়েবসাইটটিতে সেসব কাজ এক ক্লিকেই করা সম্ভব।

কোনো ইমেজ সার্কুলার শেপে ক্রপ করা, ফটোতে ওয়াটারমার্ক যোগ করা, ইমেজ স্প্লিট এবং মার্জ করা, সাইজ ছোট করা, ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করা, পেন্সিল স্কেচ করা, সেন্সর করা, পিক্সেলেট করা থেকে শুরু করে আরও অনেক ওয়ান ক্লিক এডিটিং টুলস আছে এই ওয়েবসাইটটিতে, যেগুলো বেশ ভালোভাবেই কাজ করে এবং একজন সাধারন ইউজারকে খুশি করতে যথেষ্ট। এই ওয়েবসাইটটিও বুকমার্ক করে রাখতে পারেন, কারণ এখানে থাকা টুলসগুলো যেকোনো ইউজারেরই দরকার হতে পারে।


তো এই ছিল আরো পাঁচটি ইউজফুল এবং মজার ওয়েবসাইট। বেস্ট ওয়েবসাইট সিরিজের পরবর্তী আর্টিকেলে আরো এমন পাঁচটি ওয়েবসাইট নিয়ে আলোচনা করবো আশা করি। আশা করি আজকের আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগেছে। কোনো ধরণের প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট সেকশনে জানাবেন। আর আপনার কাছে যদি এমন ধরণের আরো ওয়েবসাইট এর কালেকশন থাকে, তাহলে সেগুলোর মধ্যে কয়েকটিও আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন কমেন্ট সেকশনে। আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। ভালো থাকবেন এবং বাসায় থাকবেন!



WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Images: WiREBD

সিয়াম
অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ ছিলো এবং হয়তো সেই আকর্ষণটা আরো সাধারন দশ জনের থেকে একটু বেশি। নোকিয়ার বাটন ফোন থেকে শুরু করে ইনফিনিটি ডিসপ্লের বেজেললেস স্মার্টফোন, সবই আমার প্রিয়। জীবনে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততোটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। আর এই প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ থেকেই লেখালেখির শুরু.....