অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ সিরিজ : ৫ টি বেস্ট অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ [পর্ব-৮] [২০২০]

পর্ব-৮


অ্যাপস তো আমরা সবাই চিনি এবং প্রত্যেকদিনই ব্যবহার করি। অ্যাপস ছাড়া একটি অপারেটিং সিস্টেম কল্পনাই করা যায়না। টেকনিক্যালি বলতে গেলে অ্যাপসই হচ্ছে একটি অপারেটিং সিস্টেমের প্রাণ। একটি অপারেটিং সিস্টেমে বিভিন্ন কাজের জন্য বিভিন্ন রকম অ্যাপস থাকে। নেট ব্রাউজ করার জন্য ব্রাউজার অ্যাপস, গান শোনার জন্য মিউজিক প্লেয়ার অ্যাপস, ডকুমেন্ট এডিট করার জন্য মাইক্রোসফট ওয়ার্ড বা গুগল ডক, ছবি এডিট করার জন্য ফটো এডিটর অ্যাপস এবং এমন শত শত কাজের জন্য হাজারো অ্যাপস থাকে একটি  অপারেটিং সিস্টেমে।

আর অপারেটিং সিস্টেমটি যদি হয় অ্যান্ড্রয়েড, তাহলে তো কথাই নেই, প্লে স্টোরে একই কাজের জন্য কমপক্ষে ১০০ রকমের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস পাবেন। যাইহোক, আর বেশি ভূমিকা না করে কাজের কথায় আসি। আজকে আমাদের বেস্ট অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস সিরিজের অষ্টম পর্বে আরো ৫ টি এমন অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস শেয়ার করবো যেগুলো আপনার বা আমার জন্য প্রয়োজনীয় হতে পারে।


MStudio

সহজ কথায় বলতে গেলে, এটি একটি মিউজিক এডিটর। বেসিক মিউজিক এডিটিং এর জন্য অ্যান্ড্রয়েডের ওয়ান অফ দ্যা বেস্ট চয়েজ এই অ্যাপটি। এখানে বেসিক মিউজিক এডিটিং এর জন্য প্রায় সব ধরনের টুলস পাবেন। অডিও ট্রিমার, অডিও মিক্সার, অডিও মার্জার, রেকর্ডার সব ধরনের টুলস আলাদা আলাদা ট্যাবে দেখতে পাবেন।

প্রত্যেকটি সিঙ্গেল টুলস আলাদা আলাদা থাকায় এই অ্যাপটির ইউজার ইন্টারফেস অত্যন্ত সহজ এবং ইজি-টু-নেভিগেট। অনেকেই কোনো ভিডিও থেকে শুধুমাত্র মিউজিকটি এক্সট্রাক্ট করার জন্য পারফেক্ট অ্যাপস বা টুলস খোঁজেন। এই স্টুডিও অ্যাপটিতে ভিডিও থেকে মিউজিক আলাদা করার জন্যও ডেডিকেটেড টুল পাবেন। আপনার  প্রায় সবধরনের মিউজিক এডিটিং নিডই এই অ্যাপটির ফ্রি ভার্শন পূরণ করতে সক্ষম। তবুও অ্যাপটির প্রো ভার্শন পারচেজ করলে আরও অনেক পাওয়ারফুল এডিটিং টুলস এবং অপশনস পাবেন যেগুলো ফ্রি ভার্শনে এভেইলেবল নয়।

 

ডাউনলোড

Skit

এটি একটি আনইন্সটলার অ্যাপ। এই সিরিজের লাস্ট পোস্টেও একটি আনইন্সটলার অ্যাপ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। তবে এই আনইন্সটলার অ্যাপটি কিছুটা আলাদা এবং বেশি ফিচার-প্যাকড। আগের অ্যাপটির মত এই অ্যাপের সাহায্যেও আপনি একবারে অনেকগুলো অ্যাপ আনইন্সটল করতে পারবেন একবারে মার্ক করে। এছাড়া, প্রত্যেকটি অ্যাপের টাইটেলে ক্লিকভ করে অ্যাপটি সম্পর্কে যাবতীয় আরও অনেক ইনফরমেশন জানতে পারবেন। যেমন- অ্যাপটি কতটুকু স্পেস কনজিউম করছে, কতটুকু রিসোর্স ব্যবহার করছে, কি কি সার্ভিস ক্রিয়েট করছে, কি ধরনের সার্টিফিকেট ব্যবহার করছে এবং কি কি পারমিশনস চাইছে। এই ধরনের সকল ইনফরমেশন জানতে পারবেন।

এছাড়াও এই অ্যাপটি ব্যবহার করে আপনি আপনার ইন্সটলড সকল অ্যাপ এর ব্যাকআপ অর্থাৎ APK ফাইল তৈরি করতে পারবেন। ইন্সটলড অ্যাপ ছাড়াও ইভেন সিস্টেম অ্যাপসেরও ব্যাকআপ তৈরি করতে পারবেন। ম্যাটেরিয়াল ডিজাইন ২ এর ওপরে বেজ করে তৈরি এই অ্যাপটির ইউজার ইন্টারফেসও খুবই সুন্দর এবং ইজি-টু-ইউজ।

 

ডাউনলোড

SplitCloud

এই অ্যাপটি জাস্ট একটি মিউজিক প্লেয়ার হলেও এটিতে মিউজিক প্লে করার পাশাপাশি আরও একটি ইউনিক ফিচার আছে যেগুলো আমার জানামতে আর তেমন কোন মিউজিক প্লেয়ারে নেই। আমরা অনেকেই হয়ত সাথে ট্র্যাভেল করার সময় হেডফোনে গান শুনে থাকি। অনেকসময় দেখা যায় দুটি হেডফোন সঙ্গে না থাকায় একটি হেডফোনই দুইজনকে ব্যবহার করতে হয় একসাথে। তখন নিজের চয়েজ অনুযায়ী গান শোনার সুযোগ থাকে না যেহেতু একটি হেডফোন ২ জন শেয়ার করে ব্যাবহার করছেন।

যাইহোক, এই মিউজিক প্লেয়ারটি ব্যবহার করে আপনি হেডফোন স্প্লিট করতে পারবেন। অর্থাৎ, হেডফোনের লেফট এবং রাইট ২ টি স্পিকার থেকে ২ টি আলাদা আলাদা মিউজিক প্লে করতে পারবেন যা সাধারনত অন্য কোন মিউজিক প্লেয়ার ব্যবহার করে করা সম্ভব নয়। এটাই এই অ্যাপটির স্ট্যান্ড-আউট ফিচার। আপনার স্পোটিফাই সাবস্ক্রিপশন থাকলে স্পোটিফাই থেকে সরাসরি মিউজিক প্লে করতে পারবেন এবং চাইলে আপনার ফোনের লোকাল মিউজিক লাইব্রেরি থেকেও মিউজিক প্লে করতে পারবেন।

ডাউনলোড

Microsoft Math Solver

টাইটেল শুনেই নিশ্চই ধারনা করতে পারছেন যে এই অ্যাপটির কাজ কি এবং অ্যাপটির ডেভেলপার কে। মাইক্রোসফট গ্যারাজের তৈরি এই অ্যাপটি ব্যবহার করে আপনার দরকারি প্রায় সব ধরনের ম্যাথ প্রবলেম সল্ভ করতে পারবেন। তবে, শুধুমাত্র বীজগণিতের ক্ষেত্রেই এই অ্যাপটি কাজ করবে। আপনার চাইলে আপনার ক্যামেরার সাহায্যে যে ম্যাথ প্রবলেমটি সল্ভ করতে চাইছেন সেটির ছবি তুলে অ্যান্সার দেখতে পারবেন, আবার চাইলে ম্যানুয়ালি নিজে টাইপ করেও কাঙ্খিত ম্যাথ প্রবলেমের সল্যুশন জানতে পারবেন।

যদিও ১০০% সকল ম্যাথ প্রবলেম এই অ্যাপটি সল্ভ করতে পারে না, তবে মোটামুটি অধিকাংশ প্রবলেমের সল্যুশনই আপনি পেয়ে যাবেন এই অ্যাপটি ব্যবহার করে। দ্বিঘাত সমীকরণ, ত্রিকোণমিতি, ডিফারেন্সিয়েশন, লগারিদম, সমাকলন ইত্যাদি সবথেকে কমন ম্যাথ প্রবলেম খুব সহজেই সল্ভ করতে পারে এই অ্যাপটি। এছাড়া, ক্যালকুলেটরের সাথে এই অ্যাপটির পার্থক্য হচ্ছে, ম্যাথের উত্তরের পাশাপাশি ম্যাথটি সল্ভ করার প্রত্যেকটি স্টেপও আপনাকে দেখিয়ে দেবে এই অ্যাপটি। মাইক্রোসফট গ্যারাজের অ্যাপ হওয়ায় এই অ্যাপটি সম্পূর্ণ অ্যাড-ফ্রি।

 

ডাউনলোড

 Skip Ads

এটি খুবই ছোট সিম্পল একটি অ্যাপ, যেটার নিজের তেমন কোন কাজই নেই। এই অ্যাপটি শুধুমাত্র একটি টুল হিসেবে কাজ করে ইউটিউব অ্যাডস স্কিপ করার কাজে। ইউটিউবে ভিডিও দেখার সময় অনেকসময় ভিডিও শুরুর আগে ৩০ সেকেন্ডের একটি বিরক্তিকর ভিডিও অ্যাড দেখে থাকবেন যেটিকে ৫ সেকেন্ড পরে স্কিপ করা যায়। অনেকসময় লং ভিডিওগুলোর মাঝখানেও এই ধরনের অ্যাডস দেখতে পাওয়া যায়। কিন্তু কোন বড় ডকুমেন্টরি কিংবা কোন নাটক বা মুভি দেখার সময় বারবার এই ধরনের অ্যাডস বারবার ৫ সেকেন্ড পরপর Skip ক্লিক করে স্কিপ করা খুবই বিরক্তির কাজ।

তাই এই সিম্পল টুলটি আপনার হয়ে আপনার এই ধরনের ইউটিউব অ্যাডসগুলোকে স্কিপ করে দেবে। একবার অ্যাক্টিভেট করে নেওয়ার পরে এই অ্যাপটি সবসময় এর জন্য ব্যাকগ্রাউন্ডে রান করবে এবং ইউটিউব ভিডিও দেখার সময় যখনই এই ধরনের ৩০ সেকেন্ডের অ্যাড প্লে হবে, ৫ সেকেন্ড পরে অ্যাডটি নিজেই স্কিপ করে দেবে আপনার হয়ে। এছাড়া এই অ্যাপে আরও কিছু ইনফরমেশন পাবেন। যেমন, আপনি প্রত্যেকদিন কতক্ষন ইউটিউব দেখছেন, কতবার ইউটিউব ওপেন করেছেন, কতগুলো ভিডিও অ্যাড স্কিপ করেছেন ইত্যাদি।

 

ডাউনলোড

এই ছিল আরও পাঁচটি অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস যেগুলো আপনার কাছে প্রয়োজনীয় হতে পারে। এই সিরিজের আগামী পর্বে আরও পাঁচটি অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ শেয়ার করা হবে। আজকের মত এখানেই শেষ করছি। আশা করি আজকের আর্টিকেলটিও আপনাদের ভালো লেগেছে।

কোনও ধরনের প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট সেকশনে জানাবেন। আর আপনার জানামতে যদি এমন ভালো আরও কোনও অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ থাকে, তাহলেও নিচে কমেন্ট সেকশনে আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন। তাহলে আমরা ওই অ্যাপটি নিয়েও পরবর্তী পর্বে আলোচনা করবো।

 


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

 

সিয়াম
অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ ছিলো এবং হয়তো সেই আকর্ষণটা আরো সাধারন দশ জনের থেকে একটু বেশি। নোকিয়ার বাটন ফোন থেকে শুরু করে ইনফিনিটি ডিসপ্লের বেজেললেস স্মার্টফোন, সবই আমার প্রিয়। জীবনে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততোটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। আর এই প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ থেকেই লেখালেখির শুরু.....