জন উইক (John Wick): চ্যাপটার ৩ (Chapter 3) — প্যারাবেলাম (Parabellum) [মুভি রিভিউ!]

কয়েকদিন আগেই আমি একটা মুভির রিভিউ দিয়েছিলাম,এবং বলেছিলাম যে ওইটাই ২০১৯ সালের সেরা একশন মুভি।মুভির নাম ছিল অ্যালিটা: ব্যাটেল অ্যাঞ্জেল। যারা মুভিটা দেখেছেন তারা নিশ্চয় একমত হবেন,যদি না…… যদি না কি?

যদি না আপনি জন উইক এর তিন নাম্বার চ্যাপ্টার দেখে না থাকেন। হ্যা, জন উইক চ্যাপ্টার থ্রি দেখার পর এটা নির্দ্ধিধায় বলা যায় যে এই বছরের সেরা একশন মুভিতে জন উইককে টেক্কা দেওয়ার মত কোন মুভি নাই 😀 (আপাতত)।

জন উইক চ্যাপ্টার থ্রি এর গল্প শুরু হয়েছে ঠিক সেখান থেকেই যেখান থেকে জন উইক চ্যাপ্টার টু এর সমাপ্তি। আগের দুটো মুভি দেখা থাকলে আপনার জানা কথা সেকেন্ড চ্যাপ্টারে দ্য বুগিম্যান আন্ডারওয়ার্ল্ডের আতংক বাবা ইয়াগা,জোনাথন উইক ওরফে জন উইক হোটেল কন্টিনেন্টালের ভিতরে খুন করে,হাই টেবিলের নিয়ম ভঙ্গ করে।

তার পর তার নামে জারি হয় মরণ ফতোয়া। তার মাথার দাম এখন ১৪ মিলিয়ন ডলার।যা ১৫ মিলিয়নে উন্নিত হয়। এরকম বাউন্টি তো আর রোজ রোজ পাওয়া যায় না,তাই জাতি-ধর্ম-বর্ন নির্বিশেষে বিশ্বের সব এসাসিন একত্রে উঠে পড়ে লেগেছে জন উইককে মারার জন্যে!

এদিকে জন উইক একা। আহত,বিধ্বস্ত,মাথার উপর হাজারো এসাসিনের চোখ। কতজনকে ফাঁকি দিতে পারবে??কজনকেই মারবে? কতদূর যেতে পারবে?? হাই টেবিলের নিয়ম অলংগনীয়। কেউ তাতে আশ্রয় দিবে না।যে দিবে তার কপালে জুটবে একটাই জিনিস। মৃত্যু!

অসাধারণ একটা মুভি! সাধারনত যারা মোটামুটি সবধরনের মুভিই দেখেন তারা খেয়াল করলে দেখে থাকবেন ড্রামা-থ্রিলার-ফ্যান্টাসি জন্রার মুভি গুলোর থেকে একশন মুভিগুলো হুব একটা যত্ন নিয়ে বানানো হয় না। কোনমতে একটা গল্প ঢুকিয়ে দিয়েই দুড়দ্দাড় একশন দিয়ে মুভি শেষ ক্রে দেওয়া হয়। এদিক দিয়ে ব্যতিক্রমি সংযোজন হলো জন উইক! পরিচালক খুবই যত্ন করে বানানোর চেষ্টা করেছেন তার উপর এই সিরিজের আগের দুটো মুভিকেও ছাড়িয়ে যাওয়ার একটা তাড়না তো ছিলই। আমি যে প্রিন্টে দেখেছি (720p HDRIP) তাতে মনে হয়েছে জন উইক চ্যাপ্টার থ্রি আগের দুটোর মতই ডার্ক টোনে বানানো।

জন উইকের আকর্ষন তার একশনে। আগের দুটোর থেকে ৩ গুণ বেশী মারামারি,গোলাগুলি, আর লাগামহীন একশনে ভরপুর! এর এই মারামারিতে তো আছে ভ্যারিয়েশন। মার্শাল আর্ট কমব্যাট,নাইফ থ্রোয়িং সিকোয়েন্স, নিনজা একশন,নিউ ইয়র্ক এর রাস্তায় ঘোড়া নিয়ে ওয়েস্টার্ণ স্ট্যাইলে গুন্ডা পান্ডাদের পিঠিয়ে ছাতু বানানো কিছু বাদ নাই।!

সিনেমাটোগ্রাফি একশন সিনেমা হিসেবে জনউইককে নিয়ে গেছে অন্য উচ্চতায়। ওয়াইড এংগেল শুটিং,ক্লোজ হ্যান্ড টু হ্যান্ড কমব্যাট,আগামিতে বের হওয়া একশন মুভি গুলোর জন্যে জন উইক নিজস্ব একটা প্যারামিটার ক্রিয়েট করে দিয়েছে বলাই যায়। আজাইরা ফালতু ভিএফএক্স আর,আর সিজিয়াই ম্যানিপুলেশন নাই বললেই চলে। তাই অনেক রিয়ালিস্টিক ফিল পাওয়া যায়!

আর ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ছিল ফাকিং অওসাম। গুজবাম্পে ভরপুর।আমার তো চোখ বন্ধ করলেই এখনো গুলির আওয়াজে কান ঝালাপালা হয়ে যাচ্ছে!

একবাক্যে যদি যদি বলি? দিজ মুভি ওয়াজ দ্য ফাকিং ক্রেইজি! একটা পেন্সিল দিয়ে তিনজনকে খুন করা জনউইক এবার ও তার ক্যালমা দেখিয়েছেন জাস্ট বই দিয়ে খুন-খারাবি করে। আমার মনে হয় সামনে জোনাথন উইক এর সলো অরিজিন মুভি বের করা দরকার। উথান নিয়ে, বাবা ইয়াগা টাইটেল পাওয়ার গল্প নিয়ে!

দেখতে চাইলে টরেন্টে আছেই। বাংলা সাবটাইটেল ও এভেলেইবল। ডাউনলোড করতে না পারলে নক দিতে পারেন।
আদারওয়াইজ হ্যাপি ওয়াচিং!



WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Images: Lionsgate

আরভিন আহমেদ
মুভি,টিভি-সিরিজ লাভার! প্রচন্ড অলস প্রকৃতির এই লোক ঠিক করেছেন তিনি সারাজীবন মুভি আর সিরিজ দেখেই কাটিয়ে দিবেন!