ভারত আনে নেনু (Bharat Ane Nenu) : ব্লকবাস্টার হিট তেলেগু মুভি! [মুভি রিভিউ]

ভারত আনে নেনু (Bharat Ane Nenu) একটি পলিটিক্যাল জনরার মুভি। আমি সাউথের খুব বেশী পলিটিক্যাল জনরার মুভি দেখিনি, তবে আমার মনে হয়েছে ভারত আনে নেনু নব্বইয়ের দশকের সাউথ ইন্ডাস্ট্রির হিট সিনেমা Mudhalvan এর আধুনিক সংস্করণ। আপনাদেরকে আরো জানিয়ে রাখছি, Mudhalvan ছবিটি পরবর্তীতে ডীরেক্টর শংকর রিমেক করেন Nayak নামে। যাতে মূল চরিত্রে ছিলেন, অনিল কাপুর ও রাণী মুখার্জী।

“ভারত আনে নেনু”র বাংলা অর্থ “ভারত মানে আমি” অথবা “আমি ভারত”। সিনেমাটির ডিরেক্টর কোরাটলা শিভা একই সংগে পরিচালনার পাশাপাশি চিত্রনাট্য ও লিখেছেন। মুভিটি দেখার পর আমার মনে হল, কোরাটলা শিভাকে এই দুটোর জন্যে প্লাস মার্ক দেওয়া যেতেই পারে। ভারত আনে নেনু ডিরেক্টর হিসেবে তার ৪র্থ সিনেমা। আগের তিনটি ছবির কাহিনি ও তিনি নিজেই লিখেছেন পরিচালনার পাশাপাশি এবং ভারত আনে নেনুর মত আগের তিনটি ব্লকবাস্টার হয়েছিলো।

মুভিতে মুল চরিত্র ভারত চরিত্রটি করেছেন সুপারস্টার মহেশ বাবু। সুপারস্টার বলছি কেন? কারন যারা সাউথ মুভির ভক্ত, তারা জানেন সাউথে নায়কের নামের আগে এক্সট্রা বিশেষন ব্যবহার করা খুবই ডালভাত ব্যাপার। তেমনি মহেশের নামের আগে সুপারস্টার এসেছে। দক্ষিনে মহেশ অনেক আগে থেকেই খুবই জনপ্রিয়। দুর্দান্ত অভিনয় গুণ ও স্ট্যাইলিশ লুকের কারনে তার বিশাল ফ্যানবেইজ আছে। নারী জাতি তো এইরকম একজন হ্যান্ডসাম+কিউট, ডিসেন্ট একটা ছেলের উপর জন্মের পর থেকেই ক্রাশ খেয়ে আছেন বলা যায়।

মহেশ বাবু স্ক্রিপ্ট এবং অভিনয়ে অনেক বেশী আত্মনিবেদন করছেন, যার ফলাফল ভারত আনে নেনুতে তার দুর্দান্ত অভিনয়। ভারত আনে নেনু ছবিতে মহেশের ডায়লগ ডেলিভারিগুলি খুবই ভাল ছিল। ডায়লগ ডেলিভারির যে টাইমিং তার মধ্যে আছে তা অন্য কারো মধ্যে কমই আছে। আর তার এই গুনের মোক্ষম ব্যবহার হয়েছে এই মুভিতে। ব্যক্তিগত ভাবে আমি মনে করি ডায়লগ নির্ভর মুভির জন্যে মহেশ খুবই মানানসই একজন অভিনেতা।

তবে এত আশার পাশাপাশি দুরাশার ব্যাপারটা হচ্ছে মহেশ তার কমফোর্ট জোন থেকে বের হচ্ছেন না! সেই বড়লোকের স্টাইলিশ ছেলে, অদম্য মেধাবী এই চরিত্রগুলোকে মহেশ একটা দুইটা ছবি পর পর রিপিট করছেন! গত কয়েক বছরে মহেশের ছবিগুলো ভাল ছিল না অতটা। তাই খুব একটা চলেও নাই। বিশেষ করে তার মত নায়কের স্টান্ডার্ড অনুযায়ী তো নয়ই। তার সেই সাফল্য খরা ঘুচলো এই ছবিটি দিয়ে। ছবিটা শুধু ব্লকবাস্টার হিটই নয়, গোটা তেলেগু ইন্ডাস্ট্রিতে ৪র্থ সর্বোচ্ছ আয় করা সিনেমার কাতারে চলে গেছে। তাই বলা যায় বিগত বছরের ব্যর্থতার পর এই সিনেমার ব্যবসায়িক সাফল্য তার জন্যে স্বস্তিদায়ক!

এছাড়া নায়িকার রোলে ছিলেন কাইরা আদভানী,আপনারা যারা নেটফ্লিক্সের দ্যা লাস্ট স্টোরিজ  দেখেছেন, তারা অবশ্যই তাকে ভালোভাবে চিনবেন, বিশেষ করে সেখানকার একটি ইরোটিক সিনের কারনে তিনি বেশ কিছুদিন ধরেই আলোচনায় ছিলেন। যদিও এই মুভিতে নায়িকার রোলের তেমন কোন প্রভাব ছিল না, তাই কাইরা আদভানির ক্যারেক্টার নিয়ে খুব একটা আলোচনার কিছু নেই। এছাড়া আরো একটু গুরুত্বপুর্ণ রোলে আছেন প্রকাশ রাজ। তাকে নিয়ে আসলে কিচ্ছু বলার নেই। তিনি ছিলেন বরাবরের মতই দুর্দান্ত।

তো এবার আসুন সিনেমার গল্প নিয়ে কিছু বলা যাক…

ছোটবেলায় দেশের বাইরে পড়তে যাওয়া ভারত হটাত জানতে পারে তার বাবা মারা গেছেন। খবর শুনে ফিরে আসেন তিনি এবং ভাগ্রক্রমে বনে যান অন্ধ্র প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী। জীবনেও রাজনীতি না জানা একটা ছেলে কিভাবে তার রাজ্যকে চালাবে? পাশে আছে শুধু তার বাবার সবচেয়ে পুরোনো ও কাছের বন্ধু ভারাদারাজু।

কিন্তু একটা রাজ্য বা দেশ চালাতে আসলে কতটুক্য রাজনীতি জানতে হয় নাকি নিজের ভেতরের সদিচ্ছাগুলোর প্রয়োগ ভালো হওয়াটা বেশি জরুরী? এই একটা প্রশ্নের ধোঁয়াশা কাটাতে দেখা গেছে এই মুভিতে। আর রাজ্য চালানোর জন্য তা হোক সে নিজ দলীয় বা বিরোধী দলীয় যেই হোক না কেনো স্বার্থের এক রমরমা বানিজ্যে আটকে আছে। সেখান থেকে বের হতে সবসময় অতিমানবীয় কিছু কি করতে হয় নাকি সাধারন ভাবেই চেষ্টা করলে সফল হওয়া যায় তারই চিত্র তুলে ধরা হয়েছে এই মুভিতে।

ভারত আনে নেনু, দেখার জন্যে একটা ভালো চয়েস হতে পারে আপনার জন্যে। স্টোরি টেলিং বা গল্প বলার ভংগিমা ছিল চমৎকার, এবং সেই সাথে আছে চমৎকার ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক,যা তেলেগু স্টান্ডার্ডই ছিল বলা যায়। যারা সাউথ লাভার আছেন তারা তো দেখবেনই তবে যারা এখনো দেখেনি তারা দেখে ফেলুন, সিনেমা দেখে হতাশ হবেন না।

এর হিন্দি ডাব আছে কিনা জানি না, থাকলে ও আপনাকে হিন্দি ডাব দিয়ে দেখতে উতসাহিত করবো না। কারন এর চমৎকার বাংলা সাবটাইটেল আছে। তাও একটি নয় দুইটি। সাবসিনে গিয়ে মুভির নাম লিখে সার্চ দিলেই পেয়ে যাবেন, আপনার কাংখিত সাবটাইটেল!

তো দেরি না করে দেখে ফেলুন, গত বছরের তেলেগুর ব্লকবাস্টার হিট ভারত আনে নেনু! হ্যাপি ওয়াচিং!



WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Image: DVV Entertainments and T-series

আরভিন আহমেদ
মুভি,টিভি-সিরিজ লাভার! প্রচন্ড অলস প্রকৃতির এই লোক ঠিক করেছেন তিনি সারাজীবন মুভি আর সিরিজ দেখেই কাটিয়ে দিবেন!