ইন্টারনেটব্রাউজার

ইনকগনিটো মোড আসলে কতোটা সিকিওর?

14

ব্রাউজারের ইনকগনিটো মোড বা সিক্রেট মোডের সাথে আমরা সবাই খুব ভালোভাবেই পরিচিত। এখনকার মডার্ন সব ডেক্সটপ ব্রাউজার এবং স্মার্টফোন ব্রাউজারেই ইনকগনিটো মোড থাকে। আমরা যখন ইন্টারনেটে খুবই পার্সোনাল কোন উদ্দেশ্যে কোন ওয়েবপেইজ বা ওয়েবসাইট ভিজিট করি বা এমন কোন সেন্সিটিভ বিষয়ে ইন্টারনেট ব্রাউজ করি যেটা আমরা চাই না যে আমরা ছাড়া অন্য কোন দ্বিতীয় ব্যাক্তি সেটা দেখতে পাক, তখন আমরা ব্রাউজারের ইনকগনিটো মোড বা ইনকগনিটো ট্যাব ওপেন করি এবং সেখানে আমাদের সব প্রাইভেট ব্রাউজিং এর কাজ শেষ করি এবং কাজ শেষে ইনকগনিটো উইন্ডোটি বা ট্যাবটি ক্লোজ করে দিই আর নিশ্চিত থাকি যে, আমরা কি ব্রাউজ করলাম সেটা আমরা নিজেরা ছাড়া আর কেউ জানতে পারবে না। কিন্তু সেটা কতোটা সত্যি? আজকে এই বিষয়টি নিয়েই আলোচনা করা যাক।

ইনকগনিটো মোড কিভাবে কাজ করে?

আপনি যখন আপনার ব্রাউজারের ইনকগনিটো উইন্ডো বা ট্যাব ওপেন করেন, তখন আপনার ব্রাউজার একটি নতুন ব্রাউজিং সেশন তৈরি করে যেখানে ব্রাউজারে আগে থেকে সেভ করা কোন ব্রাউজিং ক্যাশ, হিস্টোরি বা কোন কুকিজ আলাদা করে রাখা হয়। আর এই নতুন সেশনে আপনি যা যা ব্রাউজ করেন, তা থেকে জেনারেট হওয়া ক্যাশ এবং কুকিজ টেম্পোরারিভাবে এই নতুন ব্রাউজিং সেশনে সেভ করা হয়। আপনি যেই মুহূর্তে ইনকগনিটো মোড বা ইনকগনিটো ট্যাবটি ক্লোজ করে দেন, তখনই এই নতুন ব্রাউজিং সেশনটি শেষ হয়ে যায় এবং এই সেশনে জেনারেট হওয়া সমস্ত ক্যাশ,কুকিজ এবং হিস্টোরি সবকিছু ডিলিট করে দেওয়া হয়, যাতে এরপর অন্য কেউ এই ব্রাউজারটি ব্যাবহার করলে তার কাছে ইনকগনিটো মোডে ব্রাউজ করা কন্টেন্টগুলোর কোন ডাটার কোনরকম ট্রেস না থাকে।

ইনকগনিটো

তাই ব্রাউজারের ইনকগনিটো মোড অনেকক্ষেত্রে খুবই উপযোগী। যেমন- আপনি যখন আপনার ভিজিট করা কোন একটি ওয়েবসাইটে আপনার সেকেন্ডারি অ্যাকাউন্টের সাহায্যে লগিন করতে চান, তখন ইনকগনিটো মোড ব্যাবহার করে একই ওয়েবসাইটে আলাদা অ্যাকাউন্ট ব্যাবহার করতে পারেন। যেহেতু এখানে আপনার মেইন ব্রাউজারের কোন ডাটা ব্যাবহার করা হচ্ছে না, তাই এখানে আপনার কোন ওয়েবসাইটে লগিন থাকা অ্যাকাউন্টটিও থাকছে না। তাছাড়া আপনি যখন চাইছেন যে অ্যাডভারটাইজাররা আপনার ব্রাউজিং হ্যাবিট ট্র্যাক করে আপনাকে অ্যাড টারগেটিং না করুক, তখনও আপনি ইনকগনিটো মোড ব্যাবহার করতে পারেন। কারন, ইনকগনিটো মোড আপনার মেইন ব্রাউজারের কোন ব্রাউজিং ডাটা অ্যাক্সেস করতে পারছে না, যার ফলে অ্যাডভারটাইজাররাও আপনার ব্রাউজার ক্যাশ এবং আপনার ব্রাউজিং হ্যাবিট জানতে পারছে না এবং আপনার কাছে অ্যাড টারগেট করতে পারছে না।

ইনকগনিটো

আপনি ইনকগনিটো মোডে ইন্টারনেট ব্রাউজ করার সময় হয়তো খেয়াল করেছেন যে ইনকগনিটো ব্রাউজিং সেশন শুরু করার আগেই প্রায় সব ব্রাউজারে একটি ওয়ার্নিং মেসেজ দেওয়া হয় যে, যদিও ইনকগনিটো মোড আপনার মেইন ব্রাউজিং সেশনের কোন ক্যাশ বা  কোন কুকিজ বা কোন ডাটা অ্যাক্সেস করে না, তবে আপনার আইএসপি (ইন্টারনেট সার্ভিস  প্রোভাইডার), বা আপনার নেটওয়ার্ক প্রোভাইডার, আপনার এমপ্লয়ার নেটওয়ার্ক অ্যাডমিন এবং আপনি ইনকগনিটো মোডে যে ওয়েবসাইট ভিজিট করছেন সেই ওয়েবসাইটটির সার্ভার চাইলেই আপনাকে ট্র্যাক করতে পারবে। অর্থাৎ ইনকগনিটো মোড ব্যাবহার করলেও আপনার অ্যাক্টিভিটি এদের কাছ থেকে হিডেন থাকবে না। আপনি যদি এতদিন ভেবে থাকেন যে ইনকগনিটো মোডে আপনি কি ব্রাউজ করছেন তা সবার কাছ থেকে হিডেন থাকবে, তাহলে আপনি অনেক বড় ভুল ভেবেছেন।

কিন্তু কিভাবে?

এর কারন হচ্ছে, ইনকগনিটো মোড শুধুমাত্র সেই সকল ব্রাউজিং ডাটাগুলো ট্র্যাক না করার নিশ্চয়তা দেয়, যেগুলো আপনার ডিভাইসে লোকালি স্টোর হচ্ছে। অর্থাৎ কোন ওয়েবসাইট ব্রাউজ করার সময় আপনার ব্রাউজিং হ্যাবিট সম্পর্কে যেসব ডাটা আপনার নিজের ডিভাইসে স্টোর হচ্ছে, ইনকগনিটো মোড শুধুমাত্র সেই ডাটাগুলোকে ট্র্যাক না করার নিশ্চয়তা দিয়ে থাকে।

কিন্তু ইনকগনিটো মোডে ব্রাউজ করার সময়ও আপনি আপনার ভিজিট করা ওয়েবসাইটগুলোর সার্ভারের কাছে যে রিকুয়েস্ট সেন্ড করছেন বা সার্ভার থেকে যেসব রিকুয়েস্ট রিসিভ করছেন এই সমস্ত ট্র্যাফিক কিন্তু রাউট হচ্ছে আপনার আইএসপি কিংবা আপনার নেটওয়ার্ক প্রোভাইডারের  সার্ভার থেকেই। আপনি সাধারনভাবে ইন্টারনেট ব্রাউজ করলে আপনার রিকুয়েস্টগুলো সার্ভারের কাছে যেভাবে যেত, ইনকগনিটো মোড ব্যাবহার করলেও আপনার রিকুয়েস্টগুলো সার্ভারের কাছে এক্স্যাক্টলি সেভাবেই যাচ্ছে। ইনকগনিটো মোড বা সিক্রেট মোড ব্যাবহারের ফলে এখানে এক্সট্রা কোন ধরনের এনক্রিপশন বা এক্সট্রা কোন সিকিউরিটি যোগ হচ্ছে না (https বাদে)।

তাই আপনি ইনকগনিটো মোড বা সিক্রেট মোড যেটাই ব্যাবহার করেন না কেন, আপনার ব্রাউজিং ডাটা, আপনি কোন ওয়েবসাইট ভিজিট করেছেন, আপনার ইন্টারনেট অ্যাকটিভিটি খুব সহজেই ট্রেস করা সম্ভব। এখানে আপনার লাভ এইটুকুই হবে যে, আপনার পিসিটি অন্য আর যারা ব্যাবহার করে, তারা এসব ট্রেস করতে পারবে না। তাই ১০০% প্রাইভেসি পেতে চাইলে ইনকগনিটো মোডের পাশাপাশি একটি ভালো ভিপিএন সার্ভিস ব্যাবহার করা উচিৎ।

ইনকগনিটো

তাছাড়া, আপনি হয়তো জানেন না যে, প্রাইভেট ব্রাউজিং সেশন শেষ হয়ে গেলে আপনার ইনকগনিটো মোডের সকল ডাটা ব্রাউজার ১০০% নিরাপদভাবে ডিলিট করে না। ভালো একটি ডাটা রিকভারি টুল ব্যাবহার করে সহজেই এসব ডিলিটেড ব্রাউজিং ডাটা আবার রিকভার করা সম্ভব। তাছাড়া আপনার মেইন ব্রাউজারের কোনকিছুই যে আপনার ইনকগনিটো ব্রাউজিং সেশনকে কোনভাবেই অ্যাফেক্ট করতে পারবে না, সেটাও সম্পূর্ণ সত্যি নয়। ওয়েবসাইটের যেসব ফিচারস ইনকগনিটো মোডে কাজ করতে পারে, যেমন অ্যালাউ করা ব্রাউজার এক্সটেনশনস, অ্যাডোব ফ্ল্যাশ প্লেয়ার ইত্যাদি টুলস আপনার ইনকগনিটো মোডে ব্রাউজ করা ডাটা অ্যাক্সেস করতে পারে এবং ট্রেস করার ক্ষমতা রাখে। তাই সবসময় খেয়াল রাখবেন যে আপনি ইনকগনিটো মোডে কি কি ব্রাউজার এক্সটেনশন এবং ফিচারস এনাবল করে রেখেছেন। যদি প্রাইভেসি নিয়ে অনেক বেশি চিন্তিত হন, তাহলে অপ্রয়োজনীয় সব ফিচারস এবং এক্সটেনশন ইনকগনিটো মোডে ডিজেবল করে দিন।

তাছাড়া, আপনি ইনকগনিটো মোডে কি কি ওয়েবসাইট ভিজিট করেছেন, তার কিছু ডাটা (বিশেষ করে ওয়েবসাইটগুলোর আইপি অ্যাড্রেস) আপনার পিসির ডিএনএস ক্যাশেও স্টোর হয়ে যায় যেগুলো ব্রাউজার অটোমেটিক ডিলিট করেনা। তাই আপনি যদি সত্যিকারেই প্রাইভেসি নিয়ে চিন্তিত হয়ে থাকেন, তাহলে ইনকগনিটো ব্রাউজিং সেশন শেষ করার পরে পিসির কমান্ড প্রম্পট ওপেন করে ipconfig/flushdns কমান্ড অ্যাপ্লাই করে আপনার ডিএনএস রেকর্ডগুলো মুছে ফেলা একটি ভালো সিদ্ধান্ত। তাছাড়া এটাও মনে রাখা ভালো যে, আপনার পিসিটি যদি ম্যালওয়্যার দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকে, তাহলে সেই ম্যালওয়্যারটি বিভিন্ন ধরনের স্পায়িং টুলস বা কি-লগার টুল ব্যাবহার করে সহজেই আপনার ইনকগনিটো মোডে ব্রাউজ করা ডাটা চুরি করতে পারে।

এই ছিলো ব্রাউজারের ইনকগনিটো মোডের বিশ্বস্ততার সম্পর্কে কিছু তথ্য। আমি বলছি না যে, ব্রাউজারের ইনকগনিটো মোড কোন কাজের নয়। অবশ্যই এটা কার্যকর। তবে যদি আপনি অনলাইন প্রাইভেসি নিয়ে অনেক বেশি খুঁতখুঁতে হন, তাহলে ইনকগনিটো ব্রাউজিং এর ওপরে ভরসা করে বসে থাকবেন না। ইনকগনিটো ব্রাউজিং এর সাথে ভিপিএন ব্যাবহার করবেন এবং ওপরে যা যা বলেছি সেগুলোর ব্যাপারেও খেয়াল রাখবেন। Happy Browsing!

Feature Image Credit : SmartMockups

সিয়াম একান্ত
অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ ছিলো এবং হয়তো সেই আকর্ষণটা আরো সাধারন দশ জনের থেকে একটু বেশি। নোকিয়ার বাটন ফোন থেকে শুরু করে ইনফিনিটি ডিসপ্লের বেজেললেস স্মার্টফোন, সবই আমার প্রিয়। জীবনে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততোটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। আর এই প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ থেকেই লেখালেখির শুরু.....

স্মার্টফোন কেনার টিপস ২০১৯ : কীভাবে একটি উপযুক্ত ফোন নির্বাচন করবেন?

Previous article

অ্যান্ড্রয়েডের জন্য সেরা ২৫টি মিউজিক প্লেয়ার অ্যাপ!

Next article

You may also like

14 Comments

  1. Thanks

  2. Janito vai… Incognito kajer not.

    1. হ্যা, তবে অনেকেই জানে না বা আপনার আমার থেকে কিছুটা কম জানে। তাদের জন্যই মুলত পোস্টটা লেখা। 🙂

  3. সিয়াম ভাইয়া।
    একটা বেস্ট ভিপিএন সাজেস্ট করেন। সস্তা হলে বেশি ভালো হয়।

    1. Nord VPN ব্যাবহার করতে পারেন। সবথেকে স্পিডি এবং ট্রাস্টেড ভিপিএনগুলোর মধ্যে একটা হচ্ছে Nord VPN। আপনি যদি ৩ বছরের জন্য সাবস্ক্রইব করেন, তাহলে প্রতি মাসে ২.৭৫ ডলার প্রাইস আসবে। আমার জানামতে এর থেকে লো প্রাইসের আর কোনো ভিপিএন নেই। 🙂

  4. Via ami jodi cloudflare DNS use kori tahole ki hobe?

    1. ক্লাউডফ্লেয়ারের ডিএনএস শুধুমাত্র একটি ফাস্ট ডিএনএস প্রোভাইডা। তবে ক্লাউডফ্লেয়ার আপনার ইন্টারনেট ট্রাফিকগুলোকে কোনোভাবেই এনক্রিপ্ট করে না। আর দশটা ডিএনএস বা আপনার আইএসপির ডিফল্ট ডিএনএস এর মতোই সিকিউরিটি দেয় ক্লাউডফ্লেয়ার, যদি আপনি এনক্রিপশনের কথা বলেন।

  5. Incognito te ami Ki Ki site visit korchi
    Seta dns cache theke bujha jabe? All caxhe data save thake?
    Tahole to incognito kono nirapotta e nai.

    1. হ্যা ভাইয়া, ডিএনএস ক্যাশে শুধুমাত্র আপনার ভিজিট করা ওয়েবসাইটগুলোর আইপি অ্যাড্রেসের রেকর্ড থাকবে। এইজন্যই একইসাথে একটি ভিপিএন ব্যাবহার করা বেটার। 🙂

  6. That’s Really a Good Content! Appreciate it.

  7. valo laglo ?

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *