বর্তমান তারিখ:20 July, 2019

অনলাইন ভিডিও ব্রডকাস্ট করার ১০টি বেস্ট টুলস

আপনারা হয় তো জানেন বর্তমান সময় অনলাইন ভিডিও এর সময়। ইন্টারনেটে এখন ভিডিওর রাজত্ব চলছে। কারণ বর্তমানে অনলাইনে ভিডিওগুলোর ভিউয়ার অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে সবথেকে বেশি। আর অন্যদিকে লাইভ স্ট্রিম করার মাধ্যমে যেকেউ সহজেই তার মনের ভাব অন্যের সাথে লাইভ ভিডিও মাধ্যমে শেয়ার করতে পারছে। এই বিষয়টি বিজনেসের ক্ষেত্রেও বেশ লাভজনক একটি সেক্টর হিসেবে গড়ে উঠেছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে OTT (Over the Top) ভিডি এভার্টাইজিং এবং স্পন্সর ভিডিও ব্যবসা বেশ রমরমা হয়ে উঠেছে। আর এই সাথে এখন অনলাইন ভিডিও ব্রডকাস্ট করার সহায়ক সফটওয়্যারগুলোরও কদর বেশ বেড়েছে, এটা কম্পিউটার কিংবা স্মার্টফোন দুটো ক্ষেত্রেই বলা যায়। আর তাই আমি আজ নিয়ে এলাম অনলাইন ভিডিও ব্রডকাস্ট করার সেরা ১০টি টুলস নিয়ে, এগুলো ব্যবহার করে আপনিও সহজেই অনলাইন ভিডিও ব্রডকাস্ট করতে পারবেন।

OBS Studio

অনলাইন ব্রডকাস্ট করার সবথেকে বহুল ব্যবহৃত এবং জনপ্রিয় টুল হচ্ছে OBS Studio । তাই আমাদের আজকের লিস্টের প্রথমেই রয়েছে এই টুলটি। এর প্রথম কারণ হচ্ছে এটা ফ্রি সফটওয়্যার এবং এখানে অনেক ধরণের প্লাগইনস ব্যবহার করা যায়। OBS Studio মূলত একটি ওপেন সোর্স কমিউনিটি ডেভেলপড প্রজেক্ট। আর তাই এই টুলে আপনি অনান্য “দামি” ব্রডকাস্ট সফটওয়্যারের ফিচারগুলোও পেয়ে যেতে পারেন। OBS স্টুডিওর মূল ফিচারগুলোর মধ্যে রয়েছে ব্রডকাস্ট করার সময় মাল্টিপল সোর্সের মধ্যে সুইচিং করা (যেমন ক্যামেরা, ডেক্সটপ ক্যাপচার ইত্যাদি), অডিও, ভিডিও, ইমেজ, ওয়েব ব্রাউজার এবং গ্রাফিক্স সোর্সের সার্পোট, মাল্টিপল এলিমেন্টসহ বিভিন্ন Pre-program সিন, বিভিন্ন ভিডিও ফিল্টার এবং অডিও মিক্সার, স্টুডিও মোড এবং মাল্টি-ভিউ ফিচার, ভিডিও রেকডিং এবং RTMP লাইভ স্ট্রিমিং সার্পোট, প্লাগইনের মাধ্যমে NDI সার্পোট সহ আরো অনেক কিছু।

একটি ফ্রি ব্রডকাস্ট টুলে এত ফিচারের জন্যেই OBS স্টুডিও সফটওয়্যারটির জনপ্রিয়তা অনেক বেশি। আপনি সম্পূর্ণ ফ্রিতেই OBS Studio সফটওয়্যারটি আপনার উইন্ডোজ, ম্যাকওএস এবং লিনাক্স ভিক্তিক কম্পিউটারে ডাউনলোড এবং ইন্সটল করে নিতে পারবেন। আর আপনার যদি প্লাগইনস ব্যবহার করার ধারণা থাকে তাহলে অন্যযেকেনো পেইড ব্রডকাস্ট টুলের মতোই সার্ভিস আপনি OBS Studio থেকে পাবেন।

Wirecast

আমাদের আজকের সেরা অনলাইন ব্রডকাস্ট টুলের লিস্টের ২য় স্থানে রয়েছে Wirecast টুলটি। টুলটি নির্মাণ করেছে Telestream আর টুলটি OBS স্টুডিও সকল বেসিক ফিচার ছাড়াও আপনাকে আরো wide range এর ফিচার অফার করবে। এদের মধ্যে রয়েছে আরো শক্তিশালি এবং প্রফেশনাল টুলস। বর্তমানে Wirecast 11 হচ্ছে টুলটির সবথেকে লেটেস্ট সংস্করণ। তবে দুঃখের বিষয় হচ্ছে এটা কোনো ফ্রি সফটওয়্যার নয়। Wirecast টুলটির মূল ফিচারগুলো হচ্ছে মাল্টিপল সোর্স থেকে ইনপুট নেবার সুযোগ যার মধ্যে রয়েছে Camera, মাইক, ওয়েবক্যাম, আইপি ক্যামেরা, ক্যাপচার কার্ড এবং ডেক্সটপ। ইন্সট্যান্ট রিপ্লে, স্কোরবোর্ড, ইন্সট্যান্স ক্লক এবং টাইমার রিয়েল টাইমে ব্যবহার করার সুযোগ, Wirecast এর সাথে পাবেন ফ্রি Wireless ক্যামেরা অ্যাপ যেটির মাধ্যমে আপনি আপনার যেকোনো iOS ডিভাইসকে ভিডিও সোর্স হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন, রয়েছে NDI সার্পোট, রয়েছে Graphics এবং Titling টুল।

৮টি অডিও ট্রাক মিক্সার পর্যন্ত অডিও মিক্সারের সুযোগ, বিল্ট ইন ভিডিও কনফারেন্স এবং সোশাল মিডিয়া কমেন্ট সেকশন ফিচার। একই সাথে একাধিক সোর্সে স্ট্রিমে করার সুযোগ এবং স্ট্রিম ও রেকর্ড একই সাথে করার সুযোগ পাবেন আপনি এই Wirecast টুলটিতে। টুলটির বেসিক সংষ্করণে পাবেন ২টি গেস্ট ব্যবহার করার সুযোগ যেখানে পাবেন ভিডিও চ্যাট, আনলিমিটেড ক্যাপচার, লাইভ প্রডাক্টশন সহ আরো বেশ কয়েকটি ফিচার এবং ১ বছরের Wirecast থেকে সার্পোট, আর এই প্যাকেজটির মূল্য রাখা হয়েছে ৬৯৫ মার্কিন ডলার। অন্যদিকে এর আরেকটি আপগ্রেড সংস্করণ রয়েছে Wirecast Pro যেটার মূল্য রাখা হয়েছে ৯৯৫ মার্কিন ডলার, এখানে আপনি পাবেন ভিডিও চ্যাটের মাধ্যমে 7 Guests সার্পোট, 8-track অডিও আউটপুট, instant replay, more capture devices এবং IP cameras, webstream input, program feed output, live scoreboards, 3D virtual sets, ISO recording সহ আরো অনেক প্রিমিয়াম ফিচার।

VidBlasterX

লিস্টের তৃতীয় স্থানে রয়েছে VidBlasterX । উল্লেখ্য যে VidBlasterX হচ্ছে সফটওয়্যার এনকোডার এবং লাইন সুইচার দুটোর মিশ্রণ। অর্থাৎ আপনি VidBlasterX টুলে একই সাথে অনেক ধরণের ভিন্ন কাজ করতে পারবেন। যেমন আপনি ভিডিও এবং অডিও কে বিভিন্ন আলাদা আলাদা সোর্স থেকে এনে মিক্স করতে পারবেন, ইমেজ এবং গ্রাফিক্স সংযুক্ত করতে পারবেন, এডজাস্টমেন্ট করতে পারবেন ইত্যাদি। আর এ সবকিছুই অনান্য পেইড ব্রডক্যাস্ট সফটওয়্যারের থেকে তুলনামূলক কম মূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন VidBlasterX টুলটিতে। টুলটির মেইন ফিচারগুলো হচ্ছে এর ইউনিক মডিউলার ইউজার ইন্টারফেস, ওভারলে গ্রাফিক্স, বিভিন্ন ভিডিও ইফেক্টস, লোকাল মিডিয়াতে স্ট্রিম রেকর্ড, RTMP এর মাধ্যমে স্ট্রিম করার ফিচার সহ আরো অনেক ফিচার রয়েছে এই টুলটিতে। VidBlasterX টুলটির প্রাইসিং করা হয়েছে তিনটি প্রকারে সাবস্ক্রিপটশন ভিক্তিতে। Home, Studio এবং Broadcast সংস্করণে টুলটি আপনি কিনতে পারবেন।

হোম সংষ্করণটি প্রতি বছরে ৯ মার্কিন ডলার করে কাটবে এতে আপনি একই সাথে ৭টি মডিউল চালাতে পারবেন। স্টুডিও সংষ্করণটি প্রতি বছরে ৯৯ মার্কিন ডলার করে কাটবে আর এতে আপনি ২৫টি মডিউল একই সাথে চালাতে পারবেন। আর টুলটির সবথেকে দামী সাবক্রিপ্টশন টি হচ্ছে ব্রডকাস্ট সংষ্করণ, এর দাম পড়বে প্রতি বছরের ৯৯৯ মার্কিন ডলার, এতে আপনি একত্রে ১০০টি মডিউল চালাতে পারবেন Simultaneous ভাবে। আর এতে একই প্রোফাইলে মাল্টিপল রের্কোডার এবং স্ট্রিমার মডিউল সার্পোট করে। আর হোম ও স্টুডিও ভার্সনে আপনি পাবেন কমিউনিটি সার্পোট আর ব্রডকাস্ট সংস্করণে পাবেন community এবং priority support ।

vMix

vMix হচ্ছে একটি অস্ট্রেলিয়ান ভিক্তিক লাইভ ভিডিও প্রডাক্টশন এবং স্ট্রিমিং সফটওয়্যার। আপনি যদি encoding সফটওয়্যারের দিকে শক্তিশালি কোনো টুল খুঁজে থাকেন তাহলে vMix আপনার জন্য বেস্ট হবে। vMix সফটওয়্যারে রয়েছে অনেকগুলো চমৎকার ফিচার এবং নিয়মিত সফটওয়্যার আপডেটও আপনি পেয়ে যাবেন এই vMix টুলটিতে। টুলটির ফিচার হিসেবে বলা যায় যে এখানে আপনি হরেক রকমের ইনপুট রেঞ্জ পাবেন যেমন Webcams, cameras, capture cards, DVDs, soundcars, playlist, photos ইত্যাদি।

রয়েছে NDI সার্পোট, রয়েছে Chroma key এবং ভাচুর্য়াল সেটস, রয়েছে বিল্ট ইন Titling tool যেটায় XAML এর মাধ্যমে এনিমেশন সার্পোট করে এছাড়াও রয়েছে অনেক ফিচার।  vMix টুলটির পেইড সংস্করণের পাশাপাশি রয়েছে ফ্রি ভার্সন। vMix এ রয়েছে ৬টি ভিন্ন পেইড সংস্করণ, প্রতিটি সংস্করণে আপনি পাবেন এক বছর পর্যন্ত ফ্রি আপডেট, তবে দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে এটি শুধুমাত্র উইন্ডোজ প্লাটফর্মেই আপনি ব্যবহার করতে পারবেন।

XSplit

আমাদের আজকের লিস্টের ৫ম স্থানে রয়েছে XSplit টুলটি। এটি দুটি সংষ্করণে আপনি পাবেন। প্রথম সংষ্করণটি নাম Gamecaster আর নামেই বুঝতে পারছেন যে এই সংস্করণটি গেমারদের টার্গেট করে বানানো হয়েছে মানে ভিডিও গেম স্ট্রিমিংয়ে এই সংস্করণে আপনি বেশ সুবিধা পাবেন। আর টুলটির আরেকটি সংস্করণ রয়েছে যার নাম Broadcaster আর এই সংস্করণটি নিয়েই আমি এখানে কথা বলছি। ব্রডক্যাস্ট সংস্করণে আপনি পাবেন ইনপুট হিসেবে সকল প্রকার মেজর ক্যাপচার কার্ডস, ভিডিও, মিউজিক এবং ওয়েবক্যামের সার্পোট, ওয়েবক্যামের ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ, প্রফেশনার প্রডাক্টশন ফিচার যাদের মধ্যে রয়েছে enhanced audio, ক্রোমা কী, স্কাইপের মাধ্যমে রিমোট গেষ্ট, স্ট্রিম রেকর্ড করা সহ বিভিন্ন ফিচার থাকছে এতে।

টুলটি ফ্রি, পারসোনাল এবং প্রিমিয়াম এই তিনটি লাইসেন্সে পাওয়া যাচ্ছে। পারসোনাল লাইসেন্সের দাম ৩ বছরের জন্য ৮৯.৯৫ মার্কিন ডলার এবং ৩ মাসের জন্য ১৪.৯৫ মার্কিন ডলার রাখা হয়েছে। অন্যদিকে প্রিমিয়াম লাইসেন্সের লাইফটাইম মেয়াদের দাম রাখা হয়েছে ১৯৯ মার্কিন ডলার এবং ৩ মাসের মেয়াদের দাম রাখা হয়েছে ২৪.৯৫ মার্কিন ডলার।

FFMPEG

আমাদের আজকের লিস্টের ৬ষ্ঠ স্থানে রয়েছে FFMPEG টুলটি। লিস্টের প্রথম OBS টুলটির মতোই এটাও একটি ওপেন সোর্স টাইপের ব্রডক্যাস্ট টুল। এই FFMPEG সফটওয়্যারে আপনি রেকর্ডিং, কনভার্টিং এবং অডিও ভিডিও স্ট্রিমিং করার জন্য আলাদা টুলসেট পাবেন। তবে মনে রাখতে হবে যে এই টুলটি একটি command-line ভিক্তিক সফটওয়্যার। তাই তারা কমান্ডের মাধ্যমে কাজ করতে পারেন মানে কিছুটা প্রফেশনাল ইউজারদের জন্য টার্গেট করে এই টুলটি বানানো হয়েছে।

তবে সম্পূর্ণ সফটওয়্যার কমান্ড লাইনে নয় বরং সফটওয়্যারটির কিছু ইন্টারফেসে আপনি GUI পাবেন। টুলটির মূল ফিচারগুলো হচ্ছে RTMP এর মাধ্যমে স্ট্রিমিং, H.264, H.265 সহ বিভিন্ন অনান্য কোডেক এর মাধ্যমে কনটেন্ট এনকোড করতে পারবেন। যেকোনো রেজুলেশনের সার্পোট পাবেন, স্ট্রিমগুলোকে লোকালভাবে রেকর্ড করার সুবিধা পাবেন। তবে মনে রাখতে হবে যে FFMPEG হচ্ছে একটি encoder প্রধান টুল তাই এখানে আপনি মিক্সিং, ওভারলে এবং অনান্য এক্সট্রা সুবিধা পাবেন না।

IBM Cloud Video

২০১৬ সালে USTREAM কে IBM কিনে নেওয়ায় এখন এই সার্ভিসটি IBM Cloud Video Service টি পরিচালনা করছে। তাই এখন ক্লাউড ভিক্তিক  Ustream Pro Broadcasting কে আপনি Ibm Cloud Video Streaming Manager নামে পাবেন। আমাদের আজকের লিস্টের অনান্য ব্রডক্যাস্টিং সফটওয়্যারের থেকে একটু আলাদা। কারণ IBM Cloud Video হচ্ছে একটি “ব্যবসায়” কেন্দ্রিক সার্ভিস যেখানে বড়সড় অডিয়েন্সে টার্গেট করা হয়েছে, মানে ব্যবসায়িক স্ট্রিমিং সার্ভিস আপনি পাবেন এই IBM Cloud Video সার্ভিসে।

সার্ভিসে আপনি পাবেন প্রো এবং এন্টারপ্রাইস সংষ্করণ। আর এছাড়াও প্রো প্ল্যানে আপনি পাবেন  ৩০ দিনের ফ্রি ট্রায়ালের সুযোগ। যেখানে আপনি পাবেন ১০০ থেকে ৫০০০ ঘন্টার Viewer hours, 720p ব্রডক্যাস্টিং, এড-ফ্রি ব্রডক্যাস্টিং, চ্যানেল পাসওর্য়াড প্রটেকশন এবং কাস্টমাইজেশন। অন্যদিকে Enterprise প্ল্যানটি শুধুমাত্র বড়সড় বিজনেস কেন্দ্রিক হিসেবে সাজানো হয়েছে। Enterprise প্ল্যানে প্রো প্ল্যানের সব কিছুই পাবেন কিন্তু বোনাস হিসেবে পাবেন ১ টেরাবাইটের ভিডিও স্টোরেজ, 1080P ব্রডক্যাস্টিং, ডেডিকেটেড ইভেন্ট সার্পোট, মাল্টিপল বিটরেট স্ট্রিমিং, মাল্টি-ডিভাইস কম্পাবিলিটি এবং আরো অনেক কিছু।

Livestream

যারা সিরিয়াস লাইভ ব্রডক্যাস্ট নিয়ে ফোকাস রয়েছে তাদের জন্য Livestream হচ্ছে অন্যতম সেরা একটি সার্ভিস । Livestream সার্ভিসটি ব্যক্তিগত এবং বিজনেস দুটি ধাঁচের জন্যেই বানানো হয়েছে। প্রতি বছর প্রায় ১০ মিলিয়ন ভিডিও স্ট্রিমিং ইভেন্ট এই Livestream সার্ভিসের মাধ্যমে হয়ে থাকে বলেই তারা নিজেদেরকে বিশ্বের ১ নম্বর লাইভ ভিডিও প্লাটফর্ম হিসেবে দাবি করছে। Livestream আপনাকে ৩ ধরণের সংষ্করণ দিবে, একটি হচ্ছে “basic” যেটায় ব্যক্তিগত ব্রডক্যাস্টিংয়ের উপর ফোকাস করবে।

২য় টি হচ্ছে Premium যেটা ছোটখাট সংস্থা এবং বিজনেসের উপর ফোকাস করবে। আর শেষে রয়েছে Enterprise সংষ্করণ যেটায় রয়েছে এডভান্স লাইভ স্ট্রিমিং ফিচার এবং এটা বড়সড় কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানের উপর ফোকাস করা হয়েছে। তবে এগুলো ছাড়াও Livestream আপনাকে ফ্রি একাউন্ট খোলার সুবিধা দিবে যেখানে লিমিটেড ফিচার থাকবে আপনি ফ্রি একাউন্ট খুলে টুলটির ফিচারগুলো ট্রাই করতে পারবেন।

IRIS by Bambuser

আমাদের আজকের সেরা ভিডিও ব্রডক্যাস্ট লিস্টের নবম স্থানে রয়েছে IRIS টুলটি। লিস্টের অনান্য টুলসগুলো কম্পিউটার কেন্দ্রিক হলে IRIS টুলটি স্পেসিফিকভাবে মোবাইল প্লাটফর্মের জন্য বানানো হয়েছে। এখানে আপনি পাবেন Iris টেকনোলজি যার মাধ্যমে মোবাইল ভিডিও ব্রডক্যাস্ট করার সময় পাবেন low latency, সম্পূর্ণ লাইভ ভিডিও শেয়ার করার ফিচারও পাবেন এখানে আর HD মোবাইল ভিডিও সার্পোট তো থাকছেই। তবে মোবাইল প্লাটফর্ম মানে অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএস ডিভাইসে ব্যবহার করতে পারলেও কম্পিউটারে আপনি Iris একাউন্ট দিয়ে লগ ইন করে পিসির ওয়েবক্যাম এবং ক্যামেরাকেও ব্রডক্যাস্টিংয়ের কাজে ব্যবহার করতে পারবেন। ফ্রি ট্রায়াল সহ টুলটিতে পাবেন ৩ ধরণের প্রিমিয়াম সংষ্করণ।

Twitch

আমাদের আজকের লিস্টের সর্বশেষে রয়েছে গেমিং সেক্টরের অন্যতম জনপ্রিয় স্ট্রিমিং সার্ভিস Twitch। যারা টুকটাক গেমিং করে থাকে আর লাইভ ব্রডক্যাস্ট করে থাকেন তাদের কাছে Twitch প্লাটফর্মটি বেশ পরিচিত। Twitch টুলটি বা সার্ভিসটি সম্পূর্ণ একটি গেমিং ব্রডক্যাস্ট সার্ভিস। এখানে আপনি গেম খেলার সময় লাইভ ব্রডক্যাস্ট করতে পারবেন, অন্যদের ব্রডক্যাস্টগুলো দেখতে পারবেন, Twitch ভিক্তিক বিভিন্ন টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ সহ গেমাররা যা যা করে তার সবই করতে পারবেন। তবে আপনি যদি গেমিং ব্যাতিত অন্য কোনো টপিকে ব্রডক্যাস্ট করার টুলস খুঁজছেন তাহলে লিস্টের উপরের অনান্য টুলসগুলো দেখুন। Twitch এর Prime সংস্করণটি Amazon Prime সাবক্রিপ্টশনের মধ্যেই অর্ন্তভুক্ত রয়েছে। তাই যারা যারা আমাজন প্রাইম সদস্য রয়েছেন তারা ইতিমধ্যেই Twitch এর প্রাইম সংষ্করণটিতে রয়েছেন।


এই ছিলো ভিডিও ব্রডক্যাস্ট করার সেরা ১০টি টুলস। ফ্রিতে ব্রডক্যাস্টিং করার সেরা এক্সপেরিয়েন্স পেতে হলে আমার ব্যক্তিগত পছন্দ থাকবে OBS স্টুডিওকে। আর পেইড টুলস ব্যবহার করার আগে নিজে থেকে সফটওয়্যারটির উপর একটু খোঁজ খবর নিয়ে রাখবেন। আশা করবো আজকের পোষ্টটি আপনাদের কাছে ভালো লেগেছে। পোষ্টটি বেশি বেশি করে সোশাল মিডিয়াতে শেয়ার করে দিন যাতে অনান্যরাও পোষ্টটি দেখে উপকৃত হতে পারে। আজ এ পর্যন্তই, আগামীতে সেরা ১০ এর আরেকটি পোষ্ট নিয়ে আমি চলে আসবো WireBD তে!

Image Credit : Studio888 Via Shutterstock


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

 

যান্ত্রিক এই শহরে, ভিডিও গেমসের উপর নিজের সুখ খুঁজে পাই। যার কেউ নাই তার কম্পিউটার আছে! কম্পিউটারকে আমার মতো করে আপন করে নিন দেখবেন আপনার আর কারো সাহায্যের প্রয়োজন হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *