বর্তমান তারিখ:18 July, 2019

আত্মবিশ্বাস বুস্ট করার কিছু কিলার টিপস : আত্মবিশ্বাস VS আপনি!

আত্মবিশ্বাস VS আপনি!

জীবনে সামনে এগোনোর জন্য অনেক ইলিমেন্ট প্রয়োজনীয়। এখন সামনে এগোনো বলতে আপনি যদি লেখাপড়া শেষ করে সরকারি চাকুরীর চিন্তা করেন, এক্ষুনি এই ট্যাবটি কেটে যা ইচছা তাই করুন! পোস্ট টি মূলত তাদের জন্য রচিত যারা নিজে কিছু করার ইচ্ছা এবং ক্ষমতা রাখেন।

ব্যস্তব অভিজ্ঞতা, সঠিক এবং জানার উদ্দেশ্যে শিক্ষা অর্জন, দক্ষতা, প্রতিভা ইত্যাদি বিষয় গুলো সফলতা অর্জনে মোক্ষম ভূমিকা পালন করে। কিন্তু কোন এক কবি যেনো বলেছিলেন “এই জীবন শুখের স্বর্গ নয়” (খেয়ে কাজ নেই, কবির নাম মুখস্ত করবো, ইনফ্যাক্ট এটা কোন কবির বাণী আদৌও কিনা, নিশ্চিত নয়!) তো লাইফে উঁচু নিচু লেগেই থাকবে আর এরই নাম জীবন। কিন্তু এই সকল উঁচু নিচুকে সমান করে যে ইলিমেন্ট আপনাকে সামনে এগোতে সাহায্য করবে সেটাই হচ্ছে “আত্মবিশ্বাস” আর এর অস্তিত্য অবশ্যই প্রয়োজনীয়!

ঐ যে, একটা কথা রয়েছে, “তুমি গোটা দুনিয়ার কাছে মিথ্যা বলো, কিন্তু নিজের সাথে বলতে পারবে না”; তাই আত্মবিশ্বাস অনেকের কাছে সহজ জিনিস, গোঁফ দাঁড়ির মতো গজায় প্রতিনিয়ত, আবার অনেকের কাছে আত্মবিশ্বাস মানে দুঃস্বপ্ন, কেননা এই জিনিস কেবল নিজের ক্ষমতা থেকেই আসে। আর প্যাচটা ঐখানেই, নিজের সাথে মিথ্যা বলে আত্মবিশ্বাস অর্জন করা যায় না!

আত্মবিশ্বাসকে আমি এক প্রকারের প্রচণ্ড পজিটিভ এনার্জী বলবো আর অবশ্যই এটা কোন দক্ষতা নয় যে আপনি জীবনে একবার শিখবেন আর সারাজীবন কাজে লাগাবেন। আত্মবিশ্বাস সেই দুর্বিষহ সময় গুলোর জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় যখন সময় আর পরিস্থিতির শিকার হয়ে আপনি মনে করেন “আমাকে দিয়ে কিচ্ছু হবে না” সেই সময় কেবল সেল্ফ কনফিডেন্স নামক এই অদৃশ্য ড্রাগটিই পারে আপনাকে রাস্তায় টিকিয়ে রাখতে।

সত্যি বলতে আমাদের জীবনের উপর আমাদের নিয়ন্ত্রণ অনেক কম, কিন্তু আত্মবিশ্বাস এর উপর নিয়ন্ত্রণ আনা যেতে পারে, শুধু প্রয়োজন সঠিক পন্থা! চলুন, কিছু ফ্রী জ্ঞান বিতরণ করা যাক!

গোড়ার গন্ডগোল ফিক্স করতে হবে

গাছের গোড়াতে ধরেছে পঁচন, আর আপনি চিন্তা করছেন ফল আটকাতে কোন ঔষধ স্প্রে করবেন! তাহলে কিভাবে হবে? আগে প্রধান সমস্যা ফিক্স করতে হবে। আপনি যে পথেই চলতে চান, অবশ্যই প্রথমে পর্যাপ্ত দক্ষতা অর্জন করতে হবে। যেকোনো কাজের উপর দক্ষতা আপনাকে শক্তিশালী বানাবে আর এই শক্তি থেকেই আত্মবিশ্বাস খুঁজে পাবেন।

কাজের দক্ষতা নিয়ে এর সাথে অক্লান্ত পরিশ্রম মিশিয়ে দিন, প্রথমেই অনেক বড় সফলতা পেতে হবে না, ছোট ছোট সফলতা অর্জন করুন আর এই ছোট সফলতা গুলোকে সিঁড়ি হিসেবে কাজে লাগান, কেননা একবার সফলতার ছোঁয়া পেয়ে গেলে আপনি সফলতার প্রতি আসক্ত আর নিয়মিত হয়ে পড়বেন। পূর্বের যেকোনো সফলতার রেকর্ড আপনাকে সঠিক সময়ে অনেক আত্মবিশ্বাস জোগান দিতে পারে।

মনে রাখবেন, এক দৃষ্টিতে দুনিয়ার কোন কাজই সহজ বা কঠিন হয় না, কোন কিছু শুধু তখন কঠিন মনে হয় যখন সেটা আমরা করার চেষ্টা করি না বা আলস্য বোধ করি। নিজের কাজের কদর করতে হবে, আর বিশেষ করে সেদিকেই অগ্রসর করা উচিত নিজেকে যেটা আপনি করতে চান যেটাতে আপনি সত্যিই গুড, দেখবেন পছন্দের কাজ করার সময় নিজে থেকেই অনেকটা বল খুঁজে পাবেন, নিজের উপর ভরসা পাবেন, আর ঠিক এটাই তো দরকার!

অনুসরণ

অনুসরণ করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে, কিন্তু আমরা বাঙালিরা একটু বেশিই অনুসরণ করে ফেলি, আর যেটার নাম অনুসরণ থেকে পরিবর্তিত হয়ে “কপি” হয়ে যায়। হ্যাঁ, আপনি লাইফের রোল মডেল পছন্দ করতে পারেন এবং তার সফলতার গল্প থেকে নিজের আত্মবিশ্বাস বাড়াতে পারেন। কঠিন সময়ে হয়তো অন্যের সফলতার গল্প আপনাকে আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠতে সহায়তা করবে। কেননা, দুনিয়ার এমন কোন বড় ব্যাক্তিত্য নেই যারা খারাপ সময় পার করে আসেনি। যদি সবই অনুকূল হবে, তাহলে কিছু অর্জনের নামকে সফলতায় বা কেন বলা হবে?

তো মোটেও ভয় পেলে চলবে না, আপনি প্রতিকূল পরিবেশে রয়েছেন, এর মানে সফলতা আপনার সামনের স্টেজেই মিলবে লক্ষ্য ঠিক রাখতে হবে আর নিজের প্রতি বিশ্বাস হারানো চলবে না! সহজে কিছু পাওয়া কঠিন, কিন্তু সেই কঠিন রাস্তাকে আত্মবিশ্বাসের হাতিয়ার কাজে লাগিয়ে অনেকটা সহজ বানিয়ে ফেলা সম্ভব।

দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা

রাস্তা অনেক কঠিন হয়ে যাবে দেখে শর্টকাট জিনিষ দিয়েই শুরু করবেন এমনটা হলে চলবে না, যদি আপাতত কিছু শর্ট সফলতা পাওয়ার জন্য কাজও করেন তো সেটা হতে হবে কোন বড় পরিকল্পনারই একটি ছোট অংশ। ভয় আমাদের সকলের মধ্যেই কাজ করে আর সবার আগে সেটা নিজে থেকেই সিগনাল পাওয়া যায়। জানি ভাই, আমাদের মতো গরীব দেশের মানুষের কাছে সময় অনেক বড় পরীক্ষার বস্তু হতে পারে, মাথার মধ্যে নানান চিন্তা কাজ করে, প্রেমিকার বিয়ে হয়ে যাবে, পরিবারকে সাপোর্ট করতে হবে, সমাজে নিজের ইমেজ তৈরি করতে হবে, লং টার্ম কিছু করতে অনেক সময় লেগে যাবে তো কি করবো; হাজারো প্রশ্ন মনের মধ্যে তৈরি হয় আর আমরা সেই মুহূর্তের ইমোশন গুলোকে আর ইগনোর করতে পেরে উঠি না।

আমি বলবো, এগুলোর সাথেই নিজেকে মানিয়ে নিন, নিজের শক্তি বৃদ্ধি করার হাতিয়ার হিসেবে কাজে লাগান। আর কিছু কাজে না আসলেও এসকল চিন্তা আপনাকে পরিশ্রমী বানিয়েই ছাড়বে, যদি আপনার পরিকল্পনা হয়ে থাকে দীর্ঘমেয়াদি।

তবে কিছু ফ্যাক্টর ভুলে গেলেও চলবে না, বড় গোল কিন্তু বড় পরীক্ষা নেবে, আর তখন আবার শর্ট টার্ম গোলে ডাউন গ্রেট করতে চাইবেন কিন্তু এটাও তো ভাবতে হবে লং টার্ম গোল আপনাকে বেশি সুখী করতে সক্ষম, আর দুনিয়াই এত যুদ্ধ শুধু সুখের জন্যই!

মানুষ জাহান্নামে যাক

আশেপাশে অনেক উদার ব্যক্তিবর্গের দেখা মিলবে, যারা সাফসাফ আপনার আত্মবিশ্বাস ভেঙ্গে আপনাকে বলে দেবে আপনি আপনার গোলের জন্য পারফেক্ট নয়। এরকম অনেক হয়েছে আর বিশ্বাস করুন আমিই তার সবচাইতে বড় শিকার। এরকম সময় আত্মবিশ্বাস এর লেভেল আরো বাড়িয়ে দিয়েছি আমি, কেননা আমিই তাদের ভুলটি ভাঙাবো বলে।

আপনার বন্ধু, টিচার, সহকর্মী, পরিবার থেকে আপনাকে বলা হতে পারে আপনার গোল অনেক বড় আপনি সেটা অর্জন করতে প্রস্তুত নয় বা ছোট থেকে শুরু করুন ইত্যাদি। আমি বলবো, সুন্দর করে সকলকে ইগনোর করুন। আপনার ব্যাপারে তারা কিভাবে সঠিক হতে পারে? আপনার যদি মনে হয় আপনি পারবেন, তো আপনি পারবেন ই! মানুষ অসাধ্য সাধন করেই দুনিয়াকে প্রতিনিয়ত পরিবর্তন করছে, তাহলে অন্যের কথায় কি যায় আসে? হ্যা, পরিবার থেকে বা ঘনিষ্ট থেকে নেগেটিভ ফিডব্যাক অনেক কষ্টের, আগেই বলেছি এগুলো মানিয়ে নিন। বিশ্বাস করুন আপনি তাদের রোল মডেল হয়ে উঠবেন একদিন। তো আপনাকে তো লক্ষে অটোল থাকতেই হবে!

হ্যাঁ, সফলতা পান্তাভাত না, তবে ইম্পসিবল ও কিছু না। অনেক মানুষ তাদের সফলার ক্রেডিট তাদের আত্মবিশ্বাসকে প্রদান করে থাকে, আর আপনি যদি অলরেডি আত্মবিশ্বাসী হয়েই থাকেন তো সফলতা মাত্র কয়েক ধাপ দূরে। তবে আত্মবিশ্বাস বিল্ড করা খানিকটা ট্রিকি হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে!

খুব কম মানুষ রয়েছে যারা আত্মবিশ্বাস বিল্ড করার পন্থা গুলো বর্ণিত করার ক্ষমতা রাখে!



WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

Feature Img: By Olena Yakobchuk Via Shutterstock

প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।

4 Comments

  1. Anirban Reply

    LOVE U bhai. Emn ekta osadharon post lekhar jonno apnake pronaam. Ekta request emn post majhe majhe chai amader motivate korte, plzzzzz.

  2. Anirban Reply

    LOVE U bhai!! Emon ekta osadharon post er jonno apnake pronaam. Ekta request, amader motivate korte emon post aaro chai plz….

  3. Jakaria Nobita Reply

    আপনার শেয়ার করা টিপস আমার জন্য অনেক হেল্পফুল। আশাকরি সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারবো। ধন্যবাদ ?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *