আপনার কি উইন্ডোজ আপডেট বন্ধ রাখা উচিৎ?

উইন্ডোজ আপডেট

আমরা শুধু স্বয়ংক্রিয় উইন্ডোজ আপডেট নিজে থেকে বন্ধ করি না, বরং আরো মানুষকে উইন্ডোজ আপডেট বন্ধ রাখতে উৎসাহিত করি, আর বিশ্বাস করুণ এটি একটি মারাত্মক বেয়াকুফপোনা ছাড়া আর কিছুই নয়। জানি, উইন্ডোজ আপডেট অফ রাখার পেছনে অনেকের অনেক মতবাদ রয়েছে, আর বিশেষ করে আমাদের বাঙ্গালীদের বড় সমস্যা হচ্ছে উইন্ডোজ আপডেটে অনেক ইন্টারনেট ডাটা খরচ হয় যেখানে আমাদের দেশে অধিকাংশই লিমিটেড ইন্টারনেট ইউজার! — বাট ব্যাপারটা সাহ্যকর হয়ে গেলো না? ইন্টারনেট কানেকশন তাহলে কিসের জন্য? আপনার সিস্টেম আপডেটেড রাখার জন্য আপনি ইন্টারনেট ডাটা খরচ করবেন না?

অনেকের মতে আপডেট অনেক বিরক্তিকর, কেননা এটি ইন্সটল হতে সময় লাগে আর কাজের সময় পিসি রিস্টার্ট চেয়ে বসে অনেক সময়। কিন্তু ব্যাপারটি মোটেও সত্য নয় এখন, উইন্ডোজ ১০ এর আপডেট এর সিস্টেম অনেক পরিবর্তন করা হয়েছে বর্তমানে, আপনি আপডেট করা নিয়ে এখন আপনার সিস্টেমের উপর অনেক কন্ট্রোল রাখতে পারবেন। অনেক সময় আপডেট হয়ে যাওয়ার পরে অনেক কিছু পরিবর্তন হয়ে যায়, হ্যাঁ আমি স্বীকার করছি এটা অনেকের কাছে বিরক্তিকর, কিন্তু এভাবেই তো কোন জিনিষের পরিবর্তন আসে তাই না? আপনাকে ব্যাপারটি মানিয়ে নেওয়া উচিৎ।

তবে অনেক সময় উইন্ডোজ ত্রুটি যুক্ত প্যাচ আপডেট প্রদান করে ফেলে ফলে আপডেট অ্যাপ্লাই করার পরে পিসি নট ওয়ার্কিং কন্ডিশনে চলে যেতে পারে বা বারবার ব্লু স্ক্রীন অফ ডেথ সমস্যা শুরু হয়ে যেতে পারে আর এটা সত্যিই মেনে নেওয়া যায় না, কেননা আমরা কেউই পিসির সাথে ঝামেলা করতে পছন্দ করি না। এই ক্ষেত্রে বেটার হবে আপডেট ইন্সটল করার পূর্বে একটু নতুন আপডেট সম্পর্কে যাচায় বাছায় করে নেওয়া। অনেকে দেখি ম্যানুয়াল প্যাচ আপডেট করার চিন্তা করে বসে থাকে, হ্যাঁ আপনি ম্যানুয়ালভাবে কাজটি করতে পারেন, কিন্তু এখানে ব্যাপার রয়েছে ম্যানুয়াল উইন্ডোজ আপডেট এবং অ্যাপ আপডেট অনেক সময় সাপেক্ষ ব্যাপার আর আমিও যেহেতু এই পাপ আগে করতাম তাই জানি, ম্যানুয়াল জিনিষ সবসময় অবহেলায় পরে থাকতে থাকতে তার উপরে ধুলো জমে যায়।

সিস্টেম আপটু ডেটেড না থাকলে এটি হ্যাকারদের জন্য সহজ হ্যাকিং দরজা ওপেন করে দেয়। কোন সিস্টেমই পারফেক্ট নয়, তাই অপারেটিং সিস্টেম নির্মাতা কোম্পানিরা নতুন নতুন ত্রুটি খুঁজে বের করে এবং আপডেট দেওয়ার মাধ্যমে সেগুলোকে ফিক্স করে দেয়। এখন এই ত্রুটি গুলোকেই কাজে লাগিয়ে হ্যাকার আপনার কম্পিউটার নিয়ন্ত্রনে নিয়ে নিতে পারে। নিশ্চয় সেই বিশাল র‍্যানসমওয়্যার অ্যাটাকের কথা ভুলে যান নি, ইতিহাসের এই বিরাট হ্যাকিংটি শুধু ব্যাকডেটেড অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করার জন্যই হয়েছিলো। কয়েকমাস আগের ক্রিটিক্যাল প্যাচ আপডেট গুলো এখনো অনেকেই তাদের পিসিতে অ্যাপ্লাই করে নেয় না ফলে হ্যাকার’রা সহজেই তাদের পিসিকে টার্গেট করে এবং সফলও হয়ে যায়।

উইন্ডোজ আপডেট ও আমার মতামত

হ্যাঁ, জানি স্বয়ংক্রিয় উইন্ডোজ আপডেট নিয়ে সুবিধা ও অসুবিধা দুটোই রয়েছে, কিন্তু যদি আমাকে জিজ্ঞেস করেন আমার মতামত কি, তাহলে বলবো অবশ্যই উইন্ডোজ আপডেট বন্ধ রাখা কোন ভালো আইডিয়া নয়। উইন্ডোজকে স্বয়ংক্রিয় আপডেট হতে দিন, খুব কম সময় আপডেটে সমস্যা থাকে, তবে বেশিরভাগ সময় এই আপডেট আপনাকে যেকোনো সমস্যা থেকে রক্ষা করবে। নিয়মিত উইন্ডোজ আপডেট অ্যাপ্লাই না করলে অনেক ভালো অ্যান্টিভাইরাস টুল ব্যবহার করেও বিশেষ সুবিধা করতে পারবেন না। যদি চোর থাকে নিজের পরিবারের মধ্যে ঢুকে তাহলে চুরি তো হবেই, বাইরের চোর থেকে প্রোটেকশন দিয়েই কি লাভ।

উইন্ডোজ আপডেট

ইন্টারনেট জগত মোটেও সুবিধার নয়, যেখানে বিশেষ করে হ্যাকার’রা রয়েছে, আপনি যদি আমার নিয়মিত সিকিউরিটি আর্টিকেল গুলো পরে থাকেন তাহলে অবশ্যই জানেন, কতো সহজেই আপনার সমস্তকিছু তথ্য হাত ছাড়া হয়ে যেতে পারে, আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে শুরু করে আপনার পার্সোনাল ফাইল, কাজের ফাইল, গোপন তথ্য সবকিছুই বেহাত হয়ে যেতে পারে। রিসেন্ট র‍্যানসমওয়্যার অ্যাটাকে লাখো পিসির ফাইল গুলো এনক্রিপটেড হয়ে গিয়েছিল, তারপরে অনেকে হ্যাকারকে অর্থ প্রদান করে ফাইল ফেরত নিয়েছে আবার অনেকে অর্থ প্রদান করেও ফাইল গুলো ফেরত পাই নি, তো এগুলোর চেয়ে এটাই বেটার নয় কি, যে আপনার সিস্টেম আপ টু ডেটেড রেখে দিন ব্যাস!

যখনই আপনি চিন্তা করবেন নিজে থেকে ম্যানুয়াল আপডেট করে নেবেন পরে আমি গারেন্টি দিয়ে বলছি বেশিরভাগ সময়ই অবহেলায় আপডেট করা হয়ে উঠবে না, আর স্বয়ংক্রিয় আপডেট অন রাখার ফলে আপনাকে কোনই টেনশন করতে হবে না, আপনি কখন আপডেট ইন্সটল করবেন সেটা সেটিংস থেকে সহজেই কনফিগার করে নিতে পারবেন।

তবে আমি ব্যাক্তিগত ভাবে শুধু আপনাকেই দোষ দেবো না, মাইক্রোসফটকে তাদের আপডেট নিয়ে আরো সতর্ক ভূমিকা পালন করা উচিৎ। একেবারে ব্যাক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, একদিন সিয়াম একান্ত আমাকে কল করে বলল, “ভাই আমি পিসিতে উইন্ডোজ রি-ইন্সটল করছি” আমি কারণ জানতে চাইলে সে বলে স্বয়ংক্রিয় আপডেট অ্যাপ্লাই করার পরে পিসি আর ইউজ করতে পারছে না, বাধ্য হয়ে উইন্ডোজ রি-ইন্সটল করছে। এখন মাইক্রোসফট যদি নিজেই আপডেট চেক করে রিলিজ করে দেয় সেক্ষেত্রে তো সমস্যা, অবশ্যই মাইক্রোসফটকে আরো সচেতন হতে হবে।

তাহলে আপনি কি করবেন?

হ্যাঁ, মানছি মাইক্রোসফটকে আরো সচেতন হতে হবে বিশেষ করে আরো উন্নত আপডেট সিস্টেম তৈরি করতে হবে যাতে ইউজারদের জিরো সমস্যায় পড়তে হয়। কিন্তু তারপরে কি?

আমি সর্বদাই রেকমেন্ড করবো স্বয়ংক্রিয় উইন্ডোজ আপডেট চালু করে রাখতে, কেননা ভালনেরাবল সফটওয়্যার এবং অপারেটিং সিস্টেম হ্যাকারদের জন্য হ্যাকিং করা অনেক বেশি সহজ করে তোলে। স্বয়ংক্রিয় আপডেট হয়তো আপনার পিসি হ্যাকার প্রুফ বানাবে না, কিন্তু আপনাকে অনেকটা হ্যাকিং এর শিকার হওয়া থেকে বাঁচিয়ে দিতে পারে।

আর যারা ইন্টারনেটের ডাটা খরচের ভয়ে আপডেট বন্ধ করে রাখেন, তাদের আর কি বলবো, এটাই বলবো আপনার আইএসপি পরিবর্তন করুণ যাতে কম দামে ইন্টারনেট কিনে আপনিও স্বয়ংক্রিয় আপডেট চালু রাখার মতো ক্ষমতা দেখাতে পারেন। বিশ্বাস করুণ, আপনি অনেক বড় বড় সমস্যার হাত থেকে বেঁচে যেতে পারবেন। দেখুন, আপনাকে যদি ইন্টারনেট ব্যবহার করতেই হয়, সেক্ষেত্রে এটাই বেটার তেলামু না করে ইন্টারনেট এবং সাইবার সিকিউরিটি সম্পর্কে কিছু জ্ঞান অর্জন করুণ, নিজেই শিখে নিন কিভাবে অনলাইনে নিরাপদ থাকবেন! ওয়্যারবিডি আপনাকে সাইবার জগতে সুরক্ষিত রাখার জন্য সর্বদায় এরকম বিস্তারিত আর্টিকেল উপহার দিয়ে চলবে!



WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

ফিচার ইমেজ ক্রেডিটঃ By AFANASEV IVAN/Shutterstock

তাহমিদ বোরহান
প্রযুক্তির জটিল টার্মগুলো কি আপনাকে বিভ্রান্ত করছে? কিছুতেই কি আপনার মস্তিষ্কে পাল্লা পড়ছে না? তাহলে বন্ধু, আপনি এবার সঠিক জায়গায় এসেছেন—কেনোনা এখানে আমি প্রযুক্তির সকল জটিল বিষয় গুলো ভাঙ্গিয়ে সহজ পানির মতো উপস্থাপন করার চেষ্টা করি, যাতে সকলে সহজেই সকল টেক টার্ম গুলো বুঝতে পারে।