ইন্টারনেটউইন্ডোজ

ফায়ারফক্স ব্রাউজারের জন্য ৫ টি বেস্ট অ্যাড-অন!

3

গুগল ক্রোমের মতো পারফেক্ট ওয়েব ব্রাউজার থাকার পরে বর্তমানে খুব বেশি মানুষ প্রাইমারি ব্রাউজার হিসেবে ফায়ারফক্স কিংবা অন্য কোন ব্রাউজার ব্যাবহার করেনা। তবে ফায়ারফক্সের গত বছরের সবথেকে বড় রিডিজাইন, ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম রিলিজ হওয়ার পরে এখন অনেক পিসি ইউজারই প্রাইমারি ব্রাউজার না হলেও মেইন সেকেন্ডারি ব্রাউজার হিসেবে ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম ব্যাবহার করে থাকে। আপনিও যদি সেই দলেরই মানুষ হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার জন্যই আজকের আর্টিকেলটি। আজকে আলোচনা করবো মজিলা ফায়ারফক্সের জন্য ৫ টি বেস্ট অ্যাড-অন বা এক্সটেনশন নিয়ে যেগুলো ফায়ারফক্সে আপনার ব্রাউজিং এক্সপেরিয়েন্সকে অনেকগুনে ইম্প্রুভ করবে এবং এক্সট্রা অনেক সুবিধা প্রদান করবে।

Stylish

এটি ফায়ারফক্সের অনেক পুরনো এবং অনেক জনপ্রিয় একটি ওপেন-সোর্স অ্যাড-অন। এই অ্যাড-অনটি ব্যাবহার করে আপনি মুলত আপনার ভিজিট করা জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলোতে কাস্টম থিমস ব্যাবহার করতে পারবেন। জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলো বলতে গুগল, ফেসবুক, টুইটার, ইন্সটাগ্রাম, ইউটিউব ইত্যাদির কথা বলেছি। এসব ওয়েবসাইট ভিজিট করার সময় কাস্টম থিমস ব্যাবহার করতে পারবেন আপনি।  অ্যাড-অনটি ইন্সটল করার পরে ওয়েবসাইটগুলো ভিজিট করার সময় অ্যাড-অনটির আইকনের ওপরে ক্লিক করলেই আপনি দেখতে পাবেন যে সেই ওয়েবসাইটটির জন্য কি কি থিম এভেইলেবল আছে।

ফায়ারফক্স

আপনার কাঙ্খিত থিমটির ওপরে ক্লিক করলেই ওয়েবসাইটটির থিম চেঞ্জ হয়ে যাবে। এছাড়া Find more styles অপশনে ক্লিক করে আপনি Stylish এর থিম স্টোর থেকে জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলোর জন্য আরও কাস্টম থিমস ডাউনলোড করতে পারবেন এবং অ্যাপ্লাই করতে পারবেন। আপনার যদি গুগলের কিংবা ফেসবুকের কিংবা অন্যান্য জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলোর ডিফল্ট থিম ভালো না লাগে কিংবা একই থিম দেখতে দেখতে বোরিং লাগে, তাহলে আপনি এই অ্যাড-অনটি ব্যাবহার করতে পারেন। আর এই অ্যাড-অনটির থিম স্টোরে আপনি অসংখ্য সুন্দর সুন্দর থিম পাবেন যেগুলো নিজের ইচ্ছামত ব্যাবহার করতে পারবেন।

Ghostery

এটি একটি প্রাইভেসি অ্যাড-অন। এটি মুলত ইন্টারনেটে আপনার প্রাইভেসি রক্ষা করবে আপনার ভিজিট করা প্রত্যেকটি ওয়েবসাইটের ট্র্যাকারগুলো ব্লক করার মাধ্যমে। ট্র্যাকার হচ্ছে সেই ধরনের সার্ভিসগুলো যেগুলো ইন্টারনেটে আপনাকে ফলো করে আপনার সবগুলো ভিজিট করা ওয়েবসাইটে আপনার অ্যাক্টিভিটি ট্র্যাক করার জন্য। ইন্টারনেটে আপনার অ্যাক্টিভিটি ট্র্যাক করার মাধ্যমে এই ট্র্যাকাররা আপনাকে পারসোনালাইজড রিকমেন্ডেশন এবং মোস্ট ইম্পরট্যান্টলি, টার্গেটেড অ্যাডস দেখায়।

ফায়ারফক্স

আপনি হয়তো অনেকসময় খেয়াল করেছেন যে, আপনি কালকে কোন অনলাইন শপের পেজে যে প্রোডাক্টটি ব্রাউজ করেছেন, পরের দিন ঠিক সেই প্রোডাক্টটিরই অ্যাড ফেসবুক আপনাকে কিভাবে দেখাচ্ছে। এর কারন হচ্ছে এই ট্র্যাকারগুলো। ফেসবুকের ট্র্যাকার আপনাকে ট্র্যাক করেছে যখন আপনি অন্যান্য ওয়েবসাইট ভিজিট করেছেন। এই অ্যাড-অনটি ব্যাবহার করলে এটি সব ওয়েবসাইটের ট্র্যাকার ব্লক করে দেবে, যার ফলে কেউই ইন্টারনেটে আপনাকে ট্র্যাক করতে পারবে না এবং আরেকটি সুবিধা হচ্ছে, এর ফলে ওয়েবসাইটগুলো আরেকটু ফাস্ট লোড হবে। এছাড়া এটিকে আপনি একটি ট্রেডিশনাল অ্যাডব্লকার হিসেবেও ব্যাবহার করতে পারবেন। তবে হ্যা, ওয়্যারবিডি ভিজিট করার সময় এটিকে অফ করে রাখতে ভুলবেন না! ????

Country Flags and IP Whois

এই অ্যাড-অনটি বেশ কাজের একটি অ্যাড-অন। এই অ্যাড-অনটি ইন্সটল করে রাখলে আপনি যখনই কোন ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন, তখন আপনার অ্যাড্রেস বারের পাশে সেই ওয়েবসাইটটির ওয়েব সার্ভার যে দেশে আছে সেই দেশের ফ্ল্যাগ দেখতে পাবেন। এই ফ্ল্যাগটি ক্লিক করলে ওই ওয়েবসাইটটির হোস্টিং বা সার্ভার এবং ডিএনএস, নেমসার্ভার ইত্যাদি সম্পর্কে আরও ডিটেইলড ইনফরমেশন দেখতে পাবেন। এছাড়া ফ্ল্যাগটিতে মাউস কার্সর হোভার করলে সার্ভারটির আইপি অ্যাড্রেসও দেখানো হবে আপনাকে।

ফায়ারফক্স

এই অ্যাড-অনটি মুলত গীকদের জন্যই তৈরি করা। এই অ্যাড-অনটি যে কাজের জন্য তৈরি করা তা খুব বেশি প্র্যাকটিকাল, এমনটা নয়, তবে বুঝতেই পারছেন, আপনার যদি কোন ওয়েবসাইট সম্পর্কে এই ধরনের ইনফরমেশনগুলোর দরকার হয়ে থাকে, তাহলে এই অ্যাড-অনটি ইন্সটল করে রাখলে আপনাকে প্রত্যেকটি ওয়েবসাইটের সার্ভার ইনফরমেশন ম্যানুয়ালি খুঁজে বের করতে হবে না, এক ক্লিকেই সব জানতে পারবেন, যা খুবই টাইম সেভিং।

Momentum

এই অ্যাড-অনটি ব্যাবহার করে আপনার ফায়ারফক্সের বোরিং নিউ ট্যাব পেজটিকে নতুন একটি রিফ্রেশিং লুক দিতে পারবেন। এই অ্যাড-অনটি ইন্সটল করার পরে আপনার নাম এবং আপনার প্রতিদিনের একটি কাজ বা এটির ভাষায় একটি ফোকাস লিখতে হবে। তাহলে এই অ্যাড-অনটি আপনার নিউ ট্যাব পেজটিতে প্রত্যেকদিন নতুন একটি করে  হাই রেজুলেশন প্রাকৃতিক দৃশ্য বা একটি ইমেজ দিয়ে সাজাবে এবং একই সাথে আপনার এলাকার ওয়েদার ইনফরমেশন এবং আপনার সেইদিনের ফোকাসটি সুন্দর করে লিখে রাখবে।

ফায়ারফক্স

এই পেজের প্রত্যেকটি সেকশন আপনি নিজের ইচ্ছামত কাস্টোমাইজ করতে পারবেন অ্যাড-অনটির সেটিংস থেকে। এছাড়া আপনি মাল্টিপল ফোকাসও লিখে রাখতে পারবেন। আপনার বোরিং নিউ ট্যাব পেজটিকে নতুন করে সাজানোর জন্য এই অ্যাড-অনটির থেকে বেটার আর কোন উপায় নেই আমার মতে। এছাড়া এটিকে আপনার কোন একটি টাস্ক মনে রাখার জন্যও ব্যাবহার করতে পারেন। যেটি আপনি বারবার ভুলে যান সেটিকে এখানে ফোকাস হিসেবে লিখে রাখতে পারেন। এর ফলে আপনি যতবার নিউ ট্যাব ওপেন করবেন ততবার এটি আপনার চোখের সামনে আসবে এবং আপনাকে মনে রাখতে সাহায্য করবে।

Black Menu for Google

এটি আমার সবথেকে পছন্দের অ্যাড-অন। এটি প্রথমে শুধুমাত্র গুগল ক্রোম ব্রাউজারে এক্সটেনশন হিসেবে এভেইলেবল ছিলো। বর্তমানে এটি ফায়ারফক্সের অ্যাড-অন হিসবেও এভেইলেবল আছে ফায়ারফক্সের অ্যাড-অন স্টোরে। এই অ্যাড-অনটির সাহায্যে আপনি গুগলের কোন সাইটে না থেকেও আপনার ব্রাউজারের কোনায় এই অ্যাড-অনটির আইকনে ক্লিক করে গুগলের সব সার্ভিসগুলো একজায়গায় অ্যাক্সেস করতে পারবেন। গুগল সার্চ, গুগল ম্যাপস, জিমেইল, গুগল কিপ, অ্যাডসেন্স, গুগল অ্যানালিটিকস, ইউটিউব সবকিছুই আপনি এই একজায়গা থেকেই অ্যাক্সেস করতে পারবেন।

ফায়ারফক্স

এর জন্য আপনাকে নতুন কোন ট্যাবও ওপেন করতে হবে না। এছাড়া সবথেকে ভালো ব্যাপারটি হচ্ছে এখানে লিস্টে থেকে প্রত্যেকটি গুগল সার্ভিস একেকটি আলাদা আলাদা ওয়েব অ্যাপের মতো আচরন করবে, যা খুবই সহজ এবং কনভেনিয়েন্ট। এছাড়া আপনি এই মেনুটিকে নিজের ইচ্ছামত কাস্টোমাইজও করতে পারবেন সার্ভিস অ্যাড এবং রিমুভ করে এবং লাইট থিম, ডার্ক থিম এসব দিয়ে কাস্টোমাইজ করে। আপনি যদি হার্ডকোর গুগল ইউজার হয়ে থাকেন, তাহলে অবশ্যই এই অ্যাড-অনটি ব্যাবহার করবেন।

এগুলোই ছিলো মজিলা ফায়ারফক্স ব্রাউজারের জন্য ৫ টি বেস্ট অ্যাড-অন। এই লিস্টের প্রত্যেকটি অ্যাড-অন আপনি ফায়ারফক্স ব্রাউজারের অ্যাড-অন স্টোরে গিয়ে (https://addons.mozilla.org) সার্চ বক্সে নাম লিখে সার্চ করলেই ডাউনলোড এবং ইন্সটল করতে পারবেন। আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। আশা করি আজকের আর্টিকেলটিও আপনাদের ভালো লেগেছে। কোন ধরনের প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট সেকশনে জানাবেন।

 

সিয়াম একান্ত
অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ ছিলো এবং হয়তো সেই আকর্ষণটা আরো সাধারন দশ জনের থেকে একটু বেশি। নোকিয়ার বাটন ফোন থেকে শুরু করে ইনফিনিটি ডিসপ্লের বেজেললেস স্মার্টফোন, সবই আমার প্রিয়। জীবনে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততোটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। আর এই প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ থেকেই লেখালেখির শুরু.....

এথিক্যাল হ্যাকিং ফ্রী কোর্স [পর্ব ১০] : ৭টি বেস্ট হ্যাকিং অপারেটিং সিস্টেম!

Previous article

পুরাতন পিসির কিছু বিকল্প ব্যাবহার : বিক্রি করা ছাড়াও আরও অনেক কিছু সম্ভব!

Next article

You may also like

3 Comments

  1. Awesome……!!!

  2. You India you lose.. ???????????????? LOL

  3. Firefox quantam Google chrome এর থেকে র‍্যাম কম নেয় । ফলে চার্জও বেশিক্ষণ থাকে।
    firefox quantam কে underrated মনে হচ্ছে।

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *