হার্ডওয়্যার

এনভিডিয়া আরটিএক্স সিরিজ | NVIDIA GeForce RTX | নতুন গেমিং জিপিইউ! [বিস্তারিত]

9
এনভিডিয়া আরটিএক্স সিরিজ

ডিডিআর ৫ গ্রাফিক্স কার্ড ব্যবহার করতে করতে বোর হয়ে গেছেন? অর্ধলাখ টাকা ব্যয় করে প্রতি বছর নতুন “ডিডিআর৫” গ্রাফিক্স কিনতে কিনতে ফতুর হয়ে গেছেন? ডিডিআর ৫ গ্রাফিক্স কার্ড আর আপনার খায়েশ মেটাতে পারছে না? তাহলে এ বছরের সেপ্টেম্বর ২০ তারিখ থেকে পেয়ে যাবেন ডিডিআর ৬ গ্রাফিক্স কার্ড! শুধু তাই নয় এনভিডিয়া তাদের নতুন প্রজন্মের গ্রাফিক্স কার্ডও নিয়ে আসছে এই সেপ্টেম্বরে!

গত সোমবার জামার্নিতে অনুষ্ঠিত Gamescom সম্মেলনে এনভিডিয়া তাদের পরবর্তী নতুন গ্রাফিক্স কার্ড সিরিজ RTX 20 এনাউন্স করে ফেলেছে। আর আমি চলে এলাম এই গ্রাফিক্স কার্ডগুলোর ব্যাপারে বাংলায় আপনাদের সামনে কিছু কথা বলার জন্য। তো এনভিডিয়া তাদের নতুন ৩টি (মতান্তরে ৪টি) গ্রাফিক্স কার্ডের কথা গেমসকম সম্মেলনে উন্মোচন করেছে। এগুলো হচ্ছে:

এনভিডিয়া জিফোর্স আরটিএক্স ২০৭০ (৮জিবি), এনভিডিয়া জিফোর্স আরটিএক্স ২০৮০ (৮জিবি) এবং এনভিডিয়া আরটিএক্স ২০৮০ টিআই (১১ জিবি)। এগুলোর সবই ডিডিআর ৬ গ্রাফিক্স। আরেকটি গ্রাফিক্স কার্ড রয়েছে কিন্তু সেটা বেশ দামী ওইটা নিয়ে পোষ্টের একদম শেষে আলাদাভাবে সেকশন করে দিয়েছি।

এই কার্ডগুলো আগের প্রজন্মের গ্রাফিক্সকার্ডগুলোর থেকে (GTX 1080 Ti – DDR5x) থেকে সবোর্চ্চ ৬ গুণ বেশি দ্রুত গতির পারফরমেন্স দিবে এবং এগুলো এনভিডিয়ার নতুন টেকনোলজি “real-time ray tracing” ফিচারটি সমর্থন করবে। এনভিডিয়ার এই গ্রাফিক্স কার্ডগুলো Asus, EVGA, Gigabyte, MSI, PNY এবং Zotac ব্রান্ডের আন্ডারে আপনারা সেপ্টেম্বর মাস থেকে বাজারে পাওয়া শুরু করবেন।

নতুন প্রজন্মের এই নতুন তিনটি গ্রাফিক্স কার্ডেই আপনি পাচ্ছেন এনভিডিয়ার থেকে আলাদা ভাবে Founders Edition সংস্করণে। ফাউন্ডারস এডিশন ছাড়া এই তিনটি গ্রাফিক্স কার্ডের দাম হচ্ছে যথাক্রমে ৪৯৯, ৬৯৯ এবং ৯৯৯ মার্কিন ডলার। আর Founders Edition সহ এই তিনটি গ্রাফিক্স কার্ডের দাম হচ্ছে যথাক্রমে ৫৯৯, ৭৯৯ এবং ১১৯৯ মার্কিন ডলার।

এনভিডিয়ার ভাষ্যমতে আরটিএক্স ২০৮০ গ্রাফিক্স কার্ডটি ওভারক্লকিং এর জন্য করা হয়েছে, অন্যদিকে আরটিএক্স ২০৭০ কার্ডটি বর্তমানের “এনভিডিয়া টাইটান এক্সপি” কার্ডের থেকে রেয়-ট্রেসিং এর দিক থেকে বেশি পারফরমেন্স দিবে। আর ১১ গিগাবাইটের জিডিডিআর৬ মেমোরি নিয়ে ৪৩৫২ কিউডা কোরের ১৩৫০ মেগাহার্জ ক্লকস্পিড গতির আরটিএক্স ২০৮০ টিআই হচ্ছে এনভিডিয়ার নতুন ফ্লাগশীপ গ্রাফিক্স কার্ড।

আরটিএক্স ২০৭০

নতুন প্রজন্মের আরটিএক্স ২০ সিরিজের গ্রাফিক্স কার্ডের সবথেকে কমদামি কার্ড হচ্ছে এই RTX 2070 কার্ডটি। এনভিডিয়া আরটিএক্স ২০৭০ ফাউন্ডারস এডিশনের অফিসিয়াল দাম রাখা হয়েছে ৫৯৯ মার্কিন ডলার যা বাংলাদেশি টাকায় আসে প্রায় ৫০ হাজার ২০৩ টাকার মতো। নতুন প্রজন্মের Ray Tracking ফিচারের গেমসগুলো উপভোগ করতে পারবেন আপনি এই গ্রাফিক্স কার্ডটির সাহায্যে। আগের প্রজন্মের গ্রাফিক্স কার্ডের থেকে এই রেয় ট্রাকিং ফিচারে আপনি ৬ গুণ পর্যন্ত বেশি স্পিড পাবেন। এছাড়াও এতে রয়েছে শক্তিশালি AI (আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স) যুক্ত গ্রাফিক্স প্রসেসর।

স্পেসিফিকেশন:

বিষয়বস্তুআরটিএক্স ২০৭০ ফাউন্ডারস এডিশনআরটিএক্স ২০৭০
এনভিডিয়া CUDA কোরস২৩০৪২৩০৪
আরটিএক্স অপস৪৫ ট্রিলিয়ন৪২ ট্রিলিয়ন
গিগা রেয়স (প্রতি সেকেন্ডে)
বেইস ক্লক স্পিড১৪১০ মেগাহার্জ১৪১০ মেগাহার্জ
বুস্ট ক্লক স্পিড১৭১০ মেগাহার্জ (OC)১৬২০ মেগাহার্জ
মেমোরি স্পিড১৪ Gbps১৪ Gbps
মেমোরি সাইজ৮ গিগাবাইট GDDR6৮ গিগাবাইট GDDR6
মেমোরি ইন্টারফেস২৫৬ বিট২৫৬ বিট
মেমোরি ব্যান্ড উইথ৪৪৮ GB/s৪৪৮ GB/s
সর্বোচ্চ ডিসপ্লে রেজুলেশণ সার্পোট7680 x 43207680 x 4320
মাল্টি মনিটার সার্পোটসবোর্চ্চ ৪টি মনিটরসবোর্চ্চ ৪টি মনিটর
সবোর্চ্চ জিপিইউ তাপমাত্রা৮৯ সেলসিয়াস৮৯ সেলসিয়াস
চালানো জন্য চাই৫৫০ ওয়াটের পিসিইউ৫৫০ ওয়াটের পিসিইউ
টেকনিক্যাল ফিচারসমূহ:Real-Time Ray Tracing

NVIDIA GeForce Experience

NVIDIA Ansel

NVIDIA Highlihgts

NVIDIA G-SYNC

Game Ready Drivers

Microsoft DirectX 12 API

VulKan API
Open GL 4/5

DisplayPort 1.5

HDMI 2.0b

NVIDIA GPU Boost (4)

VR Ready

Designed for USB Type-C and VirtualLink

অফিসিয়াল মূল্য৪৯৯ মার্কিন ডলার ( ৪১, ৮৩৫ টাকা)

৫৯৯ মার্কিন ডলার (৫০, ২১৯ টাকা) – ফাউন্ডারস এডিশন

আরটিএক্স ২০৮০

রেয় ট্রাকিং ফিচারটি ছাড়াও আরটিএক্স ২০৮০ গ্রাফিক্স কার্ডে আপনি বর্তমানের এনভিডিয়া জিটিএক্স ১০৮০ গ্রাফিক্স কার্ডের থেকে “রেগুলার গেমসে” ৫০% বেশি পারফরমেন্স পাবেন। এনভিডিয়া জিটিএক্স ১০৮০ এর দাম বর্তমানে ৪৮৯ থেকে ৬৮৯ মার্কিন ডলারের মধ্যে, এক্ষেত্রে আরটিএক্স ২০৮০ এর দাম শুরু হয় ৬৯৯ মার্কিন ডলার থেকে। মানে বলা যায় যে প্রায় একই দামে বেশি পারফরমেন্স পাবেন আপনি। বর্তমানে এনভিডিয়া এই গ্রাফিক্সটি প্রতি কাস্টমারের জন্য ২টি করে লিমিট রেখেছে এবং গ্রাফিক্স কার্ডটি আগামী মাসের (সেপ্টেম্বর) ২০ তারিখে শিপিং শুরু করবে কোম্পানিটি।

4K রেজুলেশনের আপনি PUBG, Shadow of the Tomb Raider, Hitman 2, Wolfenstein II, Shadow of War এর মতো গেমসগুলোতে ১০৮০ কার্ডের থেকে ৫০% বেশি পারফরমেন্স পাবেন আরটিএক্স ২০৮০ গ্রাফিক্স কার্ডে, এবং এর সাথে এনভিডিয়ার RTX ফিচারটি তো রয়েছেই। এছাড়াও এনভিডিয়া দাবি করছে যে Call of Duty WW2, Destiny 2, Farcry 5, Battlefield 1 মতো গেমসগুলোতে এখন এই আরটিএক্স ২০৮০ গ্রাফিক্স কার্ডে আপনি ৪কে রেজুলেশনের 60FPS গতিতে চালাতে পারবেন। তবে এখানে মনে রাখার বিষয় হচ্ছে GTX 1080 Ti কার্ডেও 4K রেজুলেশনে 60FPS এর কাছাকাছি এবং ক্ষেত্রবিশেষে 60FPS ও পাওয়া যেত।

স্পেসিফিকেশন:

বিয়ষবস্তুআরটিএক্স ২০৮০ ফাউন্ডারস এডিশনআরটিএক্স ২০৮০
এনভিডিয়া CUDA কোরস২৯৪৪২৯৪৪
আরটিএক্স অপস৬০ ট্রিলিয়ন৫৭ ট্রিলিয়ন
গিগা রেয়স (প্রতি সেকেন্ডে)
বেইস ক্লক স্পিড১৫১৫ মেগাহার্জ১৫১৫ মেগাহার্জ
বুস্ট ক্লক স্পিড১৮০০ (OC) মেগাহার্জ১৭১০ মেগাহার্জ
মেমোরি স্পিড১৪ Gbps১৪ Gbps
মেমোরি সাইজ৮ গিগাবাইট GDDR6৮ গিগাবাইট GDDR6
মেমোরি ইন্টারফেস২৫৬ বিট২৫৬ বিট
মেমোরি ব্যান্ডউইথ৪৪৮ GB/s৪৪৮ GB/s
সবোর্চ্চ ডিসপ্লে রেজুলেশন সার্পোট7680 x 43207680 x 4320
সবোর্চ্চ তাপমাত্রা৮৮ সেলসিয়াস৮৮ সেলসিয়াস
চালাতে গেলে দরকার৬৫০ ওয়াটের পিসিইউ
অফিসিয়াল মূল্য৭৯৯ মার্কিন ডলার

( ৬৭ হাজার টাকা)

৬৯৯ মার্কিন ডলার

(৫৮ হাজার ৬০০ টাকা)

আরটিএক্স ২০৮০ টিআই

Nvidia RTX 2080Ti হচ্ছে এনভিডিয়ার নতুন প্রজন্মের ফ্ল্যাগশীপ গ্রাফিক্স কার্ড। ১১ গিগাবাইট GDDR6 টাইপের এই কার্ডে নতুন প্রজন্মের Ray Tracking ফিচার (যেটি এনভিডিয়া RTX নামে ব্রান্ডিং করছে) টি সহ পুরাতন গেমসগুলোর জন্য পারফরমেন্স বুস্ট সহ বাজারে আসছে। এখানে একটি কথা মনে রাখা দরকার তা হলো, বর্তমানে আমাদের এই পোষ্টে কিংবা ইন্টারনেটে এই গ্রাফিক্স কার্ডগুলোকে নিয়ে যতই আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে তার সবই কিন্তু এনভিডিয়ার “অনুমান ভিক্তিক” পরিসংখ্যার হারে করা হচ্ছে। এই গ্রাফিক্স কার্ডগুলো এখনো সাধারণ জনগণের জন্য রিলিজ করা হয়নি, তাই সেপ্টেম্বর ২০ তারিখে কার্ডগুলো “আসল গেমার”দের হাতে আসার পরেই সঠিক ভাবে বুঝা যাবে এগুলো আমাদের জন্য একই কেনা ঠিক হবে কিনা।

এছাড়াও এই কার্ডের জন্য এখনো কোনো উপযুক্ত গ্রাফিক্স ড্রাইভারও মুক্তি দেয়নি এনভিডিয়া, তাই বিভিন্ন ওয়েবসাইটে পারফরমেন্স ইস্যু নিয়ে বিভিন্ন কথা শোনা যায় সেগুলোকে আপনারা আপাতত কার্ডগুলো রিলিজ হওয়া আগ পর্যন্ত পাত্তা দিবেন না।  আর অনান্য সকল সোর্সের মতোই, টেকহাবে আপনি এই কার্ডগুলোর পাবলিক রিলিজের সাথে সাথেই অরিজিনাল বেঞ্চমার্কসহ বিস্তারিত পোষ্ট পেয়ে যাবেন।

স্পেসিফিকেশন:

বিয়ষবস্তুআরটিএক্স ২০৮০ টিআই ফাউন্ডারস এডিশনআরটিএক্স ২০৮০ টিআই
এনভিডিয়া CUDA কোরস৪৩৫২৪৩৫২
আরটিএক্স অপস৭৮ ট্রিলিয়ন৭৬ ট্রিলিয়ন
গিগা রেয়স (প্রতি সেকেন্ডে)১০১০
বেইস ক্লক স্পিড১৩৫০ মেগাহার্জ১৩৫০ মেগাহার্জ
বুস্ট ক্লক স্পিড১৬৩৫ (OC) মেগাহার্জ১৫৪৫ মেগাহার্জ
মেমোরি স্পিড১৪ Gbps১৪ Gbps
মেমোরি সাইজ১১ গিগাবাইট GDDR6১১ গিগাবাইট GDDR6
মেমোরি ইন্টারফেস৩৫২ বিট৩৫২ বিট
মেমোরি ব্যান্ডউইথ৬১৬ GB/s৬১৬ GB/s
সবোর্চ্চ ডিসপ্লে রেজুলেশন সার্পোট7680 x 43207680 x 4320
সবোর্চ্চ তাপমাত্রা৮৯ সেলসিয়াস৮৯ সেলসিয়াস
চালাতে গেলে দরকার৬৫০ ওয়াটের পিসিইউ
অফিসিয়াল মূল্য১১৯৯ মার্কিন ডলার

(১ লাখ ৮২৪ টাকা)

৯৯৯ মার্কিন ডলার

(৮৪ হাজার টাকা)

Turing VS Pascal

GTX 1080Ti সিরিজের জিপিইউগুলোকে বলা হয় Pascal গ্রাফিক্স কার্ড আর RTX 2080Ti সিরিজের জিপিইউগুলোকে বলা হচ্ছে Turing GPU । কারণ নতুন প্রজন্মের এই গ্রাফিক্স কার্ডগুলোতে ব্যবহার করা হয়েছে Turing GPU নামের নতুন জিপিইউ আর্কিটেকচার। উল্লেখ্য যে Pascal গ্রাফিক্স কার্ডগুলোর প্রসেস ছিলে 16nm বা ১৬ ন্যানোমিটারের কিন্তু নতুন Turing GPUগুলোর প্রসেস হচ্ছে 12nm NFF বা ১২ ন্যানোমিটার। এগুলোর ছাড়াও এই পারফরমেন্সের বুস্ট তো রয়েছেই। আপনারা লক্ষ্য করলে দেখতে পারবেন যে কিছুদিন আগে হঠাৎ করে বর্তমান প্রজন্মের Pascal এনভিডিয়া গ্রাফিক্স কার্ডগুলো দাম হঠাৎই কমে যায়। কিন্তু কেন? এই নতুন Turing GPU দের মার্কেটিং করার জন্য!

বেঞ্চমার্ক গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে Crysis 3, Tomb Raider, GTA V, Witcher 3, Fallout 4, DOOM, Rise of the Tomb Raider, Deus Ex Mankind Divided, Battlefiled 1, Sniper Elite 4, Mass Effect Andromeda, Farcry 5 বর্তমান যুগের এই গেমসগুলোতে GTX 1080 Ti গ্রাফিক্স কার্ডটি GTX 1080 এর থেকে ১.২৭ গুণ বেশি দ্রুত গতির পারফরমেন্স দিতে পারে। আর অন্যদিকে এখানে এনভিডিয়া বলছে য়ে GTX 1080 Ti এর থেকে RTX 2080 Ti এর পারফরমেন্স ১.২৩ গুণ বেশি হবে। এখন শুধু সময়ের ব্যাপার সঠিক ভাবে বেঞ্চমার্ক করে আসলেই দেখা যে এই নতুন প্রজন্মের কার্ডগুলো কতটুকু ফাস্ট হবে Pascal কার্ডগুলোর থেকে।

Nvidia Quadro RTX সিরিজ

এতক্ষণ যে কার্ডগুলোর কথা বললাম সেগুলো হচ্ছে সাধারণ গেমারদের জন্য Ray Tracing ফিচারের নতুন প্রজন্মের গ্রাফিক্স কার্ড। কিন্তু এখন যে গ্রাফিক্স সিরিজের কথা বলবো এগুলো হচ্ছে অনেক দামি এবং সুপার কম্পিউটারে ব্যবহারের জন্য নতুন Ray Tracing ফিচারসমৃদ্ধ Quadro RTX কার্ডগুলোকে নিয়ে। এই কার্ডগুলো দিয়ে AI গবেষণা সহ বর্তমান যুগের সকল জটিল এবং এডভান্স কাজগুলো সুপার কম্পিউটারে আরো সহজ ভাবে এবং দ্রুত গতিতে করা যাবে। পারফরমেন্স এর কথা বলতে গেলে আগের প্রজন্মের 4টি Quadro GV100 গ্রাফিক্স কার্ডের সমান পারফরমেন্স আপনি একটি Quadro RTX গ্রাফিক্স কার্ডে পেয়ে যাবেন।  আসুন নতুন এই কোয়াড্রো আরটিএক্স সিরিজের (এবং আগের GV100) স্পেসিফিকেশন এবং দাম দেখে নেই:

কার্ডের নামQuadro GV100Quadro RTX 5000Quadro RTX 6000Quadro RTX 8000
জিপিইউ আর্কিটেকচারVolta GPUTuring GPUTuring GPUTuring GPU
জিপিইউ প্রসেস12nm12nm12nm12nm
জিপিইউ কোরস৫১২০ কোরস৩০৭১ কোরস৪৬০৮ কোরস৪৬০৮ কোরস
টেনসর কোরস৬৪০ কোরস৩৮৪ কোরস৫৭৬ কোরস৫৭৬ কোরস
TMUs320TBDTBDTBD
ROPs128TBDTBDTBD
বুস্ট ক্লক স্পিড১৪৫০ মেগাহার্জTBDTBD-১.৭৫ গিগাহার্জ
FP16 Compute29.6 TFLOPsTBDTBD32 TFLOPs
FP32 Compute14.8 TFLOPsTBDTBD16 TFLOPs
Ray Tracing স্পিডনাইপ্রতি সেকেন্ডে ৬ গিগারেয়সপ্রতি সেকেন্ড ১০ গিগারেয়সপ্রতিসেকেন্ড ১০ গিগারেয়স
ভিডিও র‌্যাম32GB HBM216GB GDDR624GB GDDR648GB GDDR6
NVLINK সহ ভিডিও র‌্যামনাই32GB GDDR648GB GDDR696GB GDDR6
মেমোরি বাস৪০৯৬ বিট২৫৬ বিট৩৮৪ বিট৩৮৪ বিট
মেমোরি ব্যান্ডউইথ870 GB/s448 GB/s672 GB/s672 GB/s
মুক্তির পেয়েছে2018Q4 2018Q4 2018Q4 2018
অফিসিয়াল মূল্য৯০০০ মার্কিন ডলার

(৭ লাখ ৫৬ হাজার টাকা)

২৩০০ মার্কিন ডলার

(১ লাখ ৯৩ হাজার টাকা)

৬৩০০ মার্কিন ডলার

(৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা)

১০০০০ মার্কিন ডলার

(৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা)

বি:দ্র:NVLINK দিয়ে একটি সুপার কম্পিউটারে দুটি Quadro RTX জিপিইউ বসানো যায়। এখানে উল্লেখিত মূল্যে NVLINK নিতে চাইলে RTX এর দাম দ্বিগুণ হবে। (96GB = 20000$)

নতুন প্রজন্মের এই গ্রাফিক্স কার্ডগুলো এনভিডিয়ার রেয়-ট্রাকিং ফিচারযুক্ত গেমস মানে ভবিষ্যৎতের আগত গেমসগুলোর জন্য ইফেক্ট এর দিক থেকে বেশ এবং চরম উন্নতি এনে দিবে। আপনি যদি আগামী কয়েকবছর নিশ্চিন্তে মনের সুখে হাই গ্রাফিক্সে গেমস খেলতে চান তাহলে এই নতুন আরটিএক্স সিরিজে চলে আসতে পারেন। কিন্তু ২০১৮ সাল এবং আগের গেমসগুলোতেই যদি আপনি লিমিট থাকতে চান তাহলে নতুএই প্রযুক্তির গ্রাফিক্স কার্ডে আপনার এখনি আপগ্রেড করা ঠিক হবে না।


ফিচার ইমেজ ক্রেডিটঃ By BokehStore Via Shutterstock

ফাহাদ
যান্ত্রিক এই শহরে, ভিডিও গেমসের উপর নিজের সুখ খুঁজে পাই। যার কেউ নাই তার কম্পিউটার আছে! কম্পিউটারকে আমার মতো করে আপন করে নিন দেখবেন আপনার আর কারো সাহায্যের প্রয়োজন হবে না।

৫ টি বেস্ট অ্যান্ড্রয়েড ফটো এডিটর যেগুলো আপনি ব্যাবহার করতে পারেন! [২০১৮]

Previous article

আপনার ল্যাপটপের ব্যাটারি লাইফ ইমপ্রুভ করবেন যেভাবে!

Next article

You may also like

9 Comments

  1. এনভিডিয়া আরটিএক্স সিরিজ —- Borolox der GPU

    eta Title den 😀

    1. ৪৯৯ মাকির্ন ডলারে (মান ৪২ হাজারে) একটি ফুল পিসি বিল্ড করা যায়!

  2. ৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা দামের জিপিইউ দিয়ে কি হলিউড মুভি এডিট করার জন্য ভাই?

    1. একটি সুপার কম্পিউটারকে যে যে কাজে ব্যবহার করা হয় এই ১০ হাজার মার্কিন ডলারের গ্রাফিক্স কার্ডকেও সেই সুপার কম্পিউটারে লাগিয়ে ওই সমস্তই কাজ করানো হবে।

  3. Ei gpu kon kajer?

    1. কোন জিপিইউ?
      RTX 20 সিরিজ দিয়ে গেমস খেলা, ভিডিও এডিটিং এগুলো করার জন্য বানানো হয়েছে। Quadro RTX গুলো সুপার কম্পিউটারে সুপার ডুপার কার্যক্রম করার জন্য বানানো হয়েছে।

  4. GPU kenai parlam na re vai. 1050 keu gift dao keu / LOL

  5. GTX 1050Ti ke ekhono throttle koraite parlum na…. Bro.. RTX ki hoppe??…

    BTW, awesome and joss presentation… TAL!!

  6. Dhonnobad..

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *