৫ টি বেস্ট অ্যান্ড্রয়েড ওয়েব ব্রাউজার যেগুলো আপনি ব্যাবহার করতে পারেন! [২০১৮]

একটা অপারেটিং সিস্টেমের সবথেকে প্রয়োজনীয় অ্যাপ বা প্রোগ্রামের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ওয়েব ব্রাউজার অ্যাপস। ইন্টারনেট ব্যাবহার করার জন্য সবার প্রথমেই যা দরকার হয় তা হচ্ছে ইন্টারনেট কানেকশন এবং একতি ওয়েব ব্রাউজার। টাইটেল দেখেই বুঝে গিয়েছেন যে আজকে অ্যান্ড্রয়েডের জন্য ৫ টি সেরা ওয়েব ব্রাউজার নিয়ে আলোচনা করবো।

তবে স্ট্যান্ডার্ড এবং সবথেকে জনপ্রিয় ওয়েব ব্রাউজারগুলো যেমন- গুগল ক্রোম, মজিলা ফায়ারফক্স, অপেরা ব্রাউজার এগুলো আমরা সবাই বেশ ভালোভাবেই চিনি এবং পিসিতে এবং স্মার্টফোনে প্রতিদিন ব্যাবহারও করে থাকি। তাই এগুলোর নাম বলে সময় নষ্ট না করে আজকে এমন ৫ টি ওয়েব ব্রাউজার নিয়ে আলোচনা করবো যেগুলোর নাম হয়তো আপনি শোনেন নি কিংবা নাম শুনলেও সচারচর আমরা ব্যাবহার করি না, তবে ফিচারস এবং অন্যান্য দিক বিবেচনা করে সেগুলো যথেষ্ট ভালো ওয়েব ব্রাউজার। এমন কয়েকটি ওয়েব ব্রাউজার নিয়েই আজকে আলোচনা করবো।

ARMORFLY BROWSER

এই ব্রাউজারটি CM Browser এর পরে Cheetah Mobile এর তৈরি আরেকটি ওয়েব ব্রাউজার যা একই ব্রাউজার ইঞ্জিনের ওপরে রান করে। এই ব্রাউজারটিকে আমি বলবো অ্যাড-ফ্রি ইউসি ব্রাউজার। এই ব্রাউজারটির ফাংশনালিটি, ইউজার ইন্টারফেস, ব্রাউজিং এক্সপেরিয়েন্স সবকিছুই প্রায় ইউসি ব্রাউজারের মতোই।

যারা অ্যান্ড্রয়েড ফোনে ইউসি ব্রাউজার ব্যাবহার করেন, তারা সবাই জানেন অ্যান্ড্রয়েডে ইউসি ব্রাউজারের বিরক্তিকর এবং অশ্লীল নোটিফিকেশন অ্যাডসগুলোর বাপারে, যেগুলো কিছুক্ষন পরপরই নোটিফিকেশন বার অ্যাডস দিয়ে ভর্তি করে ইউজারকে বেশ ভালোরকম সমস্যায় ফেলে দেয়। তবে এই ব্রাউজারটিতে এই ধরনের কোন বিরক্তিকর অ্যাডস নেই। এছাড়া এই অ্যাপটির বাকি সব ফিচারস ইউসি ব্রাউজারের মতোই।

ওয়েব ব্রাউজার

ডেটা সেভার, বিল্ট ইন ডাউনলোড ম্যানেজার, বিল্ট ইন অ্যাড-ব্লকার, বিল্ট ইন ভিডিও ডাউনলোডার এইসবকিছুই আছে এই ব্রাউজারে। এছাড়া এই ব্রাউজারটি অন্যান্য ব্রাউজারের তুলনায় আরও ফাস্ট ওয়েবপেজ লোড করার দাবী করে, যদিও স্পিডের দিক থেকে ইউসি ব্রাউজার এবং অন্যান্য ব্রাউজারের সাথে খুব বেশি পার্থক্য নেই এই ব্রাউজারটির। আপনি যদি ইউসি ব্রাউজার ইউজার হয়ে থাকেন, তাহলে এই ব্রাউজারটি আপনার ভালো লাগতে বাধ্য।

এছাড়া এই ব্রাউজারটির আরও এক্সট্রা কিছু ফিচারসও আছে। যেমন-  সিক্রেট ফোল্ডার, যার সাহায্যে এই ব্রাউজারটির সাহায্যে ডাউনলোড করা যেকোনো ফাইল আপনি হাইড করে রাখতে পারবেন যা শুধুমাত্র এই ব্রাউজারটি ব্যাবহার করেই অ্যাক্সেস করা যাবে।

ডাউনলোড

MICROSOFT EDGE

যারা পিসিতে উইন্ডোজ ১০ ব্যাবহার করেন, তারা এই ব্রাউজারটির সাথে বেশ ভালোভাবেই পরিচিত। এটি উইন্ডোজ ১০ এর জন্য মাইক্রোসফটের তৈরি ডিফল্ট ব্রাউজার, যা খুব কম ইউজারই ব্যাবহার করে থাকে। যদিও ব্রাউজিং স্পিড এবং ফিচারসের দিক থেকে অন্য যেকোনো মডার্ন ওয়েব ব্রাউজারের থেকে কম যায় না এটি, তবুও গুগল ক্রোম এবং মজিলা ফায়ারফক্সের মত জনপ্রিয় ওয়েব ব্রাউজারের কাছে এই ব্রাউজারটির জনপ্রিয়তা নেই বললেই চলে। তবে উইন্ডোজ ১০ এর ডিফল্ট ব্রাউজার হওয়ায় এটির কয়েকটি অ্যাডভান্টেজ ঠিকই আছে যেগুলো অন্যান্য ব্রাউজারের নেই।

যেমন- মাইক্রোসফটের অন্যান্য প্রোডাক্টগুলোর সাথে ডিপ ইন্টাগ্রেশন, উইন্ডোজ ১০ এর অন্যান্য সেটিংসের সাথে ডিপ ইন্টাগ্রেশন এবং আরও অনেক কিছু। আপনি যদি উইন্ডোজ ১০ এ সেকেন্ডারি ব্রাউজার হিসেবেও মাইক্রোসফট এজ ব্যাবহার করেন অথবা মনে-প্রানে একজন মাইক্রোসফট ফ্যানবয় হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি অ্যান্ড্রয়েডেও মাইক্রোসফট এজ এর অ্যান্ড্রয়েড ভারশনটি ব্যাবহার করতে পারেন।

ওয়েব ব্রাউজার

এক্ষেত্রে আপনি যে সুবিধা পাবেন, তা হচ্ছে আপনার পিসি এবং মোবাইলের ব্রাউজারের মধ্যে সিংক করার সুবিধা। যেমন ব্রাউজিং হিস্টোরি, সেটিংস, কাস্টমাইজেশন এই সবকিছুই আপনার মাইক্রোসফট অ্যাকাউন্টের সাথে সিংক হবে যদি আপনি দুই জায়গাতেই মাইক্রোসফট এজ ব্রাউজার ব্যাবহার করেন।

এছাড়া মাইক্রোসফট এজ এর আরেকটি সুবিধা হচ্ছে, এক্ষেত্রে আপনি মোবাইলের ব্রাউজার থেকে পিসির ব্রাউজারে কন্টেন্ট শেয়ার করতে পারবেন। অর্থাৎ মোবাইলের ব্রাউজার থেকে কোন ওয়েবপেজ ব্রাউজ করার সময় চাইলে সেটিকে অটোমেটিক পিসির ব্রাউজারে লোড করতে পারবেন যদি দরকার হয়। এটি ব্রাউজিং এর ক্ষেত্রে কোন যুগান্তকারী ফিচার নয়, তবে কনভেনিয়েন্সের কথা বিবেচনা করলে এটি অবশ্যই একটি কাজের ফিচার।

ডাউনলোড

PUFFIN BROWSER

এটি স্মার্টফোনের জন্য অন্যতম জনপ্রিয় একটি ব্রাউজার। আপনি এই ব্রাউজারটির নাম অবশ্যই শুনে থাকবেন এবং হয়তো ব্যাবহারও করেছেন। ব্রাউজিং এবং ভিজুয়্যালের দিক থেকে এই ব্রাউজারটি অসাধারন কোন ব্রাউজার নয়, তবে এই ব্রাউজারটির কনসেপ্ট বেশ ইনোভেটিভ।

এই ব্রাউজারটি মুলত ব্রাউজিং এর ক্ষেত্রে ব্যাবহার করে ক্লাউড কম্পিউটিংকে। ক্লাউড কম্পিউটিং ব্যাবহার করার মাধ্যমে এটি আরও ফাস্ট ব্রাউজিং এক্সপেরিয়েন্স দেওয়ার দাবী করে এবং আমার নিজের অভিজ্ঞতা অনুযায়ী তাদের এই দাবীটি অধিকাংশ ক্ষেত্রে সত্যি। এই ব্রাউজারটি সত্যিই অন্যান্য অনেক জনপ্রিয় ব্রাউজারের তুলনায় কিছুটা ফাস্ট পেজ লোড করে।

ওয়েব ব্রাউজার

এর কারন হচ্ছে, এই ব্রাউজারটির সাহায্যে যখন আপনি কোন ওয়েবপেজ লোড করেন, তখন ব্রাউজারটি আপনার রিকুয়েস্ট আপনার ডিভাইস এবং আপনার ইন্টারনেট থেকে সেন্ড করে না। বরং রিকুয়েস্টটি সেন্ড করা হয় তাদের হাই পারফরমেন্স ক্লাউড কম্পিউটার থেকে এবং সম্পূর্ণ ওয়েবপেজটিকেই রেন্ডার করা হয় তাদের হাই এন্ড ক্লাউড কম্পিউটার থেকে এবং সেটিকে আপনার ডিভাইসে দেখানো হয়। তাই পেজটিকে যেহেতু আপনার ডিভাইসকে রেন্ডার করতে হচ্ছে না, তাই তুলনামুলকভাবে আরেকটু ফাস্ট লোড হয় পেজগুলো।

আর তাই এই ব্রাউজারের সাহায্যে ভিপিএন ছাড়াও জিওগ্রাফিক্যালি ব্লকড ওয়েবসাইটগুলোও লোড করা যায়। তবে অনেকসময় দেখা যায় এটি ভালোভাবে কাজ করে না এবং ব্রাউজারটি আনস্ট্যাবল হয়ে যায়। তবে তা খুব কমই হয়। এছাড়া এই ব্রাউজারটিতে আরো কিছু ফিচারস আছে, যেমন- আপনি এই ব্রাউজারে পেজ নেভিগেট করার সময় ভার্চুয়াল মাউস এবং টাচপ্যাড ব্যাবহার করতে পারবেন যদি দরকার হয়। এছাড়া থাকছে ডেটা সেভার এবং বিল্ট-ইন ফ্ল্যাশ প্লেয়ার সাপোর্টও।

ডাউনলোড

OPERA TOUCH

উইন্ডোজ পিসি  এবং অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যাবহার করেন, অথচ অপেরা ব্রাউজার চেনে না এমন ইউজার খুবই কম আছে। তবে অধিকাংশ ইউজারই অ্যান্ড্রয়েডে অপেরার শুধুমাত্র দুটি ব্রাউজারই চেনে। অপেরা ব্রাউজার এবং অপেরা মিনি। তবে অপেরা সম্প্রতি তাদের এই নতুন ব্রাউজারটি রিলিজ করেছে প্লে স্টোরে যেটির নাম অপেরা টাচ।

এই ব্রাউজারটি স্পেশালি ওয়ান-হ্যান্ডেড নেভিগেশনের জন্য তৈরি করা হয়েছে। অর্থাৎ এই ব্রাউজারটি যেকোনো সাইজের স্মার্টফোনেই এক হাতে ধরে ভালোভাবে ব্রাউজ করার জন্য পারফেক্ট।

ওয়েব ব্রাউজার

স্ট্যান্ডার্ড অপেরা ব্রাউজার যে ব্রাউজিং ইঞ্জিন ব্যাবহার করে, সেই একই ইঞ্জিন ব্যাবহার করার ফলে অরিজিনাল অপেরা ব্রাউজারের সাথে স্পিডের তেমন কোন পার্থক্য নেই। তবে এই ভারশনটিতে আরেকটি এক্সট্রা ফিচার আছে যারে নাম Opera Flow। এর সাহায্যে অপেরা টাচ ব্রাউজারটি থেকে যেকোনো ওয়েবপেজ বা যেকোনো ওয়েবসাইট ব্রাউজ করার সময় পিসির অফিশিয়াল অপেরা ব্রাউজারে ট্রান্সফার করা যাবে পিসিতে ব্রাউজ করার জন্য।

অনেকটা মাইক্রোসফট এজ ব্রাউজারের মতো, তবে এক্ষেত্রে শুধুমাত্র অপেরা ব্রাউজারই কাজ করবে। এছাড়া এই অ্যাপটি অপেরা মিনির মত বিরক্তিকর অ্যাড দিয়েও ইউজারকে বিরক্ত করে না। যদি অপেরা ফ্যানবয় হয়ে থাকেন, তাহলে এই ব্রাউজারটি ব্যাবহার করতে পারেন।

ডাউনলোড

VIA BROWSER

এই লিস্টের মধ্যে আমার সবথেকে পছন্দের ব্রাউজার এটি। এই ব্রাউজারটি এতটাই ভালো যে অনেক জনপ্রিয় কাস্টম রমে এই ব্রাউজারটিকে ডিফল্ট ওয়েব ব্রাউজার হিসেবে দেওয়া হয়। ১ এমবি এরও কম সাইজের এই ব্রাউজারটি ফোকাস করে সিমপ্লিসিটি এবং মিনিমাল ইউজার ইন্টারফেসের দিকে। এই ব্রাউজারটির মিনিমাল এবং ক্লিন ইউজার ইন্টারফেস প্রথমবার দেখেই যে কারো ভালো লাগতে বাধ্য।

এই ব্রাউজারটিতে শুধুমাত্র যা যা দরকার তাই তাই আছে। এক্সট্রা এমন কোন ফিচার নেই যেগুলো অপ্রয়োজনীয় এবং কেউ খুব বেশি ব্যাবহার করবে না। যেমন অপেরা ফ্লো বা এই ধরনের কোন ফ্যান্সি ফিচার। এই ব্রাউজারটির কাস্টোমাইজেশনও খুব লিমিটেড যা ১ এমবির কম সাইজের ব্রাউজারে এক্সপেক্টেড।

ওয়েব ব্রাউজার

তবে যেই দিক থেকে এই ব্রাউজারটি কোনরকম স্যাক্রিফাইস করে না, তা হচ্ছে স্পিড। এই ব্রাউজারটি গুগল ক্রোম বা মজিলা ফায়ারফক্সের মত যেকোনো স্ট্যান্ডার্ড ব্রাউজারের মতোই ফাস্ট এবং রেসপনসিভ। এছাড়া এইটুকু সাইজের ব্রাউজারেও আছে যথেষ্ট পাওয়ারফুল একটি অ্যাড-ব্লকার।  এছাড়া অন্যান্য বড় বড় ওয়েব ব্রাউজারে যেসব ফিচারস আছে, তার প্রায় সবকিছুই আছে এই ব্রাউজারে। এছাড়া এই ব্রাউজারটি একেবারেই অ্যাড-ফ্রি। আপনি এই লিস্টের শুধুমাত্র একটি ব্রাউজার ব্যাবহার করতে চাইলে আমি সাজেস্ট করবো এই ব্রাউজারটি ব্যাবহার করতে।


WiREBD এখন ইউটিউবে, নিয়মিত টেক/বিজ্ঞান/লাইফ স্টাইল বিষয়ক ভিডিও গুলো পেতে WiREBD ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুণ! জাস্ট, youtube.com/wirebd — এই লিংকে চলে যান এবং সাবস্ক্রাইব বাটনটি হিট করুণ!

ডাউনলোড

এই ছিলো ৫ টি বেস্ট অ্যান্ড্রয়েড ওয়েব ব্রাউজার যেগুলো আপনি ব্যাবহার করতে পারেন। আপনার জানামতে যদি এমন আরও ভালো কোন ওয়েব ব্রাউজার থেকে থাকে যা আপনি ব্যাবহার করেন, তাহলে নিচে কমেন্ট সেকশনে জানাতে পারেন। আজকের মতো এখানেই শেষ করছি। আশা করি আজকের আর্টিকেলটিও আপনাদের ভালো লেগেছে। কোন ধরনের প্রশ্ন বা মতামত থাকলে অবশ্যই কমেন্ট সেকশনে জানাবেন।

সিয়াম
অনেক ছোটবেলা থেকেই প্রযুক্তির প্রতি আকর্ষণ ছিলো এবং হয়তো সেই আকর্ষণটা আরো সাধারন দশ জনের থেকে একটু বেশি। নোকিয়ার বাটন ফোন থেকে শুরু করে ইনফিনিটি ডিসপ্লের বেজেললেস স্মার্টফোন, সবই আমার প্রিয়। জীবনে টেকনোলজি আমাকে যতটা ইম্প্রেস করেছে ততোটা অন্যকিছু কখনো করতে পারেনি। আর এই প্রযুক্তির প্রতি আগ্রহ থেকেই লেখালেখির শুরু.....